করদাতাদের সময়মতো আয়কর প্রদানের আহ্বান রাষ্ট্রপতির



বাসস
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে করদাতাদের সময়মতো আয়কর প্রদানের আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আজ ৩০ নভেম্বর 'জাতীয় আয়কর দিবস-২০২১' উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে তিনি এ আহ্বান জানান।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে ৩০ নভেম্বর জাতীয় আয়কর দিবস পালিত হচ্ছে জেনে রাষ্ট্রপতি সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ উপলক্ষে তিনি সকল সম্মানিত করদাতা এবং কর বিভাগের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন, আয়কর কেবল রাজস্ব আহরণের প্রধান খাত নয়, এটি অর্থনৈতিক ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার একটি অন্যতম মাধ্যম। প্রত্যক্ষ কর বা আয়করকে পৃথিবীর সকল উন্নত রাষ্ট্রের প্রধান কর হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দেশ রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে সফলতার পথ ধরে রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে সুখী-সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ার পথে অগ্রসর হচ্ছে। রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বৃদ্ধির বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, আয়কর সম্পর্কে জনগণের মধ্যে পর্যাপ্ত সচেতনতা সৃষ্টি করতে পারলে একদিকে যেমন কর বিষয়ক ভীতি দূর হয়, তেমনি সমাজে কর পরিপালনের সংস্কৃতিও বিকশিত হয়। আয়কর সম্পর্কে ভীতি ও অসচেতনতা দূর করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আয়কর বিভাগ বিগত বছরসমূহে অনেক উদ্ভাবনীমূলক ও কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এসবের মধ্যে রয়েছে জাতীয় আয়কর দিবস উদযাপন, আয়কর প্রদানকারীগণকে ট্যাক্স কার্ড প্রদান, পুরস্কার ও স্বীকৃতি প্রদান ইত্যাদি। ইতোমধ্যে আয়কর ব্যবস্থাপনায় তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারসহ বেশ কিছু সংস্কার সাধিত হয়েছে। অনলাইনে আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিডিএস, এ চালান এবং নিরীক্ষিত হিসাব বিবরণীর সঠিকতা যাচাইয়ের জন্য ডকুমেন্টস ভেরিফিকেশন সিস্টেম (ডিভিএস) চালু করা হয়েছে। এসব ইতিবাচক সংস্কার ও কার্যক্রমের ফলে আয়কর ব্যবস্থাপনায় যুগান্তকারী পরিবর্তন সূচিত হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নভেম্বর মাসব্যাপী সারা বাংলাদেশে সকল কর অফিসসমূহে করসেবা প্রদান করেছে। কোভিড মহামারির কারণে করমেলা অনুষ্ঠিত না হলেও সম্মানিত করদাতাগণকে মাসব্যাপী করসেবা প্রদানের উদ্যোগ একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ। করদাতাদের কর প্রদানে উৎসাহিত করার অংশ হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবার ১ শত ৪১ জন দীর্ঘমেয়াদি করদাতাসহ সারাদেশে ৬ শত ৬৬ জন সর্বোচ্চ করদাতাকে সম্মাননা ও ট্যাক্স কার্ড প্রদান করেছে। আমি আশা করি, এর মাধ্যমে অন্যান্য করদাতাগণও আয়কর প্রদানে উৎসাহিত হবেন।

তিনি ‘জাতীয় আয়কর দিবস-২০২১’ উপলক্ষ্যে গৃহীত সকল কার্যক্রমের সফলতা কামনা করেন।

অজ্ঞাত নারীর মরদেহ উদ্ধার



Tabassum Tanjim
ছবি: সংগ্রহীত

ছবি: সংগ্রহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শেরপুরে বস্তাব‌ন্দি অবস্থায় অজ্ঞাত এক নারীর মর‌দেহ উদ্ধার ক‌রে‌ছে পু‌লিশ।

শ‌নিবার (২২ জানুয়া‌রি) সকা‌লে সদর উপজেলার কামারিয়া ইউনিয়নের আন্ধারিয়া নিজপাড়া এলাকা ওই নারীর মর‌দেহ উদ্ধার করা হয়।

পু‌লিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সকা‌লে রাস্তার পাশে ফরমান মিয়ার ধানক্ষেতে বস্তাব‌ন্দি মর‌দেহ দেখতে পেয়ে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ মর‌দেহ উদ্ধার ক‌রে।

শেরপুর সদর থানার ওসি (তদন্ত) মো. বন্দে আলী মিয়া ব‌লেন, ওই মহিলার মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বয়স আনুমানিক ৪০ বছরের মত হবে। নিহতের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। এ ঘটনার সিআইডি এবং পিবিআই এর টিম ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দি‌য়ে‌ছেন।

;

নির্বাচন কমিশন গঠন আইন সংসদে উঠছে রোববার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন আইন রোববার (২৩ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদের অধিবেশনে উঠতে যাচ্ছে। আইন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানিয়েছে, আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল ২০২২ সংসদে উত্থাপন করবেন। বিলটি সংসদে তোলার জন্য ওই দিনের কার্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সরকারের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মন্ত্রিসভার বৈঠকে খসড়া অনুমোদন হওয়ার পর থেকেই আইন মন্ত্রণালয় এই আইনটি সংসদে উত্থাপনের জন্য কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

সংবিধানের ১১৮(১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের জন্য বিলটি আনা হয়েছে। আইনমন্ত্রী বিলটি তুললে তা আইন, বিচার ও সংসদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হবে।

এর আগে, গত সোমবার (১৭ জানুয়ারি) নির্বাচন কমিশন গঠন আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়া হয়। সেদিন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের জন্য একটি অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হবে। সেটা রাষ্ট্রপতির অনুমোদন নিয়ে।

;

কোলাহলমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, পদচারণা নেই শিক্ষার্থীদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের প্রভাবে আবারও দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছেন সরকার। করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের থাবায় পুরো বিশ্ব আতঙ্কিত। বাদ পড়ছেনা বাংলাদেশও। করোনা সংক্রমণরোধে তাই সরকার ইতিমধ্যে কিছু নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছেন।

শুক্রবার (২১জানুয়ারি) সবশেষ সংক্রমণরোধের প্রজ্ঞাপন জারির পর দুই সপ্তাহের জন্য সরকার বন্ধ ঘোষণা করেন দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সেই সাথে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ও তাদের পূর্ব নির্ধারিত সকল পরীক্ষা স্থগিত ঘোষণা করেছেন। আর সকল কোচিং সেন্টারও বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


শনিবার (২২ জানুয়ারি) থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করায় রাজবাড়ীর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঝুলছে তালা। ক্যাম্পাসগুলোতে নেই শিক্ষার্থীদের পদচারণা। একেবারেই কোলাহলমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে অফিসিয়াল কাজের জন্য বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিসগুলো খোলা দেখা যায়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিসিয়াল কার্যক্রম চালাচ্ছেন তারা।

সরেজমিন বালিয়াকান্দি সরকারি কলেজে গিয়ে দেখা যায়, কলেজের প্রতিটি শ্রেণিকক্ষ বন্ধ রয়েছে। ঝুলছে তালা। কলেজের মাঠে ১০-১৫ জন শিক্ষার্থীর দেখা মেলে। তারা একে অপরের সাথে খোলা মাঠে বসে গল্প-আড্ডায় মেতে উঠেছে। তবে কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের কলেজ ক্যাম্পাস ত্যাগ করার জন্য নির্দেশ দিচ্ছেন।

কলেজ ক্যাস্পাসে বসে থাকা শিক্ষার্থীরা বার্তা২৪.কমকে বলেন, কলেজে পরীক্ষা সংক্রান্ত কিছু তথ্য জানার ছিল। যার কারণে কলেজে এসেছিলাম। তথ্য জানা শেষ। এখন আমরা বাড়ীতে ফিরে যাচ্ছি।


একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা বার্তা২৪.কমকে বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকার যে নির্দেশনা প্রদান করেছেন আমরা তা মেনে চলছি। দুয়েক জন শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য জানার জন্য আসলেও আমরা তাদেরকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে না আসার পরামর্শ দিচ্ছি।

রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান বার্তা২৪.কমকে বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ যে নির্দেশনা প্রদান করেছেন তা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। মন্ত্রীপরিষদের নির্দেশনা কোথাও অমান্য হলে বা ব্যত্য়য় ঘটলে সেখানে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

;

ফরিদপুরে ১০ গ্রামে শান্তি সভা: অশান্তি না করার শপথ 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ফরিদপুরে ১০ গ্রামে শান্তি সভা: অশান্তি না করার শপথ 

ফরিদপুরে ১০ গ্রামে শান্তি সভা: অশান্তি না করার শপথ 

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের ১০টি গ্রামের প্রধান ও সাধারণ মানুষ শান্তিসভা করে অশান্তি না করার শপথ গ্রহণ করেছেন।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) বিকেলে থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উপজেলার তেলজুড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে এ শান্তিসভা অনুষ্ঠিত হয়।

শান্তিসভায় ইউনিয়নের তেলজুড়ী, রায়বর, দৈবকনন্দনপুর, নিধিপুর, দুর্গাপুর, বাজিতপুরসহ ১০ গ্রামের সকল নেতা,মাতুব্বর ও সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

ফরিদপুর জেলা পরিষদ সদস্য ও শেখর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, থানার ওসি তদন্ত মো. সালাউদ্দন, জাহাঙ্গীর আলম মুকুল, শেখর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রইসুল ইসলাম পলাশ, সৈয়দ সাকির আহমেদ সাকু, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক খন্দকার ওমর হাফিজ মুক্তি, বীরমুক্তিযোদ্ধা খন্দকার ওলিয়ার রহমান, এসআই মো. হাফিজুর রহমান, সাবেক মেম্বার আব্দুর রহমান, সাবেক মেম্বার ফরহাদ সিকদার, মো. ইলিয়াস মাতুব্বর প্রমুখ।

সভা শেষে উপস্থিত সকলে অঙ্গীকার করেন, আজ থেকে ১০ গ্রামে আর কোন কাইজা, মামলা, কোন প্রকার অশান্তি থাকবে না। যত মামলা আছে তা তুলে ফেলবো ১০ গ্রামের মানুষ মামলা-হামলা ছাড়া শান্তিতে বসবাস করবো এবং সবাই মিলে মিশে চলবো।

;