এসিআরের পরিবর্তে হচ্ছে এপিএআর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
এসিআরের পরিবর্তে হচ্ছে এপিএআর

এসিআরের পরিবর্তে হচ্ছে এপিএআর

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি কর্মকর্তাদের বাৎসরিক গোপন প্রতিবেদনে (অ্যানুয়াল কনফিডেনশিয়াল রিপোর্ট বা এসিআর) আসছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। স্বচ্ছ, আধুনিক, প্রযুক্তিভিত্তিক, ব্যক্তিগত ও সাংগঠনিক কর্মতৎপরতা ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়ক বহুমুখী কর্মমূল্যায়ন ব্যবস্থা হচ্ছে।

মঙ্গলবার সরকারি কর্মকর্তাদের বার্ষিক কর্মকৃতি মূল্যায়নে অ্যানুয়াল পারফরম্যান্স অ্যাপ্রাইজাল রিপোর্ট-এপিএআর সংক্রান্ত একটি খসড়া প্রকাশ করেছে সরকার। এরইমধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে অংশীজনের মতামত প্রদানের জন্য এই অনুশাসনমালার খসড়াটি প্রকাশ করা হয়েছে।

এটি অনুমোদন হলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বার্ষিক গোপন প্রতিবেদনের (এসিআর) পরিবর্তে এটি ব্যবহৃত হবে। নবম থেকে দ্বিতীয় গ্রেড পর্যন্ত সব সরকারি কর্মকর্তার বার্ষিক কর্মকৃতি মূল্যায়ন হবে এপিএআরের মাধ্যমে। এপিএআরের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এটি প্রণয়ন করা হয়েছে। এপিএআর একটি অনলাইন সফটওয়্যারের মাধ্যমে পরিচালিত হবে।

জানা যায়, বর্তমান এসিআরের পুরোটাই ব্যক্তিগত ও পেশাগত বৈশিষ্ট্যের মূল্যায়ন হয়। যেমন- ব্যক্তিত্ব, সময়ানুবর্তিতা, সততা ইত্যাদির মতো ২৫টি মানদণ্ড আছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্মচারী বছরব্যাপী কী কাজ করেছেন, করলে ঠিকমতো করেছেন কিনা সেটার মূল্যায়ন নেই। অর্থাৎ বিদ্যমান এসিআরের ১০০ নম্বরের পুরোটাই বৈশিষ্ট্যনির্ভর। কিন্তু এপিএআরে কর্মচারীর ব্যক্তিগত বৈশিষ্ট্যের নম্বর থাকবে ৪০। আর বছরব্যাপী কাজের মূল্যায়নের নম্বর হবে ৬০।

খসড়া অনুযায়ী, এপিএআর হবে সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক। প্রত্যেক সরকারি কর্মচারীর জন্য একটি করে অনলাইন অ্যাকাউন্ট হবে। এতে চাকরিতে ঢোকার প্রথম দিন থেকে শেষ দিনের প্রয়োজনীয় তথ্য থাকবে। অ্যাকাউন্টে কর্মচারীরর স্বাস্থ্য পরিস্থিতির আপডেট থাকবে, কে কতবার বিদেশ সফরে গেছেন, কোন কোন দেশে গেছেন এসব তথ্য থাকবে। পরবর্তী সময়ে ওইসব দেশ সম্পর্কিত কাজের জন্য সহজেই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের খুঁজে পাবে সরকার। একইসঙ্গে তথ্য গোপন ও অন্যদের বঞ্চিত করে বারবার বিদেশ সফরে যেতে পারবে না কেউ।

বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে কুপিয়ে হত্যা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
পীরগাছা থানা

পীরগাছা থানা

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের পীরগাছায় দেলোয়ার হোসেন (৩৫) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার (২৮ মে) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র। এর আগে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার কুড়ারপার ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দেলোয়ার হোসেন পীরগাছা সদর ইউনিয়নের কসাইটারী গ্রামের ছফুর উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সন্ধ্যার পর স্থানীয় বাজার থেকে বাড়িতে যান দেলোয়ার হোসেন। রাত ১১টার দিকে প্রতিবেশী ফারুক নামে এক যুবক তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তারা কুড়ারপার ব্রিজ এলাকায় রেল লাইনের কাছে পৌঁছালে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা দেলোয়ারকে কোপাতে থাকেন। এ সময় দেলোয়ারের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

পরে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রাতেই প্রতিবেশী সবুজ নামে এক যুবকসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র বলেন, দেলোয়ার নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বর্তমানে তার মরদেহ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

;

সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক

সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে একটি বাসায় ১১ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় জুথি খাতুন নামে এক গৃহবধূকে আটক করেছে পুলিশ।

লিপি খাতুন কুড়িগ্রাম জেলার কচাকাটা উপজেলার পূর্বকেদার গ্রামের বাচ্চু মিয়া ও আমিনা খাতুন দম্পতির মেয়ে।

শুক্রবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মধ্যপাড়া গ্রামে এঘটনা ঘটে। আটক জুথি খাতুন সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মধ্যপাড়া গ্রামের তারেক গোলামের স্ত্রী।

শনিবার (২৮ মে) সিরাজগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তদন্ত মো. সাজ্জাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃত হযরত আলীর ছেলে মো. আলি আজাহারের বাড়িতে লিপি খাতুন গত তিন বছর যাবৎ কাজ করে। প্রত্যেক দিন শিশুটিকে নির্যাতন করে গৃহবধূ জুথি খাতুন। যে কাজ বয়স্ক মানুষকে দিয়ে করানো উচিত, তা চাপিয়ে দেওয়া হতো লিপির ওপর।

এলাকাবাসী শুক্রবার এঘটনাটি পুলিশকে অবগত করলে পুলিশ এসে লিপিকে উদ্ধার করে।

লিপি জানান, বিভিন্ন সময়ে লাঠি, গরম ইস্ত্রি দিয়ে ছ্যাকা ও কিল ঘুষি মারতো। আমি কাউকে কিছুই বলতে পারি না। কাউকে কিছু বললে আমাকে নানা ভাবে মেরে ফেলার হুমকি দিতো খালাম্মা।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকে পুলিশ উদ্ধার করেছে। শুক্রবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার দেওয়া হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে নির্যাতনের চিহ্ন পাওয়া গেছে। নির্যাতিত শিশুটির পরিবার থানায় অভিযোগ করেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে গৃহবধূর নামে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। সেই মামলায় জুথি খাতুনকে আটক করা হয়েছে।

;

বগুড়ায় তাঁত বস্ত্র মেলায় চলছে লটারির নামে জুয়া!



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ায় মাসব্যাপী তাঁত বস্ত্র, কুটির শিল্প ও পণ্য মেলায় লটারির নামে চলছে জুয়া খেলা। মোটরসাইকেলসহ আকর্ষণীয় বিভিন্ন পণ্য লটারিতে পুরস্কার ঘোষণা করায় প্রতিদিন শহর ছাড়াও গ্রাম গঞ্জে লটারির টিকেট বিক্রি করে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লাখ লাখ টাকা। প্রকাশ্যে এসব অবৈধ লটারির টিকেট বিক্রি হলেও প্রশাসনের ভূমিকা রহস্যজনক।

গত সোমবার (২৩ মে) বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল মাঠে বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন, বগুড়া কালেক্টরেট কল্যাণ সমবায় সমিতি লিমিটেড ও বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী পরিষদ জেলা প্রশাসক কার্যালয় বগুড়ার আয়োজনে মাসব্যাপী এই মেলা শুরু হয়।

মেলা উদ্বোধনের পরদিন থেকেই শুরু হয় লটারির টিকেট বিক্রি। মেলার গেট ছাড়াও শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে চেয়ার টেবিল বসিয়ে মেলার আয়োজক কমিটির লোকজন ২০ টাকা মূল্যের লটারির টিকেট বিক্রি করে আসছেন সকাল থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।

এছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ে অটোরিকশা যোগে ঘুরে ঘুরে লটারির টিকেট বিক্রি করা হচ্ছে। সারাদিন টিকেট বিক্রি শেষে রাত সাড়ে ১০টায় মেলা চত্বরে লটারি অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিদিন মোটরসাইকেল,ফ্রিজসহ আকর্ষণীয় পুরস্কার ঘোষণা করায় নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকজন টিকেট কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। রিকশা চালক ছাড়াও দিনমজুর শ্রেণির লোকজন যা আয় করছেন সেই টাকায় বাড়ির বাজার না করে লটারির টিকেট কিনে বাড়ি ফিরছেন। আবার অনেকেই মোটরসাইকেল পুরস্কার পাওয়ার আশায় প্রতিদিন অসংখ্য টিকেট কিনেও মোটরসাইকেল পাচ্ছেন না।

বগুড়া বারের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুল লতিফ পশারী বলেন, আকর্ষণীয় পুরস্কারের ফাঁদে ফেলে লটারির নামে জুয়া চলছে বগুড়ায়। অথচ বগুড়ার সুশীল সমাজ নিরব।

তিনি বলেন, জেলা প্রশাসনের কর্মচারীদের আয়োজনে চলা মেলায় জুয়া চালানোর দায় জেলা প্রশাসন এড়াতে পারেন না। এভাবে প্রতিদিন লটারি চলতে থাকলে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে সাধারণ মানুষ নিঃস্ব হয়ে বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়বে।

মেলার নামে লটারি প্রসঙ্গে বগুড়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান সফিক বলেন, আকর্ষণীয় পুরস্কারের প্রলোভন দিয়ে লটারির নামে জুয়া চলতে থাকলে সামাজিক অস্থিরতা বেড়ে যাবে। নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকজন নিঃস্ব হয়ে পড়লে চুরি ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধ বেড়ে যাবে।

বগুড়ার পুলিশ সুপার সুদীপ চক্রবর্তী বলেন, জেলা প্রশাসনের কর্মচারীদের আয়োজনে চলমান মেলায় লটারির বিষয়টি নজরে এসেছে। এবিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

;

৩০ মে হচ্ছে না ঢাকা-দিল্লি বৈঠক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ‘যৌথ কনসালটেটিভ কমিশন’ (জেসিসি) বৈঠক আগামী ৩০ মে হচ্ছে না।

শনিবার (২৮ মে) আসামে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর সাক্ষাতে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আরও সময় নিয়ে বৈঠকের প্রস্তুতি নিতে চায় দুই দেশ। তবে, শিগগিরই নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন।

;