ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করবে যুবলীগ :নানক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশ, জনতার ও জাতীয় স্বার্থ বিরোধী যেকোন ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করবে বলে মন্তব্য করেছেন যুবলীগ সংগঠনটির সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি বলেন যুবলীগের প্রত্যেক নেতা ও কর্মী সকল লোভ লালসার ঊর্ধ্বে থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশ গড়ার সংগ্রামে অতীতের ন্যায় দৃঢ়তার সাথে পাশে থাকবে- এটাই হোক যুবলীগের ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শপথ।

বুধবার (০৮ ডিসেম্বর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে সংগঠনের ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফরেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে প্রধান অথিতির বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা। 

যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী চক্রকে পতিহত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যুবলীগকে সব সময়ের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। দেশ ও জাতির প্রয়োজনে যুবলীগ কখনও নিজ দায়িত্ব পালনে পিছিয়ে থাকেনি ভবিষ্যতেও থাকবে না।

নানক বলেন, বাংলাদেশের মত ৩য় বিশ্বের দেশ সমূহের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে যুবসমাজের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন। যুব সমাজকে যদি সঠিক পথের সন্ধান দেয়া না যায় তাহলে একটি জাতি ও রাষ্ট ব্যর্থ হতে পারে। যুব সমাজ যদি বিভ্রান্ত হয়, মেধা ও মনন ভিত্তিক না হয়ে মাদক ও সন্ত্রাস আকৃষ্ট হয়ে সে ক্ষেত্রে রাষ্টের ভবিষ্যত অন্ধকারাচ্ছন্ন। তাই দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ একটি সংঘবদ্ধ আদর্শিক যুব সমাজ রাষ্টেধর উন্নয়ন ও বিকাশে জন্য অপরিহার্য। একটি আদর্শিক সংগঠন, যুবসমাজ কে উদ্ধুদ্ধ করে সুসংগঠিত করে এবং রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের জন্য প্রস্তুত করে।

অনুষ্ঠানে যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, যুবলীগ যদি বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে চলে তাহলে ওই বিএনপি-জমায়াতের চক্ররা দেশ ও জাতির কোনো ক্ষতি করতে পারবে না। তাই যুবলীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঐক্যবন্ধ থাকতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। তাহলে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপনের সোনার বাংলাদেশ গড়তে পারব।

অনুষ্ঠানের যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাঈনুল হোসেন খান নিখিলের পরিচালনায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ঠাকুরগাঁওয়ে আগুনে ১৩ পরিবারের ঘরবাড়ি পুড়ে ছাই



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঠাকুরগাঁও
ঠাকুরগাঁওয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

ঠাকুরগাঁওয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

  • Font increase
  • Font Decrease

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার একটি গ্রামে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১৩ পরিবারের অন্তত ৫০ টিরও বেশি টিনসেড এবং বাঁশ চাটাইয়ের ঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়েগেছে। এছাড়াও আরও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ১০-১২ টি পরিবার। এ ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

বুধবার রাত ১১ টায় সদর উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের পটুয়া পাইকপাড়া গ্রামে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। 

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিৎ করেছেন ঠাকুরগাঁও ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন। তবে আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে এখনো কিছু জানাননি তিন। 

স্থানীয় আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রতিবেশী হাসিরুলের ঘরে বৈদ্যুতিক তারে আগুন লাগে। এ থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। এ আগুনে আমার সহ আরও ১৩-১৪ টি পরিবারের ঘর আগুনে পুড়ে যায়। অনেক চেষ্টা করেও আমরা আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি। পরে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ করে। 

প্রত্যক্ষদর্শী শামসুল বলেন, আগুনে যেসব মানুষগুলোর ঘর পুড়েছে তারা সবাই দিনমজুর। প্রত্যেকটা ঘরের কিছুই উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ঘরে থাকা চালডাল খাতা কলম, টাকা পয়সা সব আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। কয়েকটা গাবাদী পশুও অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর ভাবে আহত। এতে পরিবারগুলো সব হারিয়ে একদম নিঃস্ব হয়ে গেছে। 

আরেফিন আলম বলেন, আজকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে এই পরিবারগুলোর ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমি মনে করছি এটাই বুঝি এ জেলার সবচেয়ে বড় অগ্নিকান্ডের ঘটনা। একসঙ্গে এতগুলো ঘর আর কোথাও পুড়েনি। 

ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। এখানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ আসছেন। এখনো জানা যায়নি আগুনের সূত্রপাত কোথা থেকে হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাতের মোহম্মদ সামসুজ্জামান বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি মর্মান্তিক। সেখানে রাতেই ত্রান সামগ্রী ও প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্র পাঠানো হয়েছে। সেগুলো এতক্ষণে বিতরণও হয়েছে। এছাড়াও আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

;

ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কমিটির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে ৯টি ওয়ার্ডের নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব দানিউল হক মোল্লা।

তিনি জানান, বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় পৌর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে এ কমিটির নাম ঘোষণা করা হয়। পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভায় সভাপতিত্ব করেন পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক সেখ মো. আসাদ উদ্দিন পবলু।

এ সময় পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির অন্যতম সদস্য মো. হেলাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ও সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব আলহাজ্ব দানিউল হক মোল্লা, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য শহীদুল ইসলাম ফিলিপস, আহসানউল কবির দুলাল, মো. আবু মাসুদ মিয়া, গাজী মো. শাহাদত হোসেন ফিরোজী, মো. আতাউর রহমান খান বরাত, মো. আজগর আলী, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, মোঃ আব্দুস সামাদ সেখ, সেখ সুলতান মাহমুদ, মোছা. কল্পনা ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনে ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. মহসিন হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এম এ বাছেদ, ৩নং ওয়ার্ডের সভাপতি রবি কানু, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, ৪নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. আশরাফ আলী খান, সাধারণ সম্পাদক মো. আশরাফুল আলম ঝন্টু, ৫নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. ফজলুর রহমান ফজলু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম মুন্সি, ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. কলিম সরকার, সাধারণ সম্পাদক মো. মাহবুবুর রহমান, ৯নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. ঠান্ডু সেখ, সাধারণ সম্পাদক মো. হালিম সেখ, ১১নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. সামসুল আলম বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রাজ্জাক, ১২নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. আনদান মুক্তা, সাধারণ সম্পাদক মো. হান্নান এবং ১৪নং ওয়ার্ডের সভাপতি মো. আমজাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান।

;

হাড় কাঁপানো শীতে বিপর্যস্ত জনজীবন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নওগাঁ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মাঘ মাসের কনকনে শীতে কাবু হয়ে পড়েছে উত্তরের জেলা নওগাঁর মানুষ। গত কয়েকদিন থেকেই হিমেল হাওয়া ও কুয়াশায় থাকায় দেখা মেলেনি সূর্যের। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোদের দেখা পাওয়া গেলেও বিকেল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বইছে হিমেল বাতাস। তবে খানিকটা দিনের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলেও স্থানীয়রা শীত নিবারণে পরে থাকছে গরম কাপড়।

ফলে হাড় কাঁপানো কনকনে শীতে স্থবির হয়ে পড়েছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। শীতে ছিন্নমূল মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। পাশাপাশি কুয়াশা পড়ায় রাতে ও সকালে সড়কে যানবাহনগুলো লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। এছাড়া শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিনিয়ত হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে বয়স্ক ও শিশুরা। মূলত ডায়রিয়া আর শ্বাসকষ্টজনিত রোগে বেশি ভুগছেন তারা।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টায় নওগাঁর বদলগাছী আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৫ ডিগ্ৰী সেলসিয়াস।

গোস্তহাটির মোড়ে কাজের সন্ধানে আসা দিনমজুর বদশা মিয়া জানান, তীব্র শীতের কারণে ঘুম থেকে উঠতে দেরি হয়। দেরি গেলে আর কাজ পাওয়া যায় না। তখন না খেয়ে থাকতে হয়। সরকার যদি আমাদের একটু সহায়তা করত তা হলে ভালো হতো।

সদর উপজেলার শৈলগাছী গ্রামের আল মাসুদ জানান, বিকেল হতেই কনকনে বাতাস বইছে সেই সঙ্গে তীব্র ঠাণ্ডা শুরু হয়েছে। মোটা কাপড়েও ঠাণ্ডা মানছে না।

নওগাঁ শহরের ইজিবাইক চালক মামুন জানান, সকালে গাড়ি নিয়ে বসে আসি যাত্রী নাই। ঠাণ্ডার কারণে যাত্রী কমে গেছে। যাত্রী না হওয়ায় আয় কমে গেছে। ছেলেমেয়ে নিয়ে কষ্ট করে দিনযাপন করতে হচ্ছে।

বালুডাঙ্গা মোড়ে শীতে জুবুথুবু হয়ে রিকশায় বসে থাকা বৃদ্ধ আয়েজ উদ্দিন জানান, শীতে অনেক কষ্ট পাচ্ছি বাবা, কিন্তু কি করবো, পেট তো আর শীত বুঝে না? সংসারের তো চাহিদা পূরণ করতে হবে, ঘরে থাকলে তো আর পেট চলবে না।

;

আশুলিয়ায় আটক ৩ অপহরণকারী



উপজেলা করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম,সাভার
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারের আশুলিয়ায় অপহরণ করে মুক্তিপোন আদায়ের অভিযোগে তিন অপহরণকারীকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় অপহৃত যুবককে উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে বার্তা২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন-অর-রশিদ।

এর আগে বুধবার (১৯ জানুয়ারি) দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে আশুলিয়ার কুরগাঁও নতুনপাড়া থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ইকরাম (২৫) নামের আরও এক অপহরণকারী পালিয়ে যায়।

আটকরা হল- দিনাজপুর জেলার পাবর্তীনগর থানার মশথপুর গ্রামের মৃত কাজল হোসেনের ছেলে ইয়াছিন (১৯), কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার দিগারহাওলা গ্রামের রুবেল মিয়ার ছেলে অন্তর (২০) ও ঝিনাইদাহ জেলার কালিগঞ্জ থানার মইশা হাটা গ্রামের তোতা মিয়ার ছেলে শাহিন (১৯)। বর্তমানে তারা সবাই আশুলিয়ার কুরগাঁও এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো বলে জানা যায়।

অপহৃত যুবকের নাম মাকসুদুল হক (২১)। সে নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার দক্ষিণ সাদার চর গ্রামের আব্দুর রব এর ছেলে। সিঙ্গাপুর গমনের উদ্দেশ্যে বর্তমানে সে আশুলিয়ার গৌরিপুর এলাকার সিবিটি সিঙ্গাপুর ট্রেনিং সেন্টারে ট্রেনিং করছেন।

অপহৃত যুবকের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে  মাকসুদুল তার বন্ধুকে গ্রামের বাড়ি খুলনায় যাওয়ার জন্য গাড়িতে উঠিয়ে দিতে নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে আসেন। পরে তাকে একটি গাড়িতে উঠিয়ে দিয়ে ট্রেনিং সেন্টারের দিকে ফিরে যেতে থাকেন। এমন সময় ফুটওভার ব্রিজ পারি দিয়ে সেনাশপিং কমপ্লেক্স এর সামনে নামলে একটি রিকশা পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে তার উপর উঠিয়ে দেয়। এতে সে আহত হলে তাকে চিকিৎসার কথা বলে অপহরণ করে কুরগাও এলাকার মাতৃছাড়া স্কুলে নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। পরে তার নিকটে থাকা নগদ ১৫শ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে মোবাইলের বিকাশ বা রকেটের পিন নাম্বার জানতে চায়। পিন নাম্বার না বলায় তাকে বেধর মারপিট করে ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়। 

এরপরে তার পরিবারকে ফোনকে মুক্তিপোন হিসেবে ২০ হাজার টাকা দাবি করে। পরে তার বোন বিকাশের মাধ্যমে ৪ হাজার ৫শ টাকা পাঠায়। এ খবর শুনে তার বন্ধু জরুরী সেবার নাম্বার ৯৯৯ এ ফোন করে। ফোন পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অপহৃত যুবককে উদ্ধার করে। এ ঘটনার সাথে জড়িত তিন অপরহণকারীকে আটক করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে একজন পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন-অর-রশিদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, জরুরী সেবার নাম্বার (৯৯৯) থেকে কল পেয়ে বিকাশ লেনদেনের সূত্রধরে আশুলিয়ার কুরগাঁও এলাকা থেকে অপহৃত যুবককে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে একজন পালিয়ে যায়।

এ সময় তিনি আরও বলেন, আটকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুপুরে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হবে।

;