এখন সাংবাদিকতা বিপজ্জনক অবস্থায় আছে: সম্পাদক পরিষদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘ডিজিটাল নজরদারিতে সাংবাদিকতা’ শীর্ষক আলোচনা সভা

‘ডিজিটাল নজরদারিতে সাংবাদিকতা’ শীর্ষক আলোচনা সভা

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে সাংবাদিকতা এখন আইনি জটিলতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন আইনের প্রয়োগ ঘুরে ফিরে স্বাধীন সাংবাদিকতা এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। এর মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকতা পেশার বিকাশে সাংঘাতিক অন্তরায় হিসেবে কাজ করছে। সব মিলিয়ে এখন সাংবাদিকতা বিপজ্জনক অবস্থায় আছে।

শনিবার (১৪ মে) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘ডিজিটাল নজরদারিতে সাংবাদিকতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক এবং সাংবাদিক নেতারা এসব কথা বলেন। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে সম্পাদক পরিষদ।

সম্পাদক পরিষদের সভাপতি ও ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহ্ফুজ আনাম ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ বিভিন্ন আইনের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, সমস্ত আইনের প্রয়োগ ঘুরেফিরে মতপ্রকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। প্রশ্ন হলো, স্বাধীন মতপ্রকাশের বিরুদ্ধে এত আইন কেন? সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে এত আইন কেন? সাংবাদিকেরা কী করছেন, যার জন্য এত আইন দিয়ে হাত-পা বেঁধে দিতে হবে?

সংবাদপত্রের মালিকদের সংগঠন নোয়াবের সভাপতি এ কে আজাদ বলেন, সংবাদপত্রের জগৎ আজ অনেকটা সংকুচিত। ছাপা কাগজের চাহিদা ধরে রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে ডিজিটাল বাস্তবতা বিশ্বজুড়ে গণমাধ্যমের জন্য একদিকে যেমন অনেক সুযোগ এনে দিয়েছে, তেমনি সাংবাদিকদের জন্য অনেক ঝুঁকিও তৈরি করেছে। তাঁদের ওপর নজরদারি বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়ে এ কে আজাদ বলেন, নোয়াব শুরু থেকেই এই আইনের বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে। তাঁরা মনে করেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ওপর চাপ সৃষ্টি করছে।

মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আমরা বিপজ্জনক অবস্থায় আছি। আজকে ভয় আগুনের মতো। বলতেও পারি না, লিখতেও পারি না। লিখলেই মনে হয় বিপদ আসতে পারে। এই ভয় থেকে মুক্তি পেতে হলে সম্মিলিত প্রয়াস দরকার।’

বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, প্রথমত আইন নেই। আরেকটি হচ্ছে পুরোনো আইন এবং একটি হচ্ছে নতুন আইন। আইন না থাকার ফলে যারা টেলিভিশনে কাজ করেন, তারা আইনগতভাবে সংবাদমাধ্যম কর্মী নন, তারা কোম্পানির কর্মচারী। আরেকটি বিষয় হলো, পুরোনো আইন। অতি পুরোনো আইন যখন যার সম্পর্কে প্রয়োজন হয়, তখন ব্যবহার হয়। আরেক বিপদ হলো, নতুন আইন। নতুন প্রেক্ষাপটে নতুন আইন হবে। কিন্তু সেই আইনগুলো এমনভাবে করা হচ্ছে, আইন নিজেরাই সংবাদমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করে অথবা আইনের অপপ্রয়োগ আইনকে ভয়ংকর করে ফেলে।

সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান হানিফ মাহমুদের সঞ্চালনায় আলোচনায় আরও বক্তব্য দেন, বিএফইউজের একাংশের সভাপতি ওমর ফারুক, বিএফইউজের আরেকাংশের সভাপতি এম আবদুল্লাহ, আজকের পত্রিকার সম্পাদক গোলাম রহমান, নিউ এজ সম্পাদক নূরুল কবীর, ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের আরেকাংশের সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন, ইনকিলাব সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীন, করতোয়া সম্পাদক মোজাম্মেল হক, প্রকাশিতব্য দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশের সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি প্রমুখ।

উত্তরাঞ্চলে মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
উত্তরাঞ্চলে মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে

উত্তরাঞ্চলে মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও আজ মাঝারী ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস ।

রোববার (১৫ মে) সকাল থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়, রাজশাহী, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা ও বরিশাল বিভাগের

দু'এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার সাথে বিজলী চমকানোসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরণের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে।

পরবর্তী তিন দিনের আবহাওয়ার অবস্থায় বলা হয়েছে, এ সময়ের শেষের দিকে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে।

আজ সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দর সমুহের জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা এবং সিলেট অঞ্চল সমূহের উপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা ও ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদী বন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় রাজারহাটে সর্বোচ্চ ৬৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া সিলেটে ৬২, সাতক্ষীরায় ৩৫ ও মংলায় ১৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

এছাড়া সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আজ রোববার সিলেটে সর্বনিম্ন ২২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। গতকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বাড়তি অংশ পশ্চিমবঙ্গ এবং এর কাছাকাছি এলাকায় অবস্থান করছে এটি উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

আজ সকাল থেকে ঢাকায় দক্ষিণ অথবা দক্ষিণপশ্চিম দিক থেকে ঘন্টায় ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার বেগে বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে, যা অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়ার আকারে ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। সকালে ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৭৫ শতাংশ।

ঢাকায় আজ সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৬ টা ৩৪ মিনিটে এবং আগামিকাল সূর্যোদয় ভোর ৫ টা ১৬ মিনিটে।

;

এতো সহজে ক্ষমতায় আসতে পারবে না বিএনপি: কৃষিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

  • Font increase
  • Font Decrease

কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই। তারা কোনদিন এতো সহজে ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এ দেশের মানুষ ভালো মন্দ সবই বুঝে।

রোববার (১৫ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) আয়োজনে নোয়াখালী অঞ্চলের কৃষির সম্ভবনা ও উন্নয়ন বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আজকে যারা হুমকি দিচ্ছে। হুমকিতো আপনারা আমাদের জীবনের ওপর দিয়েছেন। বিএনপি ১৫০ জন মানুষকে অগ্নিদগ্ধ করে মেরেছে। শত শত মানুষকে বাস, ট্রাক, রিকশার মধ্যে আগুন দিয়ে দগ্ধ করেছে। এতো নির্দয়, নিষ্ঠুরতা এ দেশের মানুষ একাত্তরে দেখেছিল। তারপর আবার দেখেছে ২০১৪-১৫ সালে।

বিএনপির নেতাদের বক্তব্যকে ইঙ্গিত করে মন্ত্রী বলেন, হুমকি দিয়ে ক্ষমতায় আসা যাবে না। জাতির অর্জনকে হুমকি দিয়ে ধ্বংস করা যাবে না। হুমকিতে বঙ্গবন্ধুও ভয় পায়নি। আওয়ামী লীগ পর্দার অন্তরালে ষড়যন্ত্র করে কোন দিন ক্ষমতায় আসেনি। আমাদের ভিত্তি জনগণ। জনগণ যদি আমাদেরকে প্রত্যাখ্যান করে আমরা চলে যাব। এটা নিয়ে আমাদের কোন দুঃখ নেই।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার অবর্তমানে যিনি বিএনপি চালাবেন। আগামী দিনের প্রধানমন্ত্রী। তিনি লন্ডনে থেকে ভোগবিলাস করছেন। রিমোট কন্ট্রোলে পার্টি চালাচ্ছেন। কাজেই ওখান থেকে রিমোট কন্ট্রোলে হুমকি দিয়ে, আর সেই হুমকির ওপর আওয়াজ তুলে গয়েশ্বর রায়রা ক্ষমতায় আসতে পারবে না। ক্ষমতায় আসতে হলে মানুষের কাছে যেতে হবে।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন আমরা সুষ্ঠু করবো, নিরপেক্ষ করব। গত ৮ মে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে প্রধানমন্ত্রী সুস্পষ্ট আমাদেরকে বলেছেন আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।

কৃষির উৎপাদন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা জাতির কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলাম, বাংলাদেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করব। দারিদ্রতা কমিয়ে নিয়ে আসব। আজকে বাংলাদেশ দানা জাতীয় খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। শাক সবজি, ডালের উৎপাদন বৃদ্ধি করেছি। কিন্তু তেলের উৎপাদন তেমন বৃদ্ধি করতে পারিনি। তবে আমাদের কাছে প্রযুক্তি এসেছে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- নোয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশীদ কিরন, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হোসনে আরা, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের (ডিএই) মহাপরিচালক মো. বেনজীর আলম, নোয়াখালী জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।

;

সিরাজগঞ্জে চার দিনে ৭০ টন তেল জব্দ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জে সয়াবিন তেল জব্দ

সিরাজগঞ্জে সয়াবিন তেল জব্দ

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে চার দিনে পৃথক অভিযানে সয়াবিন তেল মজুদ ও উচ্চমূল্যে বিক্রির অভিযোগে ৭০ টন তেল জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে ১২টি প্রতিষ্ঠানকে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গত বুধবার (১১ মে) হতে রোববার সকাল পর্যন্ত সিরাজগঞ্জ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর ও স্ব-স্ব উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ অভিযান পরিচালনা করেন। এবং জব্দকৃত তেল তাৎক্ষণিকভাবে খোলাবাজারে ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করা হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, উল্লাপাড়া পৌর এলাকার ঘোষগাঁতীর মেসার্স অর্ণব ট্রেডার্স, মেসার্স দত্ত অ্যান্ড ব্রাদার্স, পাচলিয়া বাজারের সততা স্টোর, সাহা স্টোর, সিয়াম স্টোর, সলঙ্গা বাজারের রাজলক্ষী বাণিজ্য ভান্ডার, দুলাল চন্ড কুন্ডু স্টোর, বেলকুচি উপজেলার মুকুন্দগাঁতি বাজারের রায়হান স্টোর, মালেক স্টোর, সজল স্টোর, সদর শিয়ালকোল এলাকায় মেসার্স সেলিম স্টোর ও রেলগেটের লিটন স্টোরসহ ১২টি।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সিরাজগঞ্জের সহকারি পরিচালক মাহমুদ হাসান রনি জানান, অতিরিক্ত মুনাফার লোভে সয়াবিন তেল মজুদ রাখার অভিযোগে গত চার দিনে সিরাজগঞ্জের ৪টি উপজেলায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। সদরসহ জেলার ৪টি উপজেলার ১২টি প্রতিষ্ঠান থেকে ৪৫ হাজার লিটার তেল জব্দসহ জরিমানা করা হয়।

অপর দিকে উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উজ্জল হোসেন বলেন, পৌর এলাকার ঘোষগাঁতীতে মেসার্স অর্ণব ট্রেডার্স ও মেসার্স দত্ত অ্যান্ড ব্রাদার্সের গোডাউনে বিপুল পরিমাণ বোতলজাত সয়াবিন তেল মজুত করা হয়েছে। এমন গোপন সংবাদে অভিযান চালিয়ে ২৬ হাজার লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে অবৈধভাবে তেল মজুত রাখার দায়ে দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়েছে। সেই সাথে জব্দকৃত সয়াবিন তেল নির্ধারিত মূল্যে ভোক্তাদের কাছে বিক্রি করা হয়।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মদ বলেন, বাজারে ভোজ্যতেলের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে কেউ যেন স্বার্থ হাসিল করতে না পারে সেজন্য অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে জেলা প্রশাসক।

;

‘ভারত জানালে পি কে হালদাকে দেশে ফেরাতে আইনি ব্যবস্থা’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

  • Font increase
  • Font Decrease

কয়েক হাজার কোটি টাকা পাচার করার অভিযোগ নিয়ে বছর কয়েক ধরে পালিয়ে থাকা এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদারকে (পি কে হালদার) গ্রেফতারের বিষয়ে ভারত জানানো মাত্রই দেশে ফিরিয়ে আনতে আইনি ব্যবস্থা নেবে সরকার বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেন, পি কে হালদারের বিষয়ে ভারতে থেকে অফিশিয়ালি এখনও কোনো ডকুমেন্ট আসেনি।

রোববার (১৫ মে) বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: ইতিহাসের পুনর্নির্মাণ’ শীর্ষক সেমিনার তিনি কথা বলেন। সেমিনারটি আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম।

পি কে হাওলাদার বাংলাদেশে ওয়ান্টেড ব্যক্তি উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা ইন্টারপোলের মাধ্যমে তাকে অনেকদিন ধরেই চাচ্ছি। তাকে গ্রেফতার করেছে ভারত। তবে আমাদের কাছে ভারত থেকে এখনও পি কে হালদারের গ্রেফতার বিষয়ে অফিশিয়ালি কিছু আসেনি। ভারত জানালে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো।

এর আগে, শনিবার (১৪ মে) উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার অশোকনগর থেকে পি কে হালদারের সঙ্গে তার দুই ভাইসহ গ্রেফতার হয়েছেন আরও ৫ জন।

গ্রেফতার অন্য পাঁচজন হলেন- উত্তম মিত্র, স্বপন মিত্র, সঞ্জীব হালদার, প্রাণেশ হালদার (প্রীতিশ) ও তার স্ত্রী।

অর্থপাচারে অভিযুক্ত পি কে হালদারের সম্পদের খোঁজে পশ্চিমবঙ্গের এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট ১০টি অভিযান চালায়। পরে তাকে গ্রেফতার করা হয় ভারতের উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগর থেকে।

শনিবার এক বিবৃতিতে ইডি জানিয়েছে, পি কে হালদার ভুয়া তথ্য-পরিচয় এবং রেশন কার্ডের মতো জাতীয় কার্ড ব্যবহার করে ভারতীয় নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন শিবশংকর হালদার নামে। ভারতীয় পরিচয়ে পশ্চিমবঙ্গে বিপুল অর্থবিত্তের মালিক হন তিনি।

হুন্ডির মাধ্যমে ভারতে টাকা পাচারে পি কে হালদারকে সহযোগিতা করেছেন সুকুমার মৃধা। আর সম্পদ কেনায় সাহায্য করেছেন সুকুমারের মেয়ে অনিন্দিতা ও মেয়ের জামাই সঞ্জিব হাওলাদার। এ তথ্যের ভিত্তিতেই পশ্চিমবঙ্গজুড়ে তল্লাশি চালিয়েছে ইডি।

;