বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের অর্থের হিসাব নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সর্বনাশ করতে বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের বিপুল অর্থ খরচ করার হিসাব নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে ধ্বংস এবং মিথ্যা অপবাদ আর অসত্য তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য তারা লবিস্ট নিয়োগ করেছে। বিদেশি ফার্মকে এই কোটি কোটি ডলার তারা পেমেন্ট করলো- এই অর্থ কিভাবে বিদেশে গেলো? এটা কোথা থেকে এলো তার জবাব তাদের দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) রাতে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনা এবং ১৬তম অধিবেশনের সমাপনী আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী সংসদে এসব কথা বলেন।

সরকার প্রধান বলেন, এদের (বিএনপি) দেশের জনগণের প্রতি কোনো দায়বদ্ধতা নেই। তাই দেশের অগ্রযাত্রাকে বন্ধ করতে, দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে নানা চক্রান্ত করছে। বিএনপি দেশকে ধ্বংস করা, লুটপাট করা, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস সৃষ্টি করা ছাড়া কিছুই দিতে পারেনি। কিন্তু দেশের জনগণের প্রতি আমার আস্থা ও বিশ্বাস আছে যে, কোনো অসত্য অপ্রপ্রচার ও মিথ্যাচারে দেশের জনগণ বিভ্রান্ত হবে না। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবেই।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশ সব দিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে, এটি যাদের পছন্দ নয় তারাই শত শত কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করে লবিস্ট নিয়োগ করে দেশের সর্বনাশ করছে। এত বিপুল অর্থ কোথায় থেকে আসল, বিদেশে খরচ হলো- এর জবাব ও ব্যাখ্যা বিএনপিকে দিতে হবে। আর দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করতে লবিস্ট নিয়োগের খরচের পাই পাই হিসাব নেওয়া হবে।

নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতি হচ্ছে দেশের জনগণের ভোটের অধিকার রক্ষা করা, কেড়ে নেওয়া নয়। আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে যে দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন তার বড় প্রমাণ। বিএনপি এই নির্বাচনেও নানা খেলার চেষ্টা করেছে, কিন্তু পারেনি। বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি, ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রণয়ন, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স, জনগণের ভোটের অধিকার রক্ষাসহ সব কিছু আওয়ামী লীগের আন্দোলনের ফসল। আওয়ামী লীগের আমলেই দেশে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত থাকে।

র‌্যাব কর্মকর্তাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে দেশ থেকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, উগ্রবাদ দমনে করেছে- তারা এত খারাপ হয়ে গেল কেন? আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দোষ দেই না। দেশের ভাবমূর্তি ধ্বংস করতে তারা শত শত কোটি টাকা খরচ করে লবিস্ট নিয়োগ করেছে বিএনপি। তারা যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বাঁচানো, নির্বাচনকে বানচাল ও প্রশ্নবিদ্ধ করা, দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য বিএনপি শত শত কোটি টাকা খরচ করে লবিস্ট নিয়োগ করে, কোনো ভালো কাজের জন্য নয়। এতো অর্থ বিএনপি কোথায় থেকে পেল, কীভাবে সেখানে গেল- এর জবাব একদিন বিএনপিকে দিতেই হবে।

কৃষি-খাদ্য শিল্পের টেকসই উন্নয়নে ডাচ কৃষি উদ্ভাবন ও প্রযুক্তির মেলবন্ধন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশি কৃষি উদ্যোক্তাদের সাথে নেদারল্যান্ডের কৃষি ও প্রযুক্তি  উদ্যোক্তাদের মাঝে  Horticulture, Livestock, Poultry ও Fisheries খাতে সুস্পষ্ট অংশিদারিত্ব তৈরিতে বাংলাদেশ দূতাবাস আগামী ৩০মে এগ্রি-বিজনেস Conclave আয়োজন করছে।

এ কনক্লেভে বাংলাদেশ হতে কৃষি ও খাদ্যশিল্পে নিয়োজিত ৪০ জন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী/উদ্যোক্তা  যোগ দিবেন। এ পর্যন্ত প্রায় ৩০টি ডাচ প্রতিষ্ঠান এ কনক্লেভে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কৃষি গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় Wageningen University and Research এর সহযোগিতায় কনক্লেভটি ওয়ার্ল্ড ক্যাফে ফরমেটে অনুষ্ঠিত হবে। ডাচ উদ্যোক্তাবৃন্দ বাংলাদেশি ব্যবসায়ি/উদ্যোক্তাদের সাথে বাংলাদেশে সম্ভাব্য ডাচ প্রযুক্তি-সমাধান-উদ্ভাবন ব্যবহারের মাধ্যমে নতুন বিনিয়োগ চূড়ান্তে আলোচনা করবেন।

কনক্লেভের দ্বিতীয় দিন (৩১ মে) চারটি উপখাত সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তারা Wageningen, Friesland, Boxmeer, World Horti Centre-এ ডাচ প্রযুক্তির প্রায়োগিক দিকগুলি দেখতে যাবেন।

উল্লেখ্য, গত বছর দূতাবাসের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ হতে নেদারল্যান্ডসে বাণিজ্যিকভাবে আম রফতানি করা হয়। দূতাবাসের এ কনক্লেভ আয়োজন এ বছরের শেষের দিকে বাংলাদেশে একটি Dutch Trade Mission প্রেরণের ক্ষেত্রে সহায়ক হবে বলে আশা করা যাচ্ছে ।

নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশের আয়তনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের কম। তথাপি কৃষিজাত পণ্য রফতানিতে বিশ্বে দ্বিতীয় শীর্ষস্থানীয়। ২০২১-এ কৃষি পন্য ও খাদ্য রফতানি করে নেদারল্যান্ড ১১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি আয় করে।

কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনে নেদারল্যান্ড শীর্ষে। অন্যদিকে বাংলাদেশ গত পাঁচ দশকে কৃষি উৎতপাদনে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করলেও বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ করে কৃষি প্রবৃদ্ধি অর্জন ও কৃষিখাতকে একটি রফতানিমুখী খাতে উন্নীত করতে উন্নত ডাচ কৃষি প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। তাই উন্নত ডাচ কৃষি প্রযুক্তি বাংলাদেশে সূচনা করার জন্য দুই দেশের  ব্যবসায়িক সংযোগ সুদৃঢ় করতে দূতাবাস নতুন উদ্যোগ হিসেবে এই কনক্লেভ আয়োজন করছে।

এই কনক্লেভ বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডের বেসরকারি খাতে সৃ ও দায়িত্বশীল উদ্যোক্তাদের মাঝে দীর্ঘমেয়াদী সংযোগ সৃষ্টি করবে বলে নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ মনে করেন। কনক্লেভে নিরাপদ ও গুনগত খাদ্য, সত্যায়িত কাঁচা পণ্য পরিবহন, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য রফতানি করতে যে ক্রম-পরিবর্তনশীল প্রযুক্তির প্রয়োজন তা নিয়ে আলোচনা হবে।

Conclave-টি আয়োজনে প্রথমবারের মত দূতাবাসের সাথে অংশীদার হয়েছে নেদারল্যান্ডসের কৃষি মন্ত্রণালয়, নেদারল্যান্ড এন্টারপ্রাইজ এজেন্সি, নেদারল্যান্ড ফুড পার্টনারশিপ, ডাচ-গ্রিন-হাইজ ডেল্টা, লারিভ ইন্টারন্যাশনাল, স্টান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ এবং লাইট-ক্যাসেল পার্টনার্স। বাংলাদেশের কৃষি মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দূতাবাসের এ উদ্যোগ সমর্থন করছে।

;

পিকে হালদার আরো ১১ দিনের রিমান্ডে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পিকে হালদার আরো ১১ দিনের রিমান্ডে

পিকে হালদার আরো ১১ দিনের রিমান্ডে

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতে গ্রেফতার এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক এমডি প্রশান্ত কুমার (পিকে) হালদারসহ মোট ছয়জনকে আরো ১১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে কলকাতার একটি আদালত।

শুক্রবার কলকাতার নগর দায়রা আদালতের বিচারপতি সৌভিক ঘোষ এ আদেশ দেন।

কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাত করে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে যাওয়া পিকে হালদার গত ১৪ মে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশপরগনা জেলার অশোকনগর থেকে গ্রেফতার হন। পিকেসহ ছয়জনকে ওই দিন গ্রেফতার করে ভারতের কেন্দ্রীয় সংস্থা ইনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

গ্রেফতারের পর পিকে হালদারকে আদালতে হাজির করলে প্রথম দফায় তার ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। সেই রিমান্ড শেষে গত ১৭ মে তাকে আদালতে হাজির করলে তাকে দ্বিতীয় দফায় আরও ১০ দিনের রিমান্ডে পাঠানো হয়।

এক নারীসহ মোট পাঁচজনের বিরুদ্ধে ‘হাওয়ালা’ পদ্ধতিতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে টাকা পাচারের অভিযোগে ২০০২ সালের আইনে মামলা করা হয়। পিকে হালদার ও তার সহযোগীরা পশ্চিমবঙ্গে বিভিন্ন ব্যবসা ও সম্পত্তিতে এসব অর্থ বিনিয়োগ করেছেন।

;

নেদারল্যান্ডসে প্রশিক্ষণে গিয়ে দুই কনস্টেবল লাপাত্তা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নেদারল্যান্ডসে প্রশিক্ষণে গিয়ে দুই কনস্টেবল লাপাত্তা

নেদারল্যান্ডসে প্রশিক্ষণে গিয়ে দুই কনস্টেবল লাপাত্তা

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের আট সদস্যের একটি দল নেদারল্যান্ডসে প্রশিক্ষণে গিয়েছিল গত ৯ মে। কিন্তু প্রশিক্ষণ শেষ করে ফিরে আসার আগের দিন ২২ মে থেকে দুই কনস্টেবলের খোঁজ মিলছে না। বাকি ছয় সদস্যের দলটি প্রশিক্ষণ শেষ করে গত ২৪ মে দেশে ফিরেছে।

শুক্রবার (২৭ মে) সকালে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) আমির জাফর। নিখোঁজ কনস্টেবলরা হলেন, শাহ আলম ও রাসেল চন্দ্র দে।

তিনি বলেন, গত ৯ মে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ৮ সদস্যের একটি দল কুকুরের ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা ও প্রশিক্ষণ শীর্ষক ১৫ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে অংশ নিতে নেদারল্যান্ডসে যায়। কিন্তু দেশে আসার আগের দিন দুইজন কনস্টেবল ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে বাইরে যান। এরপর থেকে তাদের খোঁজ মিলছে না। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে পালিয়ে গেছেন না কি কোনো বিপদে পড়েছেন, তা এখনও জানা যায়নি। তবে জানার চেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, আমরা পুলিশ সদর দপ্তর ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে তাদের খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করছি। নিখোঁজ হওয়া দুজনই পুলিশ কনস্টেবল। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিএমপি সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগর পুলিশের কাউন্টার-টেররিজম ইউনিটের অধীনে একটি পূর্ণাঙ্গ ডগ স্কোয়াড ইউনিট খোলা হচ্ছে। আর সেই ইউনিটের কার্যক্রমের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ৮ সদস্যের দলটি গত ৯ মে বাংলাদেশ থেকে নেদারল্যান্ডসে যায়। ওই দলের বাকি ৬ সদস্য গত ২৪ মে দেশে ফেরেন।

;

টাঙ্গাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

টাঙ্গাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে দুই পক্ষের সংঘর্ষে জহিরুল ইসলাম (৩২) নামের একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও পাঁচজন আহত হয়েছেন।

নিহত জহিরুল ইসলাম পাইকড়া ইউনিয়নের সিহরাইল উত্তরপাড়া গ্রামের ছাইদুল মিয়ার ছেলে।

শুক্রবার(২৭ মে ) দুপুরে উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাইকড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আজাদ হোসেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গোপালপুর গ্রামের বারেকের চা দোকানে টিভি দেখা ও টিভির সাউন্ড বাড়ানো কমানো কে কেন্দ্র করে বাক বিতন্ডার সময় কয়েকজন বখাটের তার সাথে কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পরে। এসময় তারা আজিজুল নামের একজনকে বেধরক মারপিট করে। এর জের ধরে আজ শুক্রবার দুপুরে সিহরাইল গ্রামের কয়েকজন মিলে গোপালপুর গ্রামে গিয়ে স্বানীয় ইউপি সদস্যসহ কয়েকজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে থাকে। খবর পেয়ে গ্রামের লোকজন তাদের উপর হামলা চালায়। এসময় দুই পক্ষের সংঘর্ষে জহিরুল ইসলাম নিহত হন। এ ঘটনায় দুই পক্ষের ৫জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সিহরাইল গ্রামের জহিরুল ইসলাম (৩৪), তার আপন ভাই নুরু (৩৪), চাচা জিহাদ (৫০) এবং গোপালপুর গ্রামের মেম্বার ফরমান, পাভেল, আবুল, আজগর, জামান, হাসমতসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে খবর পেয়েছেন।

তিনি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। পরে সংবাদ পান চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জহিরুলকে মৃত ঘোষণা করেন। এবং গুরুতর আহত নুরুকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার্ড করেছেন। এছাড়াও অপর আহত জিহাদ (৫০) জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।

এ ব্যাপারে কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় একজন নিহত ও পাঁচ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে নিহতের ছোট ভাই নুরুর (২৫) অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে বলেও জানান তিনি।

;