রাজশাহীতে ছুটিতে সন্দেহভাজন বুকিং সহকারীরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

রাজশাহীতে ট্রেনের টিকিট চোখের পলকেই শেষ হয়ে যাওয়ার বিষয়টি কয়েকদিন ধরেই আলোচনায়। অভিযোগ উঠেছে, রাজশাহী স্টেশন ঘিরে থাকা কালোবাজারি চক্রের অপতৎপরতায় সাধারণ যাত্রীদের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে টিকিট। আর এই চক্রে রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের প্রধান বুকিং সহকারী আবদুল মমিনেরই জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

টানা কয়েকদিন অনুসন্ধান চালিয়ে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। অভিযোগ পাওয়া গেছে, এই চক্রের পেছনে সহযোগী হিসেবে কাজ করছেন মমিন ছাড়াও আরও গুটিকয়েক অসৎ বুকিং সহকারী। সম্প্রতি এই চক্রকে ধরতে বিভিন্ন মহল থেকে পশ্চিমাঞ্চল রেল কর্তৃপক্ষসহ প্রশাসনকে তাগাদা দেওয়া হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে সন্দেহভাজন কয়েকজন বুকিং সহকারী গা-বাঁচাতে ছুটি নিয়েছেন। ছুটিতে গেছেন প্রধান বুকিং সহকারীও।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রাজশাহী রেল স্টেশনের কাউন্টারের দায়িত্বে আছেন ২৬ জন বুকিং সহকারী। এরমধ্যে প্রধান বুকিং সহকারী আবদুল মমিনসহ পাঁচজন এখন ছুটিতে। মমিন এই স্টেশনে বছরের পর বছর দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এর আগে অনিয়মের অভিযোগের কারণে তাঁকে রাজশাহী স্টেশনের বাইরে বদলি করা হলেও ৬ মাসের ব্যবধানে আবারও রাজশাহী স্টেশনে ফিরে আসেন। তিনি তাঁর দুই জন সহযোগী বুকিং সহকারীকে নিয়ে টিকেট কালোবাজারী নেটওয়ার্ক গুছিয়ে রেখেছেন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

মমিন ছুটিতে যাওয়ার আগে স্টেশনে দেখা গেছে, তিনি সাধারণত ৬ নম্বর কাউন্টারে থাকেন। এই কাউন্টারে টিকিট নিতে যাওয়া অনেককেই মমিনের কাছে গিয়ে ‘অমুক ভাই’ পাঠিয়েছেন বলতে দেখা গেছে। আর সঙ্গে সঙ্গেই মমিন বের করে দিয়েছেন টিকিট। তবে একই সময় লাইনে দাঁড়ানো অন্যদেরকে টিকিট নেই বলে ফিরিয়ে দিতে দেখা গেছে। মমিন সারাদিন স্টেশনে না এলেও রোজ রাত ৮টা থেকে এই কাউন্টারে থাকেন।

টিকিট কালোবাজারি চক্রে জড়িয়ে পড়া বিষয়ে কথা বলতে প্রধান বুকিং সহকারী আবদুল মমিনকে একাধিকবার ফোন করা হলেও ধরেননি। পরিচয় জানিয়ে এসএমএস দেওয়ার পরও তিনি ফোন ধরেননি। তাই অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি দেশে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় ট্রেনের ধারণ ক্ষমতার চাইতে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে যাতায়াতের নির্দেশনা দেয় রেল কর্তৃপক্ষ। টিকিট নিয়ে সংকট বহুদিনের হলেও রেল কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের পর তা প্রকট আকার ধারণ করে। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে টিকিট কালোবাজারি চক্র। ট্রেনের টিকিট যাত্রার ৫ দিন আগে অনলাইনে ও স্টেশন কাউন্টারে বিক্রি করা হয়। নির্ধারিত মোট আসনের ৫০ শতাংশ অনলাইনে এবং ৫০ শতাংশ কাউন্টারে বিক্রি করা হচ্ছে। তবে টিকেট বিক্রি শুরুর কিছু সময়ের মধ্যেই তা ফুরিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে ঢাকামুখি চারটি ট্রেনের ক্ষেত্রে টিকিট সংকট প্রকট। অনলাইনে টিকিট নিতে যাত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর প্রয়োজন পড়ে। আর কালোবাজারি চক্র নানাভাবে অন্যদের জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর সংগ্রহ করে অনলাইন থেকে টিকিট নামিয়ে নিচ্ছে। আর ট্রেনে টিকিট যাচাইয়ের ব্যবস্থা থাকলেও জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর যাচাইয়ের ব্যবস্থা না থাকায় সেই সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে এই চক্র।

রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন ঘিরে সক্রিয় স্থানীয় কয়েকজন টিকিট কালোবাজারীর সাথে কথা হলে তারা জানান, টিকিট কালোবাজারির সাথে রাজশাহী নগরীর কয়েকটি কম্পিউটারের দোকান, বিমানের টিকেট বিক্রির দোকানসহ শিরোইল, মঠপুকুর, শিরোইল কলোনী ও দড়িখরবোনা এলাকার কয়েকজন যুবক জড়িত। তারা অন্যের জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর সংগ্রহ করে অনলাইনে টিকিট সংগ্রহের পাশাপাশি রাজশাহী স্টেশনের প্রধান বুকিং সহকারীসহ আরও কয়েকজনের সহযোগিতায় দিব্বি চাহিদামত টিকিট পেয়ে যাচ্ছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ঢাকা-রাজশাহী রুটে ৪টি ট্রেন নিয়মিত চলাচল করছে। এই ট্রেনগুলোতে শোভন চেয়ারের ভাড়া ৩৪০ থেকে ৩৭৫ টাকা, স্নিগ্ধা চেয়ারের ভাড়া ৬৫৬ থেকে ৭২৫ টাকা। তবে কাউন্টার থেকে বুকিং সহকারীর মাধ্যমে দালালদের হাতে পৌঁছে তা হয়ে যায় যথাক্রমে ৪২০ থেকে ৪৫০ টাকা এবং ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা, আর ৭৮২ থেকে ৮৬৫ টাকার কেবিনের ভাড়া হয়ে যায় ১ হাজার টাকা। বিশেষ দিন বা ঢাকায় সরকারি চাকরির পরীক্ষার তারিখ থাকলে কালোবাজারে এই টিকিটের দাম আরও বৃদ্ধি পায়।

সম্প্রতি রাজশাহী স্টেশনে টিকিট সংকট নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে অসন্তোষ প্রকাশিত হবার পর কালোবাজারি রোধে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উদ্যোগী হয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম), নগর পুলিশের কমিশনার ও র‌্যাব-৫ এর পরিচালক বরাবর লিখিত আবেদন দিয়েছেন। পশ্চিম রেলের  জিএম অসীম কুমার তালুকদার রেলের টিকেট কালোবাজারি রোধে তৎপরতাও শুরু করেছেন। তিনি নিজেও ঢুঁ মারছেন স্টেশনে। এ অবস্থায় ছুটিতে চলে গেছেন সন্দেহভাজন বুকিং সহকারীরা।

পশ্চিম রেলের  জিএম অসীম কুমার তালুকদার বলেন, করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারি নির্দেশনা মতো নির্ধারিত আসনের চাইতে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে ট্রেন চলাচল করছে। টিকিট কালোবাজারি রোধে রেল কর্তৃপক্ষ তৎপর রয়েছে। এই কাজে রেলের কেউ জড়িত থাকলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান পশ্চিম রেলের এই শীর্ষ কর্তা।

পিকে হালদারকে এখনই ফিরে পাওয়ার আশা করছেন না পররাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের আর্থিক খাতের শীর্ষ জালিয়াত প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পিকে হালদারকে এখনই ফিরে পাওয়ার আশা করছেন না পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

ভারতে বিচার শেষে বাংলাদেশের এই আসামিকে ফেরত পাওয়া যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

সোমবার (১৬ মে) ঢাকায় এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

ভারতের সঙ্গে আসামি প্রত্যর্পণ চুক্তির আওতায় পি কে হালদারকে ফেরত আনার বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সেট প্রসেডিওর আছে, এসব ক্ষেত্রে আমাদের একটি নীতি আছে। সেই অনুযায়ী আমরা কাজ করব। প্রথমে ভারত সরকার আমাদের জানাবে, এই লোক গ্রেফতার হয়েছে। হয়ত তাদের শাস্তি-টাস্তি দেবে। হয়ত আমাদের বলবে শাস্তির মেয়াদ বাংলাদেশে এসে কমপ্লিট করবে। এটা আমরা অন্যান্য দেশেরটাতে করি, তারাও আমাদের সাথে করবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমার ধারণা, আমাদের সাথে ভারতের যে সোনালী অধ্যায়, তাতে অবশ্যই আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যা করতে চাই, তারা আমাদের কথা শুনবেন। সে অনুযায়ী কাজ হবে। হয়ত তার কিছু বিচার হবে। তারপরে হয়ত আমাদের দেবে।

পি কে হালদার আটকের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানে না। পররাষ্ট্রমন্ত্রীও কিছু জানে না বলে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে পুলিশের পক্ষ থেকে ভারতে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

মোমেন বলেন, আপনারা বললেন পরশুদিন সন্ধ্যা বেলায়, এই খবর। আমাদের অফিস-টফিস বন্ধ ছিল। যেটা করা প্রয়োজন, আমরা করব। বলেছি তো, যা যা করার আমরা সেটা করব।

;

সামরিক দরে রেশন দেওয়ার আহ্বান জাফরুল্লাহ চৌধুরীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
সামরিক দরে রেশন দেওয়ার আহ্বান জাফরুল্লাহ চৌধুরীর

সামরিক দরে রেশন দেওয়ার আহ্বান জাফরুল্লাহ চৌধুরীর

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের দু’কোটি মানুষকে সামরিক দরে রেশন দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আজকে দু’কোটির বেশি পরিবার অর্ধাহারে আছে। প্যান্টশার্ট পরা লোকেরা টিসিবির ট্রাকের সামনে দাঁড়িয়ে থাকে। দু’কোটি পরিবারকে সামরিক দরে রেশন দেন। এ সবই করা সম্ভব। কিন্তু তা না। আপনারা করছেন অপচয়।’

মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী পরিচালিত ফারাক্কা লং মার্চের ৪৬তম বার্ষিকী উপলক্ষে রাজশাহীতে আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সোমবার বিকালে রাজশাহী নগরীর লালন শাহ মুক্তমঞ্চে ফারাক্কা লং মার্চ উদযাপন কমিটি এর আয়োজন করে।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, জনগণের পেটে ক্ষুধার বড় জ্বালা। বাচ্চা যদি দুধ না পায়, মা সহ্য করতে পারে না। আত্মহত্যা করে। অথবা শিশুর গলা টিপে ধরে। একটা কল্যাণকর রাষ্ট্র দরকার যেখানে আমি-আপনি সবার সমান অধিকার থাকবে।

দ্রুত অন্তবর্তীকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরও বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আজ উল্টোবুঝা করেন না। ছেড়ে দেন একটা আন্তর্জাতিকমানের সরকারের হাতে। সুষ্ঠু নির্বাচন করেন। নির্বাচনে যারা আসবে তারা থাকুক। পৃথিবীর অতীত ইতিহাস থেকে শিক্ষা গ্রহণ করুন।’

জনসভায় সভাপতিত্ব করেন ফারাক্কা লং মার্চ উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক নদী গবেষক মাহবুব সিদ্দিকী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- মাওলানা ভাসানীর দৌহিত্র্য আজাদ খান ভাসানী, পানিসম্পদ পরিকল্পনা সংস্থার সাবেক মহাপরিচালক প্রকৌশলী ম. ইনামূল হক, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী হাসনাত কাইয়ুম, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু প্রমুখ।

;

চড়ক উৎসব দেখতে পদ্মাপাড়ে ভিড়



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
চড়ক উৎসব দেখতে পদ্মাপাড়ে ভিড়

চড়ক উৎসব দেখতে পদ্মাপাড়ে ভিড়

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহীতে চড়ক উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর আলুপট্টি এলাকার পদ্মা সার্বজনীন শিবমন্দিরের ব্যানারে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়। গত ১৩ মে থেকে উৎসবের আয়োজন করা হয়। সোমবার বিকালে শিবপূজার পর সন্ন্যাসীরা পিঠে বড়শি গেঁথে চড়ক গাছে ঘোরেন।

এটি দেখতে পদ্মাপাড়ে অসংখ্য মানুষ জমায়েত হন। চড়ক উৎসব উপলক্ষে আলুপট্টি পদ্মাপাড়ে গ্রামীণ মেলাও বসেছিল। উৎসবের মূল আকর্ষণ চড়ক ঘোরা দেখতে সোমবার বিকাল ৩টা থেকেই পদ্মাপাড়ে মানুষের ঢল নামে। চড়ক গাছটি পোঁতা হয় পদ্মার পাড় থেকে নিচে চরের ভেতর। বিকাল ৪টা থেকে দফায় দফায় শিবের সন্ন্যাসীরা পিঠে বড়শি লাগিয়ে চড়কে ঘোরেন।

এই উৎসবের উদ্যোক্তা ওই এলাকার যুবক বিশ্বজিৎ সরকার, অন্তর সরকার ও কাঞ্চন সরকার।  তাঁদের বিশ্বাস, এই শিবপূজার পর চড়ক গাছে ঘোরার কারণে সার্বিক অমঙ্গল কেটে যাবে তাঁদের।

বিশ্বজিৎ সরকার বললেন, চড়ক পূজায় পূণ্যার্থীরা যে যা প্রার্থনা করেন তা হয় বলে তারা বিশ্বাস করেন। এ কারণেই যুগ যুগ ধরে গ্রামে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়। প্রথমবারের মত রাজশাহী শহরে এ উৎসব হলো বলে তিনি দাবি করেন।

;

রংপুরে সান্তনা ঔষধালয় সিলগালা ২০ হাজার টাকা জরিমানা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
রংপুরে সান্তনা ঔষধালয় সিলগালা ২০ হাজার টাকা জরিমানা

রংপুরে সান্তনা ঔষধালয় সিলগালা ২০ হাজার টাকা জরিমানা

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরে নগরীতে আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরির কারখানায় অভিযান চালিয়েছে মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। এ সময় বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারাসহ অনুমোদন ছাড়াই ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের অপরাধে সান্তনা ঔষধালয়টি সিলগালা করে দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার (১৬ মে) বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন রংপুর মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি অ্যান্ড মিডিয়া) মো. সাজ্জাদ হোসেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন রংপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আঁখি শেখ। এ সময় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর রংপুরের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার বেলা ১টার দিকে নগরীর হারাগাছ থানাধীন বাহার কাছনা এলাকার সান্তনা ঔষধালয়ের ফ্যাক্টরিতে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। অভিযানকালে ফ্যাক্টরির মালিকের কাছ থেকে বৈধ কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। কারখানায় কেমিস্ট ছাড়াই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ওষুধ প্রস্তুত করা ছাড়াও কাঁচামাল সঠিকভাবে সংরক্ষণে ছিল না।  শ্রমিকদের পরনে মাস্ক, গ্লোভস, অ্যাপ্রোনসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী না থাকাসহ নানাবিধ অব্যবস্থাপনা দেখা যায় ।

এসব অপরাধের দায়ে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর রংপুরের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আঁখি শেখ ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ওই কারখানার মালিক সদরুল আনামকে বিশ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। একই সাথে ত্রুটি সংশোধন না হওয়া পর্যন্ত কারখানাটির সকল কার্যক্রম ও উৎপাদন বন্ধ রাখতে কারখানাটি সিলগালা করে দেওয়া হয়।

;