রাজশাহীতে বিপন্ন নির্মাণ শ্রমিকের জীবন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

এক দশক ধরে রাজশাহী শহরে পাল্লা দিয়ে হচ্ছে উঁচু উঁচু ভবন। বেশিরভাগ ভবন নির্মাণের সময়ই শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে না। ফলে বিপন্ন হয়ে উঠেছে শ্রমিকের জীবন। রাজশাহীতে মাঝে মাঝেই নির্মাণাধীন বহুতল ভবন থেকে পড়ে প্রাণ যাচ্ছে শ্রমিকের।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ব্যক্তিমালিকানাধীন কিংবা সরকারি ভবন- কোনটির ক্ষেত্রেই শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে না। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর কিংবা রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ) এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ফলে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে। শ্রমিক নিহত হচ্ছেন, কিন্তু মালিকপক্ষ আইনের আওতায় আসছেন না।

গত ১৯ ডিসেম্বর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ভেতর নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ থেকে মাথায় ইট পড়ে নাজিম উদ্দিন নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। গণপূর্ত বিভাগ ঠিকাদারের মাধ্যমে এ ভবন নির্মাণ করছে। দুর্ঘটনার দিন হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেছিলেন, নির্মাণকাজে সকল প্রকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলা হলেও ঠিকাদারের লোকজন তা শোনেন নি।

গত ৮ জানুয়ারি আলেক নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি)। রাবি অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তন সংস্কার কাজের সময় ছাদ থেকে পড়ে তাঁর মৃত্যু হয়। এর আগে সম্প্রতি নগরীর দড়িখড়বোনা এলাকায় নির্মাণাধীন একটি পাঁচতলা ভবন থেকে পড়ে পবা উপজেলার এক নির্মাণ শ্রমিক আহত হন। এর কয়দিন পর এ ভবনটির পাশেরই আরেকটি পাঁচতলা নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে আরেক নির্মাণ শ্রমিক আহত হন। শহরে এখন অসংখ্য ভবনের নির্মাণ কাজ চলছে নিরাপত্তা বেষ্টনি ছাড়াই। চরম ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন শ্রমিকেরা।

দেশের আইন অনুযায়ী, কর্মক্ষেত্রে কোন শ্রমিক দুর্ঘটনায় মারা গেলে আড়াই লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে মালিকপক্ষকে। জাতীয় বিল্ডিং কোড অনুযায়ী, কাজের সময় শ্রমিকের মাথায় হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক। কংক্রিটের কাজের শ্রমিকদের হাতে গ্লাভস ও চোখের জন্য ক্ষতিকর কাজ হলে শ্রমিকদের চশমা ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। ভবনের ওপরে কাজ করার সময় শ্রমিকের নিরাপত্তায় বেল্ট ব্যবহারও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

তবে ইমরাত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন বাংলাদেশের (ইনসাব) জেলা কমিটির কার্যকরী সভাপতি আজিজুল হক বাঙালী বলেন, ‘রাজশাহীতে শ্রমিকদের নিরাপত্তার অভাব খুব বেশি। বহুতল ভবনে মালিকেরা জোরপূর্বক কাজ করাচ্ছে নিরাপত্তা ছাড়াই। সাব- কন্ট্রাক্টরের সাথে মালিকপক্ষ চুক্তিই করে নিচ্ছে যে, নিরাপত্তা ছাড়াই খরচ কমিয়ে কাজ করতে হবে। দুর্ঘটনা ঘটলে মালিকের কোন দায় নেই। আমরা ভবনগুলোর নিরাপত্তা বেষ্টনি চাই’। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

জানতে চাইলে আরডিএ’র অথরাইজড অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমরা নকশা অনুমোদন দেওয়ার সময় বলেই দেই যে ভবন নির্মাণের সময় শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। সাইটের প্রকৌশলীকেও বিষয়টা মনে করিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু কেউ যদি নিরাপত্তা বেষ্টনী নিশ্চিত না করে তাহলে আমাদের ব্যবস্থা নেওয়ার কোন আইনগত বিধান নেই। এ ক্ষেত্রে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন বিভাগ ব্যবস্থা নিতে পারে।’

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের শ্রম পরিদর্শক (সেফটি) হারুন-অর-রশীদ বলেন, ‘সম্প্রতি আমরা আলাদা একটা কাজ নিয়ে খুব ব্যস্ত আছি। ভবনের নিরাপত্তার বিষয়টা এখন দেখা হচ্ছে না। তবে কোথাও শ্রমিকের মৃত্যুর খবর পেলে আমরা তদন্ত করি। ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেই।

দীর্ঘসূত্রিতা অপচয় ও দুর্নীতির সুযোগ সৃষ্টি করে: প্রাথমিক প্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেছেন, উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলা বাংলাদেশকে নতুন গন্তব্যে নিয়ে যেতে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের সঠিক পরিকলন্পনা গ্রহণ ও যথাসময়ে এর বাস্তবায়নে জোর দিতে হবে। দীর্ঘসূত্রিতা উন্নয়নের অন্তরায়; এটি অপচয় ও দুর্নীতির সুযোগ সৃষ্টি করে। 

তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে পাশাপাশি দেশপ্রেম, সততা ও কর্তব্যনিষ্ঠার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে; তবেই দেশের জন্য আমাদের পূর্বসূরীদের জীবন বিসর্জন দেয়া স্বার্থক হবে।

রোববার সকালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণলায়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদক চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি।

সিনিয়র সচিব আমিনুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ২০২২-২৩ অর্থ বছরে মন্ত্রণালয়ের সাথে এপিএ চুক্তি স্বাক্ষর করেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মুহিবুর রহমান, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মহাপরিচালক আতাউর রহমান, জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমির মহাপরিচালক মো. শাহ আলম ও শিশু কল্যাণ ট্রাস্টের পরিচালক আবুল বাশার।

অনুষ্ঠানে ২০২১-২২ অর্থবছরে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে শুদ্ধাচার পুরস্কার বিজয়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পুরস্কার প্রদান করা হয়।

;

দেশ টিভিকে পূর্ণতা দিতে জন্মদিনে প্রত্যয়দীপ্ত আরিফ হাসান



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
দেশ টিভিকে পূর্ণতা দিতে জন্মদিনে প্রত্যয়দীপ্ত আরিফ হাসান

দেশ টিভিকে পূর্ণতা দিতে জন্মদিনে প্রত্যয়দীপ্ত আরিফ হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

১৪ বছরে পদার্পনকারী দেশ টেলিভিশনকে নতুন করে সাজানো শুরু হয়েছে। প্রতিনিয়ত নতুন নতুন মাত্রা যুক্ত হচ্ছে এই টেলিভিশনে। সর্বশেষ পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে ঘিরে মাসব্যাপি নানা আয়োজন, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে ব্যতিক্রমধর্মী বিভিন্ন আয়োজন দর্শক-শ্রোতারা প্রত্যক্ষ করেছেন। সাম্প্রতিক ঘটনা নিয়ে বিশেষ আলোচনা ছাড়াও বিভিন্নমুখি উদ্যোগে নতুন নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে এই টেলিভিশনে। দেশ টিভিকে আরো গুছিয়ে ও পরিপূর্ণ করে তুলতে পর্যাপ্ত জনবল নিয়োগের জন্য সম্প্রতি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে । বার্তা বিভাগসহ সব বিভাগে দেশ টিভি তারুণ্যের মেধাকে সঙ্গে নিয়ে আরো এগোতে চায় সামনে দিকে।

২৭ জুন (সোমবার) দেশ টেলিভিশন লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ হাসানের শুভ জন্ম দিন। এই জন্মদিন উপলক্ষে দেশ টিভি নিয়ে তাঁর প্রত্যয় আরো দীপ্ত ও দীপ্র। তিনি বলেন, ২০০৯ সালের ২৬ মার্চ দেশ টিভির যাত্রা শুরু হয়েছিল। ওই দিনে মহান স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। দেশ টিভি গত ২৬ মার্চ ১৪ তম বর্ষে পদার্পণ করেছে। এই অতিক্রান্ত সময়ে বছর, ঘণ্টা, মিনিট, সেকেন্ড হিসাব করলে অনেক সময়। প্রতি সেকেন্ড যেন দর্শকের মন জয় করতে পারে, সে চ্যালেঞ্জ থাকে টেলিভিশনের। দেশ টিভিও সেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে পথ চলছে। তার মতে, প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের এই সময়েও টেলিভিশন কেবল তার অবস্থান ধরেই রাখেনি বরং দিন দিন সম্প্রসারিত হয়েছে এর আবেদন। এই মাধ্যমকে ঘিরে সৃষ্টি হয়েছে সৃজনশীল, শিক্ষিত ও প্রশিক্ষিত অসংখ্য মানুষের কর্মসংস্থান। উদীয়মান অর্থনীতি ও শিল্পায়নের এই সময়ে পণ্যের পরিচিতি ও ব্র্যান্ড তৈরিতে টেলিভিশন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

দেশ টিভিকে নতুন করে সাজানোর বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আরিফ হাসান বলেন, গণমাধ্যম জাতির বিবেক, সমাজের দর্পণ। দেশের সংস্কৃতি ও চরিত্রের ধারক, পরিচায়ক ও মুখপাত্র হিসেবে কাজ করে টেলিভিশন চ্যানেল। দেশ টিভি শুরু থেকেই মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রেখে বিভিন্ন অনুষ্ঠান নির্মাণ ও প্রচার করে আসছে। গণমানুষের বঞ্চনা ও চাওয়া-পাওয়ার কথা তুলে ধরে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় দেশ টিভি সব সময় সচেষ্ট। সে প্রচেষ্টা আরও ত্বরান্বিত করতে চায় এই চ্যানেল। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন, নির্মল বিনোদন ও শিক্ষামুলক অনুষ্ঠান প্রচারে দেশ টিভি তার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। সকল বিভাগে নতুন জনবল নিয়োগের বিষয়ে তিনি বলেন, দেশ টিভি পথ চলা শুরু করেছে ১৩ বছর আগে। পথ চলতে চলতে , চলার অভিজ্ঞতা থেকে নতুন পরিকল্পনা চলে আসে। পূর্ণতার শেষ নেই, পরিকল্পনার শেষ নেই। নতুনভাবে পথ চলার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতেই আমি আরো জনবল নিয়োগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর থেকেই ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি আমরা। যোগ্য ও মেধাবীদের যুক্ত করতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সুসম্পন্ন করা হবে।

জন্মদিনে নতুন প্রত্যয় ও আশা ব্যক্ত করে আরিফ হাসান বলেন, আমি দর্শক-শ্রোতাদের বলবো-দেশের সঙ্গে থাকুন, দেশকে এগিয়ে রাখুন।

পাকিস্তানি হায়েনার কাছে বন্দি হওয়ার আগে একাত্তরের ২৬ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। বাঙালি জাতির স্বাধীন ভূখণ্ডে যাত্রা শুরুর এমন মহান দিনটিতেই নিজের যাত্রাও শুরু করেছিল দেশ টিভি। প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই তাই দেশ টিভি তার প্রতিটি আয়োজনে, সম্প্রচারে, বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করে চলেছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, সেই আলোকেই প্রণীত হয়েছে দেশ টিভির প্রতিটি অনুষ্ঠান। বাউল সংহতি থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথ, নজরুলসহ পঞ্চকবির গান, ঐতিহ্যের পুতুল নাচ, যাত্রা, কবির গান-পালা বা কিংবদন্তিদের শ্রদ্ধা জানিয়ে ট্রিবিউট টু  লিজেন্ড ও কনসার্ট ফর বাংলাদেশ- সংস্কৃতির সব আঙিনা থেকেই বাঙালির প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে চেয়েছে দেশ টিভি। সরাসরি সম্প্রচারিত কল-এর গান বা প্রিয়জনের গান জনপ্রিয়তা পেয়ে চলেছে বছরের পর বছর।

২০১১তে দেশব্যাপী আলোচিত ছিল দেশ টেলিভিশনের ‘কে হতে চায় কোটিপতি’র আয়োজন। এবার দেশ টিভি প্রবেশ করতে চায়, জনগণের কাছে তথ্য সেবার আরো প্রসারিত দরজা নিয়ে, পুরো দায়বদ্ধতায়। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের ফলে টেলিভিশন সম্প্রচারে নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তির সেই অগ্রযাত্রায় দেশ টিভি আরো গোছানো হচ্ছে বলে জানান দেশ টেলিভিশন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ হাসান।

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন, নির্মল বিনোদন ও শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান প্রচারে দেশ টিভি তার প্রয়াস চালিয়ে যাবে বলে তিনি প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

;

বন্যায় ৭ কোটি টাকার বেশি নগদ বরাদ্দ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সাম্প্রতিক বন্যায় তাৎক্ষণিকভাবে মানবিক সহায়তা হিসেবে ১৪টি জেলায় জেলা প্রশাসকগণের অনুকূলে ১ এপ্রিল থেকে ২৬ জুন পর্যন্ত ৭ কোটি ১১ লাখ নগদ টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছে।

এছাড়াও ৫ হাজার ৮২০ মেট্রিক টন চাল, এক লাখ ২৩ হাজার ২০০ প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, শিশু খাদ্য ক্রয় বাবদ ৪০ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য ক্রয় বাবদ ৪০ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে।

বরাদ্দকৃত জেলাসমূহের মধ্যে সিলেট জেলায় ২ হাজার মেট্রিক টন চাল, ২ কোটি ১৫ লাখ নগদ টাকা, ৪৩ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, শিশু-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলায় ১ হাজার ৩২০ মেট্রিক টন চাল, ২ কোটি ৮ লাখ নগদ টাকা, ৩৮ হাজার শুকনো ও অন্যান্য খাবারের প্যাকেট/বস্তা,শিশু-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা, নেত্রকোনা জেলায় ৪০০ মেট্রিক টন চাল,৮০ লাখ নগদ টাকা, ৯ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, শিশু-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

রংপুর জেলায় ৩ হাজার ৫০০ প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, নীলফামারী জেলায় ৫ লাখ নগদ টাকা এবং ৩ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, কুড়িগ্রাম জেলায় ২০০ মেট্রিক টন চাল, ৩০ লাখ নগদ টাকা এবং ১ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, হবিগঞ্জ জেলায় ১০০ মেট্রিক টন চাল, ৩০ লাখ নগদ টাকা এবং ৪ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, মৌলভীবাজার জেলায় ৩০০ মেট্রিক টন চাল, ৬২ লাখ ৫০ হাজার নগদ টাকা,২ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, শিশু-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য ক্রয় বাবদ ১০ লাখ টাকা, শেরপুর জেলায় ১৫০ মেট্রিক টন চাল, ১১ লাখ নগদ টাকা এবং ৪ প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, জামালপুর জেলায় ৩০০ মেট্রিক টন চাল, ২২ লাখ নগদ টাকা এবং ৮ প্যাকেট/ স্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, কিশোরগঞ্জ জেলায় ১০০ মেট্রিক টন চাল, ১০ লাখ নগদ টাকা এবং ৪ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ৪০০ মেট্রিক টন চাল, ১১ লাখ ৫০ হাজার নগদ টাকা এবং ২ হাজার প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

লালমনিরহাট জেলায় ৩৫০ মেট্রিক টন চাল এবং ৯ লাখ নগদ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কুমিল্লা জেলায় ২০০ মেট্রিক টন চাল, ১৭ লাখ নগদ টাকা এবং ১ হাজার ৭০০ প্যাকেট/বস্তা শুকনো ও অন্যান্য খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

;

সোনাইমুড়ীতে আ.লীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৯



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
সোনাইমুড়ীতে আ.লীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষ

সোনাইমুড়ীতে আ.লীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষ

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৯ জন আহত হয়েছেন।

রোববার (২৬ জুন) বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার চাষীরহাট ইউনিয়নের পোরকরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- রবিউল হাসান (২৭), ইয়াছিন আরাফাত বাদশা (২৬),সাব্বির (১৮),রাকিব (২০),শামিম (২০)সাইফুল (২৪), মোখলেছ (২৬) সহ ৯ জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকেলে ব্যালটের মাধ্যমে চাষীরহাট ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলন চলছিল। এ সময় ওই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদপ্রার্থী মহসিন মেম্বারের অনুসারীদের সাথে আরেক সভাপতি পদপ্রার্থী মুনাফের অনুসারীদের ব্যালট নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয় প্রার্থীর অনুসারীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়। এতে উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয় এবং চেয়ার-টেবিল ভাঙচুর করে হামলাকারীরা। খবর পেয়ে সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে জানতে উভয় প্রার্থীর মোবাইল ফোনে কল করা হলেও তারা ফোন রিসিভ করেন নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) হারুন অর রশিদ জানান, ব্যালটের মাধ্যমে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলন চলছিল। ওই সময় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ সংঘর্ষে জড়ায়। এতে উভয় পক্ষের ৩-৪ জন আহত হয়। তবে এ ঘটনায় এখনও কোনো পক্ষ থানায় লিখিত কোন অভিযোগ দায়ের করেনি।

;