কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার

কাউন্সিলরের বাসা থেকে পুত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থেকে স্থানীয় কাউন্সিলর নুরুল আমিনের পূত্রবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২ জুলাই) মধ্যম সরাইপাড়ার আমিন ভবন থেকে মারদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত ২২ বছর বয়সী রেহনুমা ফেরদৌস ওই এলাকার নওশাদ আমিনের স্ত্রী এবং সরাইপাড়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুরুল আমিনের পুত্রবধূ। এছাড়াও নিহতের বাবা তারেক ইমতিয়াজ ইমু আলকরন ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি।

পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমরা সকালে নিজ বাসার খাটে মরদেহটি পেয়েছি। নিহতের গলায় ওড়না পেছানো ছিলো, তবে শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। শ্বশুরপক্ষের দাবি তিনি আত্মহত্যা করেছেন। নিহতের পরিবার থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।’

মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি মোস্তাফিজুর।

এদিকে নিহত রেহনুমাকে বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে যৌতুক সহ বিভিন্ন কারণে মানসিক নির্যাতন করা হতো বলে দাবি পরিবারের।

রেহনুমার বাবা তারেক ইমতিয়াজ বলেন, ‘তারা বিয়ের পর থেকে যৌতুক সহ বিভিন্ন কারণে আমার মেয়েকে মামসিক নির্যাতন করতো। কয়েকবার পারিবারিক ভাবে বৈঠক করে এটা সমাধানের চেষ্টা করেছি আমরা। এমনকি ইদের তিনদিন পর সর্বশেষ বৈঠকটা করেন নাছির ভাই (সাবেক সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক)। তারপরও ওরা আমার মেয়েকে নির্যাতন করতো। এটা পরিকল্পিত হত্যা,  আমরা মামলা করবো।’

এ ব্যাপারে কথা বলতে নিহতের শ্বশুর কাউন্সিলর নুরুল আমিনের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাড়া পাওয়া যায়নি।

বঙ্গোপসাগরে ৫ ট্রলারডুবি, নিখোঁজ ১৬ জেলে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে ঝড়ের কবলে পড়ে পাঁচটি মাছধরা ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার (১৯ আগস্ট) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বঙ্গোপসাগরের বিভিন্ন পয়েন্টে এ ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় ৫৪ জেলে উদ্ধার হলেও এখনও নিখোঁজ আছেন অন্তত ১৬ জেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মহিপুর মৎস্য আড়ত মালিক সমিতির সভাপতি ও মহিপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ফজলু গাজী বলেন, আজ সকালে ঝড়ের কবলে পড়ে দু’টি ও বিকেলে ঝড়ের কবলে পড়ে আরও তিনটি মাছধরা ট্রলার পায়রা বন্দরের শেষ বয়া থেকে বেশ কয়েক কিলোমিটার দূরে ডুবে গেছে। ডুবে যাওয়া ট্রলারে ১৬ জন জেলে ছিলেন বলে জানান তিনি। তারা সবাই নিখোঁজ রয়েছেন।

নিজামপুর কোস্টগার্ডের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার সেলিম মণ্ডল বলেন, সাগরে ট্রলারডুবির খবর পেয়েছি। আমাদের টহল টিম সাগরে আছে এবং উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

 

;

‘গণজাগরণের ক্ষেত্রে সম্প্রীতি বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে’



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আলোচনা সভা

আলোচনা সভা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সামাজিক, সাংস্কৃতিক, গণজাগরণ সমানভাবে ঘটাতে না পারলে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো বাধাগ্রস্ত হবে। গণজাগরণ সৃষ্টির ক্ষেত্রে সম্প্রীতি বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সম্প্রীতি বাংলার দৃষ্টান্ত বিশ্বমাঝে তুলে ধরতে পারলে বিশ্ববাসীর যথাযথ উপকার হবে বলে মত প্রকাশ করেছেন বক্তরা।

শুক্রবার (১৯ আগস্ট) বিকাল ৪টায় সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সম্প্রীতি বাংলাদেশ আয়োজিত ‘আগস্ট: শোকের মাস, ষড়যন্ত্রের মাস’ শীর্ষক আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

সম্প্রীতি বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় আহবায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা ছিলেন শহীদ জায়া শিক্ষাবিদ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী।

শিক্ষাবিদ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শ সর্বোচ্চ পর্যায়ে অনুসরণ না করতে পারলে, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে বাহাত্তরের সংবিধানে বর্ণিত ধর্ম নিরপেক্ষতাকে বিনষ্ট করার ক্ষেত্রে যে অপশক্তি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অবিরত ষড়যন্ত্র করে চলেছ, তাদের বিরুদ্ধে দল মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তিনি আরও বলেন, সম্প্রীতি বাংলাদেশের মত সংগঠনের পাশে সকল অসাম্প্রদায়িক সংগঠন এবং মানুষের শক্তভাবে দাঁড়াতে হবে।

পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনে অন্যতম উপাদান ছিল মানবকল্যাণ, সামাজ কল্যাণ, বাঙালির জয়যাত্রা এবং সমৃদ্ধ সোনার বাংলার স্বপ্ন। একই সঙ্গে বাঙালির হাজার বছরের সংস্কৃতি তিনি লালন করতেন তার জীবনাচারে। সম্প্রীতি বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর জীবন দর্শনের এই বৈশিষ্ট্যগুলোকে ধারণ করে পথ চলা শুরু করেছে এবং সম্প্রীতি বাংলাদেশের এই পথ চলা ততদিন পর্যন্ত চলবে, যতদিন পর্যন্ত বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শতভাগ অসাম্প্রদায়িক না করা যাবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সমাজে সাম্প্রদায়িকতার, ভাতৃত্বের, সকল প্রকার বৈষম্যের শত্রুকে উপরে ফেলে বাংলাদেশকে একটি সুখী, সমৃদ্ধ, অসাম্প্রদায়িক এবং সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ে তোলার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সম্প্রীতি বাংলাদেশ নিরলসভাবে কাজ করে যাবে। অসাম্প্রদায়িক ও সম্প্রীতির সমাজ গঠনের মাধ্যমেই শোধ হবে পিতৃঋণ।

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই প্রতিষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ এবং দর্শন।

সম্প্রীতি বাংলাদেশের সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল বলেন, সিলেট অঞ্চল সম্প্রীতির পিঠস্থান। শত শত বছর ধরে এই অঞ্চলের মানুষ সম্প্রীতির বন্ধনে শ্রদ্ধাশীল। সিলেটের সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত দেশে বিদেশে সবখানেই সুপরিচিত এবং প্রতিষ্ঠিত। সম্প্রীতি বাংলাদেশের কার্যপরিধি সিলেটের মানুষের মাঝে পৌঁছে দিতে পারাটা সংগঠনের জন্যে একটি বিশাল প্রাপ্তি হবে। এ ব্যাপারে স্থানীয় পর্যায়ের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষা এবং তরুণ প্রজন্মকে সম্প্রীতি বাংলাদেশের ছায়াতলে এসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং হাজার বছরের বাঙালির ঐতিহ্যকে প্রতিষ্ঠা করবার জন্য আহবান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- সিলেট মহানগর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দীন খান সহ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ছাত্র, যুব, মহিলা নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, স্থানীয় বুদ্ধিজীবী, ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ এবং তরুণ প্রজন্মের দর্শক উপস্থিত ছিলেন।

;

জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে অনশন কর্মসূচি পালন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে অনশন কর্মসূচি পালন

জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে অনশন কর্মসূচি পালন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর গুলশানের নিকেতনে বসবাসকারী রাষ্ট্রের একজন সাধারণ নাগরিক ডা. দলিলুর রহমান নিজ বাসার ছাদে জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে অনশন কর্মসূচি পালন করেছেন।

শুক্রবার (১৯ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অনশন কর্মসূচি পালন করেন তিনি।

অনশনকালে ডা. দলিলুর জানান, হঠাৎ করে  জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতির কারণে মানুষের জীবনযাত্রা ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিশেষ করে ন্যূনতম খাবার কিনতে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে নাভিশ্বাস বিরাজ করছে।

তিনি বলেন, দেশের মানুষকে বাঁচাতে, জীবনমানের অবনমন ঠেকাতে জ্বালানি তেলের দাম কমাতে হবে। দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে আনতে হবে। পাশাপাশি পাচার করা সাড়ে ছয় লাখ কোটি টাকা দেশে ফেরত আনতে হবে।

সন্ধ্যায় অনশন শেষ করে তিনি জানান, দাম না কমালে প্রেসক্লাব, ঢাবি, শহীদ মিনার, শাহবাগসহ বিভিন্ন স্থানে প্রতীক অনশন শুরু করবেন তিনি।

;

লক্ষ্মীপুরে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুরে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

লক্ষ্মীপুরে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে পূজা উদযাপন পরিষদের আয়োজনে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে পৌর শহরের শ্যাম সুন্দর জিউর আখড়া প্রাঙ্গণ থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মন্দির প্রাঙ্গণ এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় সনাতন সম্প্রদায়ের নারী পুরুষরা বিভিন্ন ব্যানার ফেষ্টুন নিয়ে অংশগ্রহণ করেন।

এরআগে শ্যাম সুন্দর জিউর আখড়ায় আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলা প্রশাসক মোঃ আনোয়ার হোসাইন আকন্দ এর সভাপতিত্বে

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য এড. নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর মজুমদারের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান পিপিএম সেবা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ গোলাম ফারুক পিংকু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ কান্তি নাথ, পৌর মেয়র মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূঁইয়া, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম সালাহ উদ্দিন টিপু, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক ডাঃ আশফাকুর রহমান মামুন প্রমুখ।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এড. শৈবাল কান্তি সাহা, পূজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এড. জহর লাল ভৌমিক, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের জেলা সভাপতি এড. রতন লাল ভৌমিক, সাধারন সম্পাদক স্বপন দেবনাথ, যুব ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শিমুল সাহা, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সদর উপজেলা সভাপতি শিপন মজুমদার, মহিলা ঐক্য পরিষদের সভাপতি বনশ্রী পাল,  সাধারন সম্পাদক বানু নাগ, যুব ঐক্য পরিষদের জেলা সভাপতি রাজ বিজয় চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক ঝুটন কুরী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান উৎসব। হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষেরা মহা আনন্দে এ উৎসব পালন করে থাকেন। ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনার্থে সকল ধর্মের মানুষকে নিজ নিজ ধর্ম ও জীবন দর্শনের চর্চা আয়ত্ব করার প্রয়োজন। তাতে আমাদের মনের গভীরে জমে থাকা হিংসা, লোভ, অসততা দূর করে একজন পরিপূর্ণ মানুষ হতে সাহায্য করবে।

এছাড়া জন্মাষ্টমী উপলক্ষে গীতাযজ্ঞ, শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে চিত্রাংকন প্রতিযোগি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

;