নিরাপত্তার জন্য সিলিন্ডার বাড়ির বাহিরে স্থাপন নিরাপদ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,খাগড়াছড়ি
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জীবনযাপনে গ্যাস ছাড়া একদিনও কল্পনা করা যায় না। আমাদের রান্না করে খাওয়ার পুরোটাই নির্ভর করে এই গ্যাসের ওপর। খাগড়াছড়ি শহরের নয়নপুর এলাকার এক চারতলা বাড়ির আট ফ্ল্যাটের রান্না ঘরের জানালার বাহিরে গ্যাস সিলিন্ডার স্থাপন করেছে।

নয়নপুর বাসিরা বলেন, পাহাড়ে গ্যাস সরবরাহের জন্য পাইপলাইন নেই। ব্যবহৃত হয় গ্যাস সিলিন্ডার। বাড়ির মালিক ভাড়াটিয়াসহ সকলের জন্য গ্যাস জ্বালানীর সিলিন্ডার বাহিরে স্থাপন করা হয়েছে।  প্রতিটি বাড়িতে এই পদ্ধতিতে সিলিন্ডার বাহিরে স্থান করা প্রয়োজন।

বাড়ির মালিক মো. বেলাল হোসেন বলেন, সারাদেশে গ্যাস সিলিন্ডারের দুর্ঘটনা ঘটে। তাই মানুষের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে গ্যাস সিলিন্ডার চার তলার বাড়ির  রান্না ঘরের জানালার বাহিরে গ্যাস সিলিন্ডার স্থাপন করা হয়েছে। নিজের নিরাপত্তার জন্য এই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।


বাড়ির ভাটিয়া গৃহবধূ নারগিছ আক্তার বলেন, বাসা-বাড়ির নিত্য প্রয়োজনীয় রান্নাসহ সকল কাজে ব্যবহার করতে হয় গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে। গ্যাস সিলিন্ডার বাহিরে থাকায় আমাদের নিরাপদ। সব বাসা-বাড়িতে নেই। আমাদের বাড়ির মালিক করেছেন। নতুন বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার বাহিরে দেওয়া উচিৎ কারণ বাড়ির নারীরা নিরাপদে রান্নাসহ সকল কাজ নিরাপদে থাকবে।

৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নয়নপুর বাসিন্দা মো. রাশেদ বলেন, ওনি নিরাপত্তার জন্য গ্যাসের বোতল বাহিরে স্থাপন করেছেন। খুবই ভালো কাজ। মানুষ দেখে যেন শিখনীয় বিষয় হয়। ভবিস্যতে যাতে পৌরসভা কর্তৃক একটা সিস্টেম রাখা হয়। ওনার উদোগ্যকে সাধুবাদ জানায়।

খাগড়াছড়ি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক সাকারিয়া হায়দার বলেন, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ফায়ার নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এই ধরনের বাসা-বাড়িতে বাহিরে গ্যাস সিলিন্ডার স্থাপন করে ব্যবহার করা আইনে আছে কি না জানা নেই। ফায়ার সেফটি অনুয়ায়ী গ্রহণ করতে হবে ।

খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র নির্মলেন্দু চৌধুরী বলেন, গ্যাস সিলিন্ডার বাড়ির বাহিরে স্থাপন নিরাপদ। গ্যাস সিলিন্ডার বাড়ির ভেতর রাখলে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটে মানুষের মৃত্যু হতে পারে। কোন দুর্ঘটনা ঘটলে গ্যাস বাহিরে বের হয়ে যাবে। সিলিন্ডার বিস্ফোরন থেকে মানুষ রক্ষা পাবে।

সর্বস্তরের শ্রদ্ধার জন্য আবদুল গাফফার চৌধুরীর মরদেহ শহীদ মিনারে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য বিশিষ্ট সাংবাদিক, গীতিকার, কলামিস্ট ও সাহিত্যিক আবদুল গাফফার চৌধুরীর মরদেহ নেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে।

শনিবার (২৮ মে) দুপুর ১টায় বরেণ্য এই সাংবাদিকের মরদেহ আনা হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। পরে দুপুর ১টা ১৩ মিনিটে তার মরদেহে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদে আবদুল গাফফার চৌধুরীর জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল ৪টার দিকে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মরদেহ জাতীয় প্রেসক্লাবে নিয়ে যাওয়া হবে।

এরপর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানের উদ্দেশে আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরীর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে। পরে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তাকে সমাহিত করা হবে।

এদিকে, আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরীর দাফনকাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য সরকারের বিভিন্ন দফতর ও সংস্থার সঙ্গে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও জাতীয় প্রেসক্লাব সার্বিক সহযোগিতা করছে।

এর আগে শনিবার (২৮ মে) বেলা ১১টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় আবদুল গাফফার চৌধুরীর মরদেহ।

মহান একুশের অমর সংগীতের রচয়িতা আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী গত ১৯ মে লন্ডনের বার্নেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর। পরিবারের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, তিনি বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন।

;

বগুড়ায় গর্তের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার শেরপুরে গর্তের পানিতে পড়ে আব্দুল্লাহ হোসেন (৩) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (২৮ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় শেরপুর উপজেলার ভাটরা উত্তর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আব্দুল্লাহ খানপুর ইউনিয়নের ভাটরা উত্তর পাড়া গ্রামের ভ্যানচালক আলমগীর হোসেনের ছেলে।

আব্দুল্লাহর মা খাদিজা খাতুন জানান, আব্দুল্লাহর বাবা সকালে খাওয়া দাওয়া শেষ করে ভ্যান নিয়ে বাইরে চলে যায় । আমি বাড়ির ভিতরে কাজ করছিলাম। আব্দুল্লাহ বাড়ির পাশে খেলাধুলা করছিল। দীর্ঘ সময় আব্দুল্লাহকে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে বাড়ির পাশে গর্তের পানিতে তার জুতা ভাসতে দেখা যায়। পরে গর্তের পানি থেকে আব্দুল্লাহর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

শেরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুস সালাম জানান, পরিবারের অভিযোগ না থাকায় মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে।

;

বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে কুপিয়ে হত্যা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
পীরগাছা থানা

পীরগাছা থানা

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের পীরগাছায় দেলোয়ার হোসেন (৩৫) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার (২৮ মে) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র। এর আগে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার কুড়ারপার ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দেলোয়ার হোসেন পীরগাছা সদর ইউনিয়নের কসাইটারী গ্রামের ছফুর উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সন্ধ্যার পর স্থানীয় বাজার থেকে বাড়িতে যান দেলোয়ার হোসেন। রাত ১১টার দিকে প্রতিবেশী ফারুক নামে এক যুবক তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তারা কুড়ারপার ব্রিজ এলাকায় রেল লাইনের কাছে পৌঁছালে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা দেলোয়ারকে কোপাতে থাকেন। এ সময় দেলোয়ারের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

পরে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রাতেই প্রতিবেশী সবুজ নামে এক যুবকসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র বলেন, দেলোয়ার নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বর্তমানে তার মরদেহ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

;

সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক

সিরাজগঞ্জে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধূ আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে একটি বাসায় ১১ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় জুথি খাতুন নামে এক গৃহবধূকে আটক করেছে পুলিশ।

লিপি খাতুন কুড়িগ্রাম জেলার কচাকাটা উপজেলার পূর্বকেদার গ্রামের বাচ্চু মিয়া ও আমিনা খাতুন দম্পতির মেয়ে।

শুক্রবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মধ্যপাড়া গ্রামে এঘটনা ঘটে। আটক জুথি খাতুন সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মধ্যপাড়া গ্রামের তারেক গোলামের স্ত্রী।

শনিবার (২৮ মে) সিরাজগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তদন্ত মো. সাজ্জাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃত হযরত আলীর ছেলে মো. আলি আজাহারের বাড়িতে লিপি খাতুন গত তিন বছর যাবৎ কাজ করে। প্রত্যেক দিন শিশুটিকে নির্যাতন করে গৃহবধূ জুথি খাতুন। যে কাজ বয়স্ক মানুষকে দিয়ে করানো উচিত, তা চাপিয়ে দেওয়া হতো লিপির ওপর।

এলাকাবাসী শুক্রবার এঘটনাটি পুলিশকে অবগত করলে পুলিশ এসে লিপিকে উদ্ধার করে।

লিপি জানান, বিভিন্ন সময়ে লাঠি, গরম ইস্ত্রি দিয়ে ছ্যাকা ও কিল ঘুষি মারতো। আমি কাউকে কিছুই বলতে পারি না। কাউকে কিছু বললে আমাকে নানা ভাবে মেরে ফেলার হুমকি দিতো খালাম্মা।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকে পুলিশ উদ্ধার করেছে। শুক্রবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার দেওয়া হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে নির্যাতনের চিহ্ন পাওয়া গেছে। নির্যাতিত শিশুটির পরিবার থানায় অভিযোগ করেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে গৃহবধূর নামে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। সেই মামলায় জুথি খাতুনকে আটক করা হয়েছে।

;