গাইবান্ধায় হিংস্র প্রাণীর আক্রমণে আহত ৯



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, গাইবান্ধা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

গাইবান্ধা শহরের কলেজপাড়ায় অচেনা এক হিংস্র প্রাণীর আক্রমণ করছে মানুষের ওপর।

শুক্রবার (২৭ মে) সকালে এই প্রাণীর আক্রমণে ওই এলাকার অন্তত ৯ জন আহত হয়েছেন। আহতদের অনেকেই প্রাণীটিকে ‘পাগলা কুকুর’ বলে ধারণা করেছেন।

আহতরা হলেন- পৌর শহরের কলেজপাড়ার বাসিন্দা মো. আরশাদ মিয়া, গাইবান্ধা সরকারি কলেজের নৈশপ্রহরী অসীম কুমার সরকার শংকর, মৎস্যজীবী (জেলে) নেপাল দাস, রিকসাচালক ঝন্টু, কলেজপাড়া জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি আব্দুল মজিদ মাস্টার এবং ঝালাইকর ও স্থানীয় একটি মাদ্রাসার শিক্ষকসহ দু’জন পথচারী।

এরমধ্যে মো. আরশাদ মিয়া (৬৫) নামের আহত একজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান তার স্বজনরা।

স্থানীয়রা জানান, আজ সকাল ৬টা থেকে সাড়ে ৭টার মধ্যে মুসল্লি, জেলে, মাদ্রাসা শিক্ষক, গাইবান্ধা সরকারি কলেজের নৈশপ্রহরী, রিক্সাচালক, ঝালাইকর এবং প্রাত:ভ্রমণে বের হওয়া স্থানীয় বাসিন্দাসহ ৯ জন প্রাণীটির আক্রমণে আহত হয়েছেন।

তারা অভিযোগ করে বলেন, ইদানীং এই এলাকায় বেওয়ারিশ কুকুরের অবাধ বিচরণ দেখা যাচ্ছে। ভোর থেকে শুরু হয় কুকুরের উৎপাত। কুকুরের ঘেউ ঘেউ শব্দে ফজরের নামাজ পড়াও দায় হয়ে পড়েছে। কুকুরের বিশৃঙ্খল দৌঁড়াদৌড়ি প্রাত:ভ্রমণকারীদের হাঁটাহাঁটিতে বিঘ্ন ঘটায়। স্কুলগামী শিশু এবং নারীরা কুকুরের ভয়ে আতঙ্কগ্রস্ত থাকেন। তারা বেওয়ারিশ কুকুর সরিয়ে নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কার্যকর উদ্যোগ কামনা করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা হাবিবুজ্জামান রঞ্জু বলেন, সকালে বাড়ির সামনে লোকজনের হৈ-হট্টোগোল শুনে বেরিয়ে এসে হিংস্র প্রাণীর আক্রমণে পাড়ার ৯ জন আহত হওয়ার খবর জানতে পারি। আহতদের মধ্যে প্রতিবেশী মো. আরশাদ মিয়াকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বজনরা। তিনি জানান, এ ঘটনায় এলাকার মানুষের মধ্যে এখন আতঙ্ক বিরাজ করছে।

আহতরা বলছেন, কুকুরের মতো দেখতে লাল ও সাদা রঙের মিশ্রনে ধারালো দাঁতের ছোটখাট গড়নের প্রাণীটি ভীষণ হিংস্র এবং ক্ষিপ্র গতি সম্পন্ন। তবে আহত অনেকেই এটিকে একটি কুকুর হিসেবেই ধারণা করেছেন।

প্রাণীটির আক্রমণের শিকার অসীম কুমার সরকার শংকর জানান, সকালে প্রাত:ভ্রমণের জন্য বাড়ি থেকে বের হলে, পাড়ার একটি রাস্তায় প্রাণীটির আক্রমণের শিকার হন তিনি। তবে প্রাণীটিকে একটি ‘পাগলা কুকুর’ বলে জানান তিনি।

গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. শর্মিষ্ঠা রানী বর্মনজানান, শুক্রবার সকাল থেকে সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত শতাধিক ব্যক্তিকে জলাতঙ্কের ইনজেকশন, ক্ষতস্থান ড্রেসিংসহ প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছেন তারা। এদের মধ্যে পৌর এলাকার কলেজপাড়া ও আর্দশপাড়া এলাকার বাসিন্দা রয়েছেন অন্তত ৪০ জন।

শাক-সবজি উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ দশে বাংলাদেশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
শাক-সবজি উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ দশে বাংলাদেশ

শাক-সবজি উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ দশে বাংলাদেশ

  • Font increase
  • Font Decrease

কৃষি মন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশ গত এক দশকে কৃষি ক্ষেত্রে স্বনির্ভরতা ও উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে এবং বিভিন্ন শস্য ও শাক-সবজি উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় স্থান পেয়েছে।

নেদারল্যান্ডসের হ্যাগে অনুষ্ঠিত ৬ মাস ব্যাপি ‘ফ্লোরিয়াডে এক্সপো ২০২২’ তে যোগদান করতে গিয়ে শুক্রবার  বাংলাদেশ ভবনে গবেষণা বিষয়ক ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড.সুকে হিমোভারার সাথে  বাংলাদেশের কৃষি  রুপান্তর  বিষয়ে আলোচনাকালে এ কথা বলেন।

আজ ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ওয়াগেনিংগেন বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ কৃষি গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে স্বীকৃত। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কৃষি পণ্যের জাত উন্নয়ন ও উন্নততর কৃষি-প্রযুক্তি উদ্ভাবনের জন্য ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে নিয়মিতভাবে প্রায়োগিক গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করে।


বৈঠকে নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মু. রিয়াজ হামিদুল্লাহ বাংলাদেশের কৃষি গবেষণামূলক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ গবেষণামূলক প্রকল্প চালুর বিষয়টি উত্থাপন করলে ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট প্রস্তাবকে স্বাগত জানান।

কৃষিমন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্টকে বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যানের কৃষি ক্ষেত্রকে বৃহত্তর অবস্থানে তুলে ধরার বিষয়ে আলোচনা করেন এবং বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

কৃষি মন্ত্রী ড. সুকে-কে ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাকে অভিনন্দন জানান।

কৃষিমন্ত্রী ড. রাজ্জাক বাংলাদেশের কৃষি ক্ষেত্রে উন্নত প্রযুক্তি ও গবেষণালব্ধ ফলাফল প্রয়োগের মাধ্যমে বিভিন্ন শস্য ও পণ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি, শস্য বহুমুখীকরণ, কৃষিজাত পণ্য সংরক্ষণ ও আধুনিক উপায়ে বাজারজাতকরণ ও জলবায়ু পরিবর্তন জনিত অভিযোজন সংক্রান্ত প্রায়োগিক গবেষণার বিষয়ে আলোচনা করেন।

;

কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার

কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থেকে স্থানীয় কাউন্সিলর নুরুল আমিনের পূত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২ জুলাই) মধ্যম সরাইপাড়ার আমিন ভবন থেকে মারদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত ২২ বছর বয়সী রেহনুমা ফেরদৌস ওই এলাকার নওশাদ আমিনের স্ত্রী এবং সরাইপাড়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুরুল আমিনের পুত্রবধূ। এছাড়াও নিহতের বাবা তারেক ইমতিয়াজ ইমু আলকরন ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি।

পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমরা সকালে নিজ বাসার খাটে মরদেহটি পেয়েছি। নিহতের গলায় ওড়না পেছানো ছিলো, তবে শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। শ্বশুরপক্ষের দাবি তিনি আত্মহত্যা করেছেন। নিহতের পরিবার থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।’

মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি মোস্তাফিজুর।

এদিকে নিহত রেহনুমাকে বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে যৌতুক সহ বিভিন্ন কারণে মানসিক নির্যাতন করা হতো বলে দাবি পরিবারের।

রেহনুমার বাবা তারেক ইমতিয়াজ বলেন, ‘তারা বিয়ের পর থেকে যৌতুক সহ বিভিন্ন কারণে আমার মেয়েকে মামসিক নির্যাতন করতো। কয়েকবার পারিবারিক ভাবে বৈঠক করে এটা সমাধানের চেষ্টা করেছি আমরা। এমনকি ইদের তিনদিন পর সর্বশেষ বৈঠকটা করেন নাছির ভাই (সাবেক সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক)। তারপরও ওরা আমার মেয়েকে নির্যাতন করতো। এটা পরিকল্পিত হত্যা,  আমরা মামলা করবো।’

এ ব্যাপারে কথা বলতে নিহতের শ্বশুর কাউন্সিলর নুরুল আমিনের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাড়া পাওয়া যায়নি।

;

রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের দ্বি- বার্ষিক কমিটি গঠন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের দ্বি- বার্ষিক কমিটি গঠন

রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের দ্বি- বার্ষিক কমিটি গঠন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ীর সবচেয়ে জনপ্রিয় মানবিক সংগঠন রাজবাড়ী হেল্পলাইলন ফাউন্ডেশনের ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট দ্বি বার্ষিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এতে রংপুর গণপূর্ণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ্ আল মামুন রনিকে সভাপতি এবং বেথুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আফরোজা বানু মিথুনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে।

শনিবার (২ জুলাই) প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কমিটি গঠনের বিষয়টি রাজবাড়ী হেল্পলাইনের নব-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক আফরোজা বানু মিথুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কার্যনিবাহী কমিটির প্রধান উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম মতিউর রহমান। কমিটির অনান্য উপদেষ্টারা হলেন-ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উইমেন সার্পোট এন্ড ইনভেস্টিগেশন বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হামিদা পারভীন পিপিএম, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক (শিশু) ডা. খালিদ আহম্মেদ সাইফুল্লাহ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ডেপুটি কমিশনার আরজিনা খাতুন, পুলিশ সুপার মো. মশিউদ্দৌলা রেজা পিপিএম, গাজীপুর জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান।

কার্যনির্বাহী কমিটির সহ সভাপতি হলেন- ডা. নুরুল ইসলাম আযম, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম সবুজ, কোষাধ্যক্ষ আল মামুন।

কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- মো. কামরুজ্জামান খান সুইট, মো. রাতুল হাসান, মোহাম্মদ সোহেল মিয়া, ডা. শরীফ ইসলাম, ডা.শরিফুল ইসলাম, খ. ম মুহতাশিম মাহমুদ হাসিব, ডা. নিশাদ আলমগীর ও মোহম্মদ সোলায়মান হোসেন হিমেল।

কমিটির সাধারণ পরিষদের সদস্যরা হলেন- উত্তম কুমার গোস্বামী, মো. শিপন আলম, মো. আসিফ আল মামুন, ডা. আফরোজা আক্তার রুমি, মিল্টন কুমার দেব দাস, মো. জাকির হোসেন, মাসুদুর রহমান রুবেল, ডা. মো. এনামুল হক, মো. আনোয়ার হোসেন, মো. মিলন হাসান, মো. মিজানুর রহমান, মো. সুজন মাহমুদ, ডা. আহমেদ আমীমুল ইসলাম (কুশল), মো. জুয়েল রানা, মো.ফরিদুজ্জামান,  রাকিবুজ্জামান মামুন, পিয়াস শিকদার, মো. আবিদ হাসান, মো. রনি আহমেদ, মো. রবিউল ইসলাম, মো. ইউনুছুর রহমান,  মো. সালমান শেখ, জেসমিন আক্তার, তানজিয়া মেহজাবিন, মো. আব্দুল্লাহ আল নোমান. আবু নাঈম নয়ন, নাজমিন আক্তার, শাহাদাত হোসেনে, ফারিয়া সুলতানা, শাকিল মাহমুদ, নূরে জান্নাত সুজানা, আজমীর হোসাইন।

নব-নির্বাচিত সভাপতি আল মামুন রনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, করোনাকালীন সময়ে ২০২০ সালে ক্যাপ্টেন ডাঃ সুমন হুসাইনের হাতে যাত্রা শুরু হয় মানবিক সংগঠন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের। সেই সময়ে করোনা মহামারীর মধ্যে যেভাবে ফাউন্ডেশনটি কাজ করেছে রাজবাড়ীবাসীর জন্য তা সবার কাছে দারুণ ভাবে প্রশংসিত হয়েছিল। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো এই সংগঠনটি যেভাবে কাজ শুরু করেছিলো, তা এখনো দারুণ ভাবে চলমান রয়েছে। রাজবাড়ীর কিছু মানবিক মানুষের সহায়তা ও দিক নির্দেশনায় সংগঠনটি রাজবাড়ীর অসহায় মানুষের কাছে একটি আস্থার জায়গা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আরো সুন্দরভাবে ফাউন্ডেশনের অগ্রযাত্রা ত্বরান্বিত করে রাজবাড়ীর শিক্ষা, সেবা ও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে এই সংগঠনটি নিরলস ভাবে কাজ করে যাবে।

;

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা দীপ হত্যার বিচার চাইলেন বাবা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রীর কাছে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা দীপ হত্যার বিচার চাইলেন বাবা

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা দীপ হত্যার বিচার চাইলেন বাবা

  • Font increase
  • Font Decrease

 

আরিফ রায়হান দীপ বুয়েটের যন্ত্রকৌশল বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক ছিলেন দীপ। মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিপক্ষে সোচ্চার হওয়ায় ২০১৩ সালের ৯ এপ্রিল বুয়েটের নজরুল ইসলাম হলে দীপ'কে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে বুয়েটের ধর্মান্ধ মৌলবাদী ছাত্র মেজবাহ উদ্দিন। হাসপাতালে ৮৪ দিন কোমায় থাকার পরে একই বছরের ২ জুলাই মৃত্যুবরণ করেন দীপ।

এরপর থেকে ২ জুলাই কে 'শহীদ আরিফ রায়হান দপ দিবস' হিসেবে পালন করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। এ উপলক্ষে শনিবার (০২ জুলাই) বুয়েটের নজরুল ইসলাম হলে স্থাপিত দীপের ভাষ্কর্যে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ও বুয়েট ছাত্রলীগের প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ। এসময় সেখানে দীপের বাবার উপস্থিতিতে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

এছাড়াও বিকেলে বুয়েট ছাত্রলীগের প্রাক্তন নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে দীপের স্মৃতিতে ভার্চুয়াল স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভার্চুয়াল আলোচনায় আরিফ রায়হান দীপের বাবাও অংশ নেন।

তিনি বলেন, 'বুয়েটে গেলে দীপের ঘ্রাণ পাই এখনো। দীপকে কবর দিয়েছি ঠিকই কিন্ত আমার দীপ জেগে আছে ছাত্রলীগের আরো হাজার সন্তানের বুকে। আক্ষেপ একটাই- সুষ্ঠু বিচারের জন্য আমি এখনো দ্বারে দ্বারে ঘুরছি। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার সন্তানের হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।

ভার্চুয়াল স্মরণ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বুয়েটের সাবেক ছাত্রনেতা খন্দকার মঞ্জুর মোর্শেদ, এস এম মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, আতাউল মাহমুদ, মনিরুজ্জামান মোহন, কাজী খায়রুল বাশার, হাবিব আহমেদ হালিম মুরাদ, মনিরুজ্জামান মনির, রনক আহসান, তন্ময় আহমেদ, রোদসী আলমগীর, এম এ সাইদ, তানভীর মাহমুদুল হাসান, ইমরান খান, ইমরুল কায়েস রাফি, জয় প্রকাশ, আরিফুর রহমান, সফিউল আলম, তরফদার মাহমুদ, মুন্সী আব্দুস সালেক প্রমুখ। বক্তারা মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হওয়ার জন্য আহবান জানান।

;