বস্তাবন্দি ফেনসিডিল উদ্ধার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুড়িগ্রাম
বস্তাবন্দি ফেনসিডিল উদ্ধার

বস্তাবন্দি ফেনসিডিল উদ্ধার

  • Font increase
  • Font Decrease

কুড়িগ্রামের উলিপুরে ১০১ বোতল ফেনসিডিলসহ এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়াও মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি বাইক ও একটি অটোরিকশা জব্দ করেছে পুলিশ।

রোববার (২২ মে) সন্ধ্যায় উলিপুর পৌর শহরের পোস্ট অফিস মোড় সংলগ্ন এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আটককৃত বিপ্লব মজুমদার বিপু (৫০) উলিপুর পৌর এলাকার ৬ নং ওয়ার্ডের মৃত শচীন মজুমদারের পুত্র। তার বাড়ির সামনের উলিপুর-রাজারহাট সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা একটি অটোরিকশার সামনের আসনের নিচে থেকে ১০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। এর আগে তার নিকট থেকে ১ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিপ্লব মজুমদারের বাড়ির সামন থেকে তার ব্যবহৃত বাইক সহ এক বোতল ফেনসিডিলসহ হাতেনাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে ওই স্থানে উদ্ধারকৃত এক বোতল ফেনসিডিলের সুত্র ধরে আশেপাশে খোঁজাখুঁজি শুরু হয়। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে দাঁড়িয়ে থাকা একটি অটোরিকশার সামনের আসনের নিচে থেকে এক বস্তা ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। পরে ঘটনাস্থলে আসামীকে হাজির করে তার উপস্থিতিতে ফেনসিডিলের বোতল গণনা করে ১০০ টি বোতল রয়েছে বলে জানায় পুলিশ। পরে অটোরিকশাকে জব্দ করে থানায় নিয়ে আসা হয়। তবে অটোরিকশা চালক পলাতক বলে জানিয়েছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে অটোরিকশাটি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী থেকে উলিপুরে ফেনসিডিল নিয়ে আসতে পারে।

উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবির জানান, আটককৃত ব্যক্তি বিপ্লব মজুমদারের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে। এই ঘটনায় আরও কেউ জড়িত আছে কিনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলা সেই ভাইরাল যুবক আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের গর্ব ও অহংকার স্বপ্নের পদ্মা সেতু যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। পদ্মা সেতুতে দাঁড়ানো বা ছবি তোলা নিষেধ থাকলেও প্রথম দিনই সেতুতে চলছে নিয়ম ভাঙার হিড়িক। গাড়ি থামিয়ে কেউ তুলছেন ছবি আবার কেউ সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে করছেন টিকটক ভিডিও। তেমনই এক টিকটকার পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খুলছেন, যা ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। নাট-বল্টু খোলা সেই ভাইরাল যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (২৬ জুন) বিকালে সিআইডির সাইবার ক্রাইমের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, এক যুবক পদ্মা সেতুর কংক্রিটের রেলিংয়ের ওপর দিয়ে লোহার রেলিংয়ের দুটি নাট খুলছেন। এই নাট দুটি দিয়ে লোহার রেলিংটি আটকানো রয়েছে কংক্রিটের রেলিংয়ের সঙ্গে। এরপর সেই যুবক নাট দুটি বাঁহাত দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে খুলে ডানহাতে নেন এবং আবার বাঁহাতের ওপর রাখেন।

নাট দুটি খুলে হাতের ওপর রেখে বলেন, এই হলো আমাদের পদ্মা সেতু। আমাদের হাজার হাজার কোটি টাকার পদ্মা সেতু।’ এ সময় পাশ থেকে আরেকজনকে বলতে শোনা যায়, ‘নাট খুলে ভাইরাল করে দিয়েন না।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর শুরু হয়েছে তীব্র সমালোচনা। ওই যুবকের এমন কাণ্ড দেখে অনেকেই তার শাস্তি দাবি করেছেন।

;

বাসযোগ্য শহরের সূচকে ঢাকার ৪ ধাপ উন্নতি: তাপস



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বাসযোগ্য শহরের সূচকে ঢাকার ৪ ধাপ উন্নতি: তাপস

বাসযোগ্য শহরের সূচকে ঢাকার ৪ ধাপ উন্নতি: তাপস

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, মাত্র দেড় বছরের মধ্যে এই বর্ষা মৌসুমে আমরা প্রমাণ করেছি ঢাকা শহরে এখন ৭০ ভাগ এলাকা আর প্লাবিত থাকে না। পানি জমে না। ঢাকা শহর দীর্ঘ দিন ধরে পানিতে নিমজ্জিত থাকতো বর্ষা মৌসুমে। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসগুলো ঢাকাবাসীর জন্য নাভিঃশ্বাসের মাস। অস্বস্তির মাস এবং ঢাকা শহরের ৭০ ভাগ এলাকা পানিতে প্লাবিত হতো।

রোববার (২৬ জুন) পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিয়ন্ত্রণাধীন ঢাকা সমন্বিত বন্যা প্রতিরোধ প্রকল্পের আওতায় নির্মিত ৩৭টি রেগুলেটর/ড্রেনেজ আউটলেট স্ট্রাকচার এবং বুড়িগঙ্গা নদীর ডান তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় পানি নিষ্কাশনের জন্য নির্মিত ১৮টি ড্রেনেজ আউটলেট স্ট্রাকচার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তাপস বলেন, এটি একটি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। ঢাকা শহরে বন্যা হওয়ার কিছুটা আশঙ্কা রয়েছে। পানির সীমা বৃদ্ধি পেয়েছে, যদিও বিপৎসীমার নিচে এখনো রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ইকোনোমিস্ট ইন্টিলিজেন্স ইউনিটের বাসযোগ্য শহরের সূচকে ঢাকা ৪ ধাপ উন্নীত হয়েছে। আমরা সিরিয়া, করাচির নিচে ছিলাম। ২০২১ সালে যখন এই সূচক প্রকাশিত হলো তখন আমরা বিভিন্নভাবে সমালোচিত হয়েছি। যদিও ঢাকা শহর এই অবস্থানে দীর্ঘ দিন ধরেই ছিল। কিন্তু ঢাকাবাসীর প্রত্যাশা, জনগণের প্রত্যাশা মেয়র দায়িত্ব পালনের সঙ্গে সঙ্গে সব পরিবর্তন হয়ে যাবে। আজ অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে বলি, আমরা অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে গভীরে গিয়েছি এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নগর পরিকল্পনা বিভাগকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, এই বিষয়ের গভীরে গিয়ে কীভাবে এ থেকে আমরা উত্তরণ করতে পারি। গত পরশু এই প্রতিবেদন আবার প্রকাশিত হয়েছে। আগে আমরা ছিলাম নিচের দিক থেকে ৩ নম্বরে। এখন আমরা ৭ নম্বরে উন্নীত হয়েছি।

দক্ষিণ সিটি মেয়র বলেন, আগে বাসযোগ্য শহরের সূচক দেওয়া হতো আর আমরা এই গ্লানি নিয়ে চুপ করে বসে থাকতাম। ইকোনোমিস্ট ইন্টিলিজেন্স ইউনিট তাদের নিজস্ব গবেষণায় নিজস্ব ব্যক্তিদের দিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে এই প্রতিবেদন করে থাকে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগের তেমন কোনো উপায় নেই, কাদের মাধ্যমে এই তথ্য সংগ্রহ করে সে বিষয়টিও সেভাবে জানা নেই। অনেকটা সহনশীল হয়ে গেছে এভাবে আমরা নিয়েছিলাম। আমাদের নগর পরিকল্পনা বিভাগকে এই দায়িত্ব দিয়েছি এবং ইকোনোমিস্ট ইন্টিলিজেন্স ইউনিটকে যত রকম তথ্য দেওয়া যায়; তারা ৫টি খাত বিশ্লেষণ করে, এর আগে কোনো সময় তথ্য দেওয়া হতো না। আমরা এখন থেকে তথ্য দেওয়া আরম্ভ করেছি, ২০২১ থেকে। সেই তথ্যের প্রতিফলন এখন পেয়েছি।

উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের খালে কোনো ধরনের পয়ঃনিষ্কাশনের লাইন কেউ দিতে পারবে না। সেটা খাল, লেক বা জলাধার হোক। আমাদের খালে পরিষ্কার পানি প্রবেশ করতে পারবে, কোনো ধরনের দূষিত পানি প্রবেশ করতে দেবো না। আমরা যদি দেখি খালের ভেতর দূষিত পানির প্রবেশ হচ্ছে, যে-ই হোক না কেন ড্রেন আমরা বন্ধ করে দেবো। ১ সেপ্টেম্বর থেকে কোনো বাসা-বাড়িতে ডিরেক্ট কোনো ধরনের কানেকশন দিতে পারবে না। যদি দেওয়া হয় সেগুলো আমরা বন্ধ করে দেবো। ১০ তলা বিল্ডিং করবেন, শপিং মল করবেন আর কানেক্টিভিটি দিয়ে দেবেন আমাদের খালের ভেতরে এটি হবে না।

;

আবদুল হককে জাপানের ‘দ্য অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান’ অ্যাওয়ার্ড প্রদান



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আবদুল হককে জাপানের ‘দ্য অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান’ অ্যাওয়ার্ড প্রদান

আবদুল হককে জাপানের ‘দ্য অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান’ অ্যাওয়ার্ড প্রদান

  • Font increase
  • Font Decrease

জাপান দুতাবাসে অনুষ্ঠিত এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে দেশের রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানি খাতের পথিকৃৎ ব্যবসায়ী আবদুল হককে জাপানের ‘দ্য অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান’ (the Order of the Rising Sun, Gold Rays with Rosette) অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদুত মি. ইতো নাওকি গত ২৩ জুন জাপান দুতাবাসে অনুুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে আবদুল হককে এ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেন।

জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়ন এবং পারস্পরিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন ধরে নিরলস ও বিশেষ অবদানের জন্য জাপান সরকার এ বছর আরও দুই বাংলাদেশীর সাথে আবদুল হককে এই ‘অর্ডার’ দিয়েছে। বাংলাদেশে জাপানী ব্যবসায়ীদের জন্য উন্নত বিনিয়োগ ও ব্যবসা পরিবেশ সৃষ্টি এবং বাংলাদেশি ও জাপানী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যোগাযোগ স্থাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য জাপান সরকার তাকে এই ‘অর্ডার’ দিয়েছে।


‘দ্য অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান’ হচ্ছে ১৮৭৫ সাল থেকে জাপান সরকারের দেয়া সে দেশের প্রথম জাতীয় ডেকোরেশন।  

হক’স বে অটোমোবাইলস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব আবদুল হক দেশের রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিকারকদের সংগঠন বারভিডার প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট। তিনি ৩ মেয়াদে বারভিডার প্রেসিডেন্ট ছিলেন।

আবদুল হক বাংলাদেশে রিপাবলিক অব জিবুতির অনারারি কনসুল। তিনি ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের ৮ টি মেয়াদে পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি জাপানিজ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি এসোসিয়েশন ইন ঢাকা (জেসিএআইড) এর বিশেষ উপদেষ্টা এবং ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (IDCOL) এর সরকার কর্তৃক নিযুক্ত পরিচালক। তিনি জাপান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (জেবিসিসিআই) এর প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট।

;

পদ্মা সেতু: চালুর প্রথম দিনেই স্বস্তি দৌলতদিয়া ঘাটে



সোহেল মিয়া, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
চালুর প্রথম দিনেই স্বস্তি দৌলতদিয়া ঘাটে

চালুর প্রথম দিনেই স্বস্তি দৌলতদিয়া ঘাটে

  • Font increase
  • Font Decrease

শনিবার (২৫ জুন) স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর উদ্বোধনের একদিন পর রোববার (২৬ জুন) সকাল ৬টা থেকে চালু হয় যান চলাচল। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার প্রথম দিনেই পাল্টে গেছে দৌলতদিয়া ঘাটের চিরচেনা রূপ। যেখানে নদী পার হতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হতো ফেরির অপেক্ষায়, সেখানে এখন ফেরিই অপেক্ষা করছে যানবাহনের জন্য।

নদী পারের জন্য আসা যানবাহনগুলো টিকিট সংগ্রহ করে ১০ মিনিটের মধ্যেই উঠে যাচ্ছে ফেরিতে। ঘাট এলাকাতেও নেই তেমন একটা বাড়তি গাড়ির চাপ। যে নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন চরম ভোগান্তি পোহাতে হতো যাত্রী, চালক ও হেলপারদের সেই নৌরুটে এখন স্বস্তি ফিরে এসেছে পদ্মা সেতুর প্রভাবে।

তবে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহনের (বিআডব্লিউটিসি) কর্তৃপক্ষ বলছে ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, কয়েক দিন না গেলে বোঝা যাবে না আসলে কতটুকু প্রভাব পড়বে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে। দৌলতদিয়া ঘাটের চিত্র দেখতে হলে আরো কয়েক দিন সবাইকে অপেক্ষা করতে হবে।

রোববার (২৬ জুন) সারাদিনই রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। যে ঘাট দিয়ে প্রতিদিন লাখো মানুষ ও হাজার হাজার যাত্রীবাহী বাস, ব্যক্তিগত ছোট গাড়ী, কাভার্ড ভ্যান ও পণ্যবাহী ট্রাক নদী পার হওয়ার জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে অপেক্ষা করতো আজ আর অপেক্ষা করা লাগছেনা। সরাসরি ঘাটে এসে কোন রকম ভোগান্তি ছাড়াই ফেরিতে উঠে যাচ্ছে।

কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা একটি যাত্রীবাহী বাসের চালক বার্তা২৪.কমকে বলেন, মনে হচ্ছে পদ্মা সেতুর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে দৌলতদিয়া ঘাটে। পদ্মা সেতু চালুর প্রথম দিনেই এতো স্বস্তিতে নদী পাড়ি দিতে পারব বুঝতেই পারিনি। ঘাট এলাকায় আসার সাথে সাথেই ফেরির টিকিট হাতে পেয়েছি এবং ১০ মিনিটের মধ্যেই ফেরিতে উঠেছি।


ঐ বাসেরই যাত্রী জোবায়ের হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা সাধারণত এই নৌরুটটিই ব্যবহার করি। নদী পার হতে গেলে যে ভোগান্তি পোহাতে হতো তা কল্পনাও করা যায় না। কিন্তু আজ আমাদের বাসটি ফেরির টিকিট নিয়েই সরাসরি ফেরিতে উঠে গেল। মনে হচ্ছে পদ্মা সেতুর জন্য আমরাও বেঁচে গেলাম।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান বার্তা২৪.কমকে বলেন, আজ রোববার (২৬ জুন) অন্যান্য দিনের তুলনায় ঘাটের অবস্থা খুবই ভালো ছিল। আজ নদী পার হওয়ার জন্য কাউকে অপেক্ষা করতে হয়নি। কোন ভোগান্তিও নেই। আপাতত মনে হচ্ছে পদ্মা সেতুর সুফল এ ঘাটেও পড়বে। তবে এজন্য আরো কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। তারপর বোঝা যাবে আসল বিষয়টি।

;