যমুনার পানি বিপৎসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার ওপরে



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

উজানের পাহাড়ি ঢলে হু-হু করে বাড়ছে সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি। সিরাজগঞ্জের দুটি পয়েন্টে যমুনার পানি বিপৎসীমার অনেক ওপর দিয়ে প্রবাহিত
হচ্ছে। এতে অভ্যন্তরীণ নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে চরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হচ্ছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা।

বর্তমানে যমুনার পানি কাজিপুর পয়েন্টে ৫৪ সেন্টিমিটার ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে ৪৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার (২১ জুন) সকালে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ১২ ঘণ্টায় কাজীপুর মেঘাই ঘাট পয়েন্টে ৬ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে
প্রবাহিত হচ্ছে (বিপৎসীমা ১৫ দশমিক ৭৩ সেন্টিমিটার)।

এছাড়া শহরের হার্ডপয়েন্ট এলাকায় যমুনার পানি ১০ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৪৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। (বিপৎসীমা ১৩ দশমিক ৭৪ সেন্টিমিটার)।

বন্যার পানি বৃদ্ধির ফলে অভ্যন্তরীণ নদী করতোয়া, ফুলজোড়, বড়াল, হুড়াসাগর, ইছামতী নদীসহ চলনবিলে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে।

অন্যদিকে, পানি বৃদ্ধির ফলে প্রতিদিনই নদীপাড়ের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। একারণে নিম্নাঞ্চলের অনেকেই বাঁধ ও উঁচুস্থানে নির্মাণাধীন ভবন ও খোলা আকাশের নিচে ঠাঁই নিচ্ছেন। ঘর-বাড়িতে পানি ওঠায় বাঁধ ও বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন পার করছেন তারা। এছাড়া অনেকেই রাস্তার পাশে নির্মাণ করেছেন অস্থায়ী ছাপরা ঘর।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম জানান, যমুনার পানি বিপদৎসীমার অনেক ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আগামী ২২ ও ২৩ জুন পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে। এরপর পানি কমবে। এখনো বন্যার আশঙ্কাজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি।

এদিকে, যমুনায় পানি বৃদ্ধির ফলে জেলার কাজীপুর, চৌহালী, এনায়েতপুর ও শাহজাদপুরের চরাঞ্চলে দেখা দিয়েছে তীব্র নদী ভাঙন। ভাঙন এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। তবে বন্যায় ভাঙন রোধসহ যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছে তারা বলে জানিয়েছেন।

ইভিএমে ভোট কারচুপি করা সম্ভব: বদিউল আলম মজুমদার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট কারচুপি করা সম্ভব মন্তব্য করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার।

তিনি বলেন, ইভিএম নিকৃষ্ট যন্ত্র। বিগত নির্বাচনে দেখা গেছে, ইভিএম ব্যবহারে ভোটের হার কমেছে। তাই বলা যায়, যে যন্ত্র মানুষের ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত করে, সে যন্ত্র ব্যবহারের যৌক্তিকতা নেই।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে নবনির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের বিষয়ে তথ্য বিশ্লেষণ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, অনেকেই ইভিএম ডাকাতির কথা বলছেন। আমি মনে করি, ইভিএমে আরও বড় ধরনের ডাকাতির কবলে পড়ার শঙ্কা রয়েছে। কেননা নির্বাচন কেন্দ্রে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের ইভিএমে ওভাররাইটিং করার সুযোগ রয়েছে। যার মাধ্যমে ইভিএমে ডাকাতির বড় সুযোগ রয়েছে। এছাড়া যারা সফটওয়্যার চালান তাদের মাধ্যমে জালিয়াতির সুযোগ তো রয়েছেই।

ইভিএম ব্যবহারে ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ইভিএমে অনেক ত্রুটি রয়েছে। প্রয়াত জামিলুর রেজা চৌধুরীও ইভিএম সমর্থন করেননি। তাই এটি ব্যবহারের বিষয়ে ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহারের আচরনবিধি লঙ্ঘনের কথা উল্লেখ করে বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তারা চুনোপুঁটিদের আচরণবিধি মানানোর বিষয়ে কঠোর হলেও রাঘববোয়ালদের বিষয়ে কঠোর হতে ব্যর্থ হয়েছে।

অনুষ্ঠানে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফল নিয়ে সুজনের বিশ্লেষণ তুলে ধরেন সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক দিলিপ কুমার সরকার। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। জনগণ চায় এই নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক, অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ হোক। তাই নির্বাচন কমিশনের ওপর রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা না ফিরলে, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন কখনোই সম্ভব নয়।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ড. রোবায়েদ ফেরদৌস ও সুজনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য একরাম হোসেন।

;

হেনোলাক্স গ্রুপের মালিক ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যবসায়ী গাজী আনিসকে আত্মহত্যা প্ররোচণার অভিযোগে হেনোলাক্স গ্রুপের মালিক নুরুল আমিন ও তার স্ত্রী ফাতেমা আমিনের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মঙ্গলবার (৫ জুলাই) দুপুরে শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) গোলাম হোসেন খান জানান, গাজী আনিসের ভাই নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে এই দুজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি।

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ব্যবসায়ী গাজী আনিস। পরে তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে সন্ধ্যায় তাকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়। কিন্তু আজ সকাল সোয়া ছয়টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

সোমবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন গাজী আনিস। খবর পেয়ে শাহবাগ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করে।

গাজী আনিস কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ঠিকাদারির ব্যবসা করতেন বলে জানা গেছে। তিনি কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সাবেক সভাপতি। ১৯৯৩ সালে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ছিলেন তিনি। গাজী আনিস কুষ্টিয়া শহরে ভাড়া বাসায় থাকতেন। তার পরিবার যশোরে থাকেন।

;

বিমানের দুই বোয়িংয়ের সংঘর্ষের ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুই উড়োজাহাজের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা তদন্ত করতে কমিটি করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার (৫ জুলাই) ৪ সদ্যসের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিমান ও সিএ) মো. মহিদুল ইসলামকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটিতে আরও আছেন— মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব (বিমান ও সিএ) মো. নজরুল ইসলাম সরকার, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের উপপরিচালক (এয়ারওয়ার্দিনেস স্টান্ডার্ড) আব্দুল কাদের ও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উপমহাব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসেন।

জানা গেছে, রোববার (৩ জুলাই) বিমানের সুপরিসর বোয়িং ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজটি সিঙ্গাপুর থেকে এসে সন্ধ্যায় শাহজালালে অবতরণ করে। রাত ৯টা ২০ মিনিটে উড়োজাহাজটি নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হ্যাঙ্গারে নিয়ে যাওয়ার সময় এই ঘটনা ঘটে। সেখানে আগে থেকে রাখা বোয়িং ৭৩৭ এর বাম পাশের ডানায় সঙ্গে ড্রিমলাইনারের ডান পাশের ডানা আঘাত করে।

এর আগে, গত ১০ এপ্রিল বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে বিমানের একটি বোয়িংয়ের আরেকটি বোয়িংয়ের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে দুটো উড়োজাহাজই কিছু দিনের জন্য বসে যায়। সে ঘটনায় গত ১১ মে বিমানের মুখ্য (প্রিন্সিপাল) প্রকৌশলীসহ পাঁচজনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

;

রংপুরে ট্রাক-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরে ড্রাম ট্রাক ও অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক শিশুসহ অন্তত ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে রংপুর-সুন্দরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের সরেয়ারতল নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম জানা না গেলেও তাদের সকলের বাড়ি সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেলকা এলাকায় বলে জানা গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, চৌধুরাণী থেকে একটি অটোরিকশায় করে ৮ যাত্রী রংপুরের দিকে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে সরেয়ারতল নামক স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ড্রাম ট্রাক অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আহতদের উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরও একজনের মৃত্যু হয়।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের মাহিগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দুর্ঘটনায় হতাহতদের পরিচয় নিশ্চিতের চেষ্টা চলছে। তবে সকলের বাড়ি সুন্দরগঞ্জের বেলকা এলাকায় বলে জানা গেছে। তারা চিকিৎসার জন্য একজন রোগীকে নিয়ে অটোরিকশা যোগে রংপুরে যাচ্ছিল।

;