পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে হোটেলে স্ত্রী, ধরলেন স্বামী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহীর সাহেব বাজার এলাকায় পরকীয়ার অভিযোগ এনে স্ত্রীর সঙ্গে প্রকাশ্যে মাঝরাস্তায় টানাহেঁচড়া ও মারপিট করতে দেখা গেছে এক ব্যক্তিকে।

মঙ্গলবার (২৪ মে) দুপুরে আবাসিক হোটেল নাইস ইন্টারন্যাশনালের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ওই নারীর কথিত প্রেমিককেও আটক করে সাধারণ মানুষ। প্রায় আধাঘণ্টা ধরে চলা এই টানাহেঁচড়ার পর বোয়ালিয়া থানা পুলিশ তাদের তিনজনকে থানায় নিয়ে যায়।

ঢাকায় একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা ওই নারীর স্বামী (৩৬) জানান, তার স্ত্রী (৩৪) দীর্ঘদিন ধরে কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জের বাহাদুরপুরের এক ব্যক্তির (৩৫) সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িত রয়েছেন। তাদের আড়াই বছরের দাম্পত্য জীবনে এখন কলহ ছাড়া কিছুই নেই। পুলিশের কাছে ওই নারী জানিয়েছেন, তিনি রাজধানীতে হাতিল ফার্নিচারের একটি শোরুমে কাজ করেন।

অন্যদিকে তার কথিত প্রেমিক রাজধানীর নাভানা ফার্নিচার শোরুমে কাজ করেন। ওই নারীর স্বামী জানান, তার স্ত্রী যখন নাভানা ফার্নিচার শোরুমে কাজ করতো তখন থেকেই তার পরকীয়া সম্পর্ক। বিভিন্ন সময়ে বান্ধবীর বাড়ি যাওয়ার কথা বলে প্রেমিকের সাথে ঘুরে বেড়ানোর অভিযোগ আনেন তিনি। দুদিন আগেও রাজশাহীতে বান্ধবীর বাড়ি আসার নাম করে প্রেমিকের সাথে হোটেল নাইস ইন্টারন্যাশনালের ৫০৩ নম্বর রুমে ওঠেন তার স্ত্রী।

বান্ধবীর বাড়ি গিয়ে একটি সেলফি তুলে স্বামীকে পাঠিয়ে তিনি জানান, তিনি বান্ধবীর বাড়িতেই আছেন। এদিকে তার স্বামী খুঁজতে খুঁজতে হোটেল নাইসে তাদের দুজনকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। দুপুরে সড়কের মধ্যে প্রকাশ্যে এই তিনজনের মারামারি দেখে এগিয়ে আসে স্থানীয়রা। তারা তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। পরে বোয়ালিয়া থানা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের নিয়ে যায়। থানায় গিয়ে ওই নারী জানান, তিনি তার স্বামীর সাথে থাকতে চান না।

বোয়ালিয়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম বলেন, মাঝরাস্তায় তিনজনের একেবারে বেগতিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। তাই টহল পুলিশ তাদের থানায় আনে। অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ এনে দুজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আর ওই নারীর স্বামীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বাকিটা এখন তাদের ব্যাপার।

ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে চাই: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

নির্বাচনের সময় জনগণের কাছে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ক্ষমতায় গিয়ে ভুলে যায়নি মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনা একেবারে তৃণমূল থেকে। বিশেষ করে আমাদের লক্ষ্যটা হলো আমরা যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছি তা বাস্তবায়ন করতে চাই।

রোববার (০৩ ‍জুলাই) মন্ত্রণালয়/বিভাগগুলোর ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর এবং ‘বার্ষিক কর্মসম্পাদন পুরস্কার ২০২২’ ও ‘শুদ্ধচার পুরস্কার ২০২২’ বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব বলেন তিনি।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, উন্নয়ন কাজের সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন সবাইকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আপনারা আন্তরিকতা নিয়ে কাজ করেছেন বলেই আমরা কাজটা করতে পেরেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের লক্ষ্যটা হলো আমরা যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছি সেটা আমরা বাস্তবায়ন করতে চাই। আমরা রাজনীতি করি, আমাদের দল আছে। আমরা যখন নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সময় একটা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নত দেশগুলো দেয়নি, আমরা বিনাপয়সায় সবাইকে করোনা টেস্ট ও ভ্যাকসিন দিয়েছি। বুস্টার ডোজও দেওয়া হচ্ছে। আমি আশা করি সবাই এ ভ্যাকসিন নেবেন।

এ সময় মুজিব বর্ষের গৃহনির্মাণ কর্মসূচির বাস্তবায়নের সঙ্গে জড়িতদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান সরকার প্রধান।

;

বিদেশ থেকে আনা ১৭ প্রাণী চিড়িয়াখানার দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানার জন্য নতুন করে ১৭টি প্রাণী বিদেশ থেকে আনা হয়েছে। কিন্তু কোয়ারেন্টাইন সময় ২১ দিন শেষ হওয়ার আগেই প্রাণীগুলো দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। কিন্তু নিয়মানুযায়ী কোয়ারেন্টাইন সময় পার হলেই দর্শনাথীদের জন্য উন্মুক্ত করতে হয়।

চিড়িয়াখানা সূত্র জানায়, দর্শনার্থীদের বিনোদনে নতুন মাত্রা যোগ করতে আফ্রিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে জাতীয় চিড়িয়াখানায় আনা হয়েছে সিংহ, পেনিক্যান, লামা ও উইল্ড বিস্ট।

এ বিষয়ে চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. মুজিবুর রহমান বার্তা২৪.কমকে জানান, আমরা সম্প্রতি বেশ কিছু প্রাণী হাতে পেয়েছি। তবে এগুলো এখন কোয়ারেন্টাইন সময় পার করছে। কিছু প্রাণী গ্রহণ করা হয়েছে। কিছু প্রাণী ঠিকাদারদের কাছ থেকে গ্রহণ করা হয়নি। কোয়ারেন্টাইন সময়ে কোনও প্রাণি মারা গেলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নতুন প্রাণী সরবরাহ করবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নতুন প্রাণীকে নিজেদের হাসপাতালে নিবির পরিচর্যা কেন্দ্রে না রেখে দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করা ঠিক হয়নি। এতে করে দর্শনার্থীরা বিরক্ত করলে নিজেদের মধ্যে মারামারিসহ অনাকাঙ্ক্ষিত বিপদ হতে পারে।

সূত্র আরও জানায়, গত ৩ জুন চার সিংহকে বুঝে নিয়েছে জাতীয় চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। আর তিনটি পেনিক্যান, চারটি লামা, দুটি ক্যাঙ্গারু ও তিনটি উইল্ডিবিস্টকে এখনেও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বুঝে নেওয়া হয়নি। গত ২৪ জুন এই প্রাণীগুলোকে শেডে দেওয়া হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী এদের ২১ দিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। এরমধ্যে কোনো ধরনের সমস্যা হলে সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এর দায়দায়িত্ব নেবে। ২১ দিন পর প্রাণীগুলোকে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বুঝে নেবে।

প্রতিটি লামা ৩ লাখ ৭৮ হাজার টাকা, পেনিক্যাল ২ লাখ ৪৪ হাজার টাকা, সিংহ ৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকা, ক্যাঙ্গারু ৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা আর উইল্ডিবিস্ট ৬ লাখ টাকায় সরবরাহ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১২ সালের মে মাস থেকে আগস্ট পর্যন্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ফেলকন ইন্টারন্যাশনাল ঢাকা চিড়িয়াখানার জন্য ৩০ প্রজাতির ২৩০টি প্রাণী সরবরাহ করেছিল। তখন প্রায় ৫ কোটি টাকার প্রাণী সংগ্রহ করা হয়েছিল।

;

গলায় জুতার মালা পরে শিক্ষক হেনস্তা ও হত্যার প্রতিবাদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
গলায় জুতার মালা পরে শিক্ষক হেনস্তা ও হত্যার প্রতিবাদ

গলায় জুতার মালা পরে শিক্ষক হেনস্তা ও হত্যার প্রতিবাদ

  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারে আশুলিয়ায় শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে পুলিশের সামনে শিক্ষককে হেনস্তার ঘটনায় গলায় জুতার মালা পরে প্রতিবাদ জানিয়েছেন চট্টগ্রামের এক স্কুলশিক্ষক।

শনিবার (২ জুলাই) শহরের আন্দরকিল্লা মোড়ে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির (বিটিএ) আয়োজিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে তিনি এই প্রতিবাদ জানান।যদিও রোববার তিনি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ছবিতে দেখা যায়, এক শিক্ষকের গলায় ঝুলানো ছিল কয়েকটি জুতা এবং ‘শিক্ষক শিক্ষাগুরু মনিষী কথন, শিক্ষক বিহনে শিক্ষা নহে কদাচন’ বাণী লেখা একটি ফেস্টুন।

ওই শিক্ষকের নাম শেখর ঘোষ। তিনি বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি রাউজানের (দক্ষিণ) যুগ্ম সম্পাদক ও রাউজান মহামুনি এংলো-পালি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

এমন ভিন্নধর্মী প্রতিবাদ সম্পর্কে মোবাইল ফোন জাইতে চাইলে শিক্ষক শেখর ঘোষ বলেন, শিক্ষকদের জাতির বিবেক বলা হয়। বিভিন্ন থানায় ওসি, এসপি হিসেবে যারা আছেন তারাও কোনো না কোনো শিক্ষকের ছাত্র। তাদের সামনে যদি কোনো শিক্ষককে জুতার মালা পরানো হয়, এটা তো মেনে নেওয়া যায় না। এটা শিক্ষকের গলায় না, পুরো জাতির গলায় জুতার মালা পরানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, আরেকজন শিক্ষককে তারই ছাত্র পিটিয়ে হত্যা করেছে। শিক্ষক হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই এসব আমি মেনে নিতে পারি না। আমার হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে এসব দেখে। তাই শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে গলায় জুতার মালা পরে আমার এই প্রতীকী প্রতিবাদ।

;

‘পাচার অর্থ ফেরাতে দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন’



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চাঁদপুর
দুদক মহাপরিচালক মো. মাহমুদুল হোসাইন খান

দুদক মহাপরিচালক মো. মাহমুদুল হোসাইন খান

  • Font increase
  • Font Decrease

পাচার হওয়া অর্থ ফিরিয়ে আনতে দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মহাপরিচালক মো. মাহমুদুল হোসাইন খান।

রোববার (০৩ জুলাই) সকালে দুদকের চাঁদপুর জেলার সমন্বিত কার্যালয়ের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

দুদক মহাপরিচালক বলেন, বিদেশে পাচার করা অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনতে মানি লন্ডারিং আইন অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। যেহেতু, অর্থগুলো দেশের বাইরে পাচার হচ্ছে, তার সঙ্গে বিদেশি রাষ্ট্রগুলো জড়িত, সে ক্ষেত্রে দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর কাছে পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিস্টেন্স রিকুয়েস্ট (এমএলএআর) পাঠাই। যদি বিদেশি রাষ্ট্রগুলো সঠিক তথ্য দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করে, তাহলেই আমাদের পক্ষে সম্ভব এ টাকাগুলো উদ্ধারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা। আমরা সে চেষ্টাই করছি।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, দুদকের চাঁদপুর জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জালাল উদ্দিন আহাম্মদ, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলন প্রমুখ।

;