সহসা কমছে না বিদ্যুতের লোডশেডিং!



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সহসা কমছে না বিদ্যুতের লোডশেডিং!

সহসা কমছে না বিদ্যুতের লোডশেডিং!

  • Font increase
  • Font Decrease

গরমে যখন দেশের মানুষের ত্রাহী অবস্থা তখন সারাদেশ থেকেই বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের খবর পাওয়া যাচ্ছে। অনেক জায়গায় দিনে ও রাতে দফায় দফায় লোডশেডিংয়ের খবর পাওয়া যাচ্ছে। পাবনা থেকে একজন তার ফেসবুকে লিখেছেন পনের দফায় লোডশেডিংয়ের কথা।

হঠাৎ করেই শুরু হওয়া লোডশেডিং কবে দূর হবে সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কেউই কিছু বলতে পারছেন না। তবে লোডশেডিংকে শৃঙ্খলায় আনার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন বিদ্যুৎ বিভাগের উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার সেল’র মহাপরিচালক মোহম্মদ হোসাইন।

তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, আমাদের বুঝতে হবে পরিবর্তিত বিশ্ব পরিস্থিতিকে ভুলে গেলে চলবে না। ইউক্রেন যুদ্ধের পর জ্বালানির বাজারের যে অবস্থা এখানে আমাদের কারও হাত নেই। যে এলএনজি ৫ ডলারে পাওয়া যেতে সেটুকু কিনতে হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ ডলারে। জার্মানি, ইতালির মতো উন্নত রাষ্ট্র লোডশেডিং করতে বাধ্য হচ্ছে।

জার্মানিতে কি যখন তখন লোডশেডিং করা হয়? জবাবে বলেন, আমরা লোডশেডিংকে একটি শৃঙ্খলার মধ্যে আনার পরিকল্পনা নিয়েছি। যাতে গ্রাহকরা আগে থেকেই প্রস্তুতি রাখতে পারেন। দিনে পনের দফায় লোডশেডিং প্রসঙ্গে বলেন, দেখেন কোথাও টানা দুই ঘণ্টা লোডশেডিং করা কঠিন। ২ ঘণ্টা লোডশেডিং করা হলে ফ্রিজের খাবার নষ্ট হয়ে যেতে পারে। আবার একটানা ফ্যান ছাড়া থাকাও কষ্টের। তাই টানা ৩০ মিনিটের বেশি লোডশেডিং না করার বিষয় শৃঙ্খলায় আনার পরিকল্পনা চলেছে।

অতীতে তুলনামুলক রাতে কম লোডশেডিং হতো। এখন মধ্য রাতেও কেনো লোডশেডিং হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, এখন চাহিদার প্যাটানটা বদলে গেছে। পিক আওয়ারের (রাত ৯টা) কাছাকছিই থাকছে ভোররাতেও চাহিদা। ৪ জুলাই রাত ৯টায় উৎপাদন করা হয়েছে ১২ হাজার ২৩৬ মেগাওয়াট, ওই দিন ভোর ৪টায় ১১ হাজার ৫৯১ মেগাওয়াট। অতীতে দেখা যেতো ভোর রাতের দিকে ৬ থেকে ৭ হাজার মেগাওয়াটের নিচে চাহিদা নেমে আসত।

তিনি বলেন, ১৪’শ এমএমসিএফডির মতো গ্যাস সরবরাহ পেলে সমস্যা হতো না। কয়েকমাস আগেও ১ হাজারের উপর গ্যাস পাওয়া গেছে। এখন ৯’শ এমএমসিএফডির নিচে নেমে এসেছে। সে কারণে গ্যাস ভিত্তিক অনেক বিদ্যুৎকেন্দ্র বসে থাকছে। বাধ্য হয়ে ব্যয়বহুল জ্বালানি তেল ব্যবহার করেও পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। ৪ জুলাই রাত ৯ টায় ৪ হাজার ৮০৯ মেগাওয়াট গ্যাস দিয়ে, তেল ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ৫ হাজার ৪৯৫ মেগাওয়াট, কয়লা থেকে ৭৯৭, হাইড্রো থেকে ১২২ মেগাওয়াট এবং আমদানি থেকে ১ হাজার ১৩ মেগাওয়াট। ওই সময়ে চাহিদার প্রাক্কলন ছিল ১৫ হাজার মেগাওয়াটের মতো।

ঠিক কবে নাগাদ এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি আসবে এমন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর দেননি। তিনি বলেছেন, আমরা চেষ্টা করছি সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে। বিশ্ববাজার এখন যে দাম বিরাজ করছে, তা স্বাভাবিক বলা যায় না। পরিস্থিতি যাই থাকুক একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে একটা সিস্টেম গড়ে উঠবে। তার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে হবে আমাদেকও।

অন্যদিক বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী অনেকদিন ধরেই বলে আসছেন। বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে দু’টি জটিলতা বাংলাদেশের সামনে। একটি হচ্ছে পণ্যের উচ্চমূল্য, আরেকটি হচ্ছে পণ্যের প্রাপ্যতা। অনেক উন্নত দেশ ডলার নিয়ে বসে আছে দাম যা হোক তাদের গ্যাস চাই। আমরা গ্যাস চাই আবার দামও কম চাই। বিষয়টি খুবই জটিল সে কারণে গ্রাহকদের মিতব্যায়ী হতে হবে। গ্যাসের ঘাটতি মোকাবেলা করা হতো তেল দিয়ে সেই তেলের দামও চড়া।

বর্তমানে বাংলাদেশে বিদ্যুতের উৎপাদন (আমদানিসহ) সক্ষমতা রয়েছে ২১ হাজার ৩৯৬ মেগাওয়াট। এরমধ্যে কয়লা ভিত্তিক ১ হাজার ৬৮৮ মেগাওয়াট, গ্যাস ভিত্তিক ১০ হাজার ৮৭৮, ফার্নেস অয়েল ভিত্তিক ৫ হাজার ৯২৫, ডিজেল ভিত্তিক ১ হাজার ২৮৬, একমাত্র জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কাপ্তাইয়ে ২৩০, আমদানি ১ হাজার ১৬০ ও সৌর বিদ্যুৎ থেকে ২২৯ মেগাওয়াট। ৪ জুলাই রাতে গ্যাস দিয়ে অর্ধেকের ও কম অর্থাৎ ৪ হাজার ৮০৯ মেগাওয়াট উৎপাদন করা হয়েছে।

পেট্রোবাংলার তথ্যে দেখা গেছে ৪ জুলাই গ্যাস সরবরাহ করা হয় ২ হাজার ৭৩৫ এমএমসিএফডি। ওই দিন বিদ্যুৎ উৎপাদনে ২ হাজার ২৫২এমএমসিএফডির বিপরীতে সরবরাহ করা হয় মাত্র ৮৭৯ এমএমসিএফডি, সার উৎপাদনে ৩১৬ এমএমসিএফডির বিপরীতে ১৩৪, ননগ্রিডে ৮৭.৪ এবং অন্যান্য খাতে ১ হাজার ৬৩৩ এমএমসিএফডি গ্যাস সরবরাহ করা হয়।

তবে গ্যাসের যে সংকটের কথা বলা হচ্ছে অনেকেই এরসঙ্গে দ্বিমত পোষন করেছেন। তারা বলেছেন, আমাদের সিস্টেমে কমবেশি ৩ হাজার এমএমসিএফডি গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। এরমধ্যে ২৩’শ দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলো থেকে পাওয়া যাচ্ছে। অন্যদিকে বিদেশ থেকে গড়ে প্রায় ৮’শ এমএমসিএফডি গ্যাস আমদানি করা হতো।

আমদানিকৃত এলএনজির মধ্যে দীর্ঘমেয়াদী চুক্তির আওতায় ৭’শর মতো আর মাত্র ১’শ আমদানি করা হয় স্পর্ট মার্কেট থেকে। দীর্ঘমেয়াদী চুক্তির গ্যাসের দাম বাড়েনি, দাম বেড়েছে শুধু স্পর্ট মার্কেটে। যে কারণে স্পর্ট মার্কেট থেকে গ্যাস না আনার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। মাত্র ১’শ গ্যাস আসছে না বলে এমন ভয়াবহ অবস্থা হতে পারে এ কথা অনেকেই বিশ্বাস করতে চান না।

মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়কের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ, মামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মাসুদ রানা

মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মাসুদ রানা

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে একটি বেসরকারি হাসপাতালের মালিককে চাঁদার দাবিতে জিম্মি করে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের দুই সহ সভাপতির বিরুদ্ধে। মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ও জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মাসুদ রানার নেতৃত্বে এই হামলার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

গত শনিবার ১৩ আগস্ট মিরসরাইয়ের বড় তাকিয়া চক্ষু হাসপাতালে এই হামলার ঘটনা ঘটে। পরে ১৪ আগস্ট রোববার হাসপাতালের মালিক জসিম উদ্দিনের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন মিরসরাই থানায় এই ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেন।

তবে এ ঘটনায় কোন আসামি গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  মো. কবির হোসেন।

মামলার আসামিরা হলেন, মো. তুরিন (২৭), ইউসুফ (২৮),  মো. মাসুদ রানা (২৭),  আবির (৩৫), সোহেল মেম্বার (৩৫) ও মো. হাসান।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এদের মধ্যে তুরিন ও মাসুদ রানা চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি। জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতির পদ ছাড়াও মাসুদ মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ও তুরিন ১০ নম্বর মিঠানালা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। তারা দুজনই খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু। বাকিরা তাদের কর্মী।


জসিম উদ্দিনের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, 'গত ১৩ আগস্ট সকালে আমার স্বামী এবং আমার দুই মেয়ে মুনতাহা কারিনা বৃষ্টি (২০) এবং নুসরাত আফরিন বিথী (১৭) সহ আমাদের বড়জোর  তাকিয়া চক্ষু হাসপাতালে যাই। আমরা হাসপাতালে থাকা অবস্থায় দুপুরে তুরিন ও মাসুদ সহ ৮/১০ জন হাসপাতালে ঢুকে আমার স্বামীকে একটা কক্ষে নিয়ে মারধর শুরু করে।'

স্বামীকে বাঁচাতে রুমে ঢুকার চেষ্টা করলে তাকে ও তার মেয়েদের গালিগালাজ করার অভিযোগ করে সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, 'আমি এবং আমার দুই মেয়ে সহ আমার স্বামীকে উদ্ধার করতে গেলে আসামিরা আমাদেরকে রুমে প্রবেশ করতে না দিয়া উল্টো গালিগালাজ করে এবং আমাদেরকেও মারধর করা চেষ্টা করে।'

স্বামী জসিম উদ্দিনকে ওই রুমে ৩ ঘণ্টা আটকে রেখে মারধর করা হয় জানিয়ে তিনি বলেন, 'তারা আমার স্বামীকে প্রায় তিন ঘন্টা অফিস কক্ষে মারধর করে। এসময় তারা বলে যে, আমার স্বামী নাকি হাসপাতালের রিসিপশনিস্ট নাদিমা সুলতানাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে। তাকে ৩০ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে করত হবে। এ সময় আমার স্বামী নাদিমাকে তার সামনে এনে এই বিষয়ে কথা বলার অনুরোধ করলে তারা বিয়ের বদল ১৫ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করার প্রস্তাব দেয়।'

'পরে তারা আমার স্বামীকে মারধর করে সে নাদিমাকে বিয়ে করবে এই মর্মে ৩০০ টাকার স্টাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নিয়ে যায়। পরদিন তারা ৭ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দিলে তারা হাসপাতাল ভাংচুর করবে বলে হুমকি দেয়। এই ঘটনায় আমরা মিরসরাই থানায় একটা মামলা দায়ের করেছি।'-- যোগ করেন সাবিনা ইয়াসমিন।

মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি ওসি মিরসরাই।

;

বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালিত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালিত

বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালিত

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় জাতীয় শোক দিবস এবং স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী পালন করেছে রাজধানীর মিরপুরে অবস্থিত বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজ।

এ উপলক্ষে সোমবার শোকাবহ ১৫ আগস্ট দিনের কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা, শোকের প্রতীক কালোব্যাজ ধারন, জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনা সভা এবং পুরস্কার বিতরণী।

বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজের অধ্যক্ষ সুদীপ কুমার মণ্ডলের সভাপতিত্বে অশ্রুসিক্ত দিনের স্মরণে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ভেন. প্রজ্ঞানন্দ মহাথেরো। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বনফুল আদিবাসী গ্রিনহার্ট কলেজের রেক্টর প্রফেসর বাঞ্ছিতা চাকমা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান এবং রক্তাক্ত ১৫ আগস্ট নিয়ে বক্তব্য রাখেন কলেজের উপাধ্যক্ষ মতিয়া খান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ভেন. প্রজ্ঞানন্দ মহাথেরো আমাদের নতুন প্রজন্মকে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন সফল করার জন্য অঙ্গীকারাবদ্ধ হতে আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথি প্রফেসর বাঞ্ছিতা চাকমা বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রচিত বই এবং মহান নেতাকে নিয়ে লেখা অন্যান্য লেখকদের বইগুলো পাঠ করার জন্য উপস্থিত শিক্ষার্থীদের প্রতি অনুরোধ জানান। শোকাবহ দিনের অনুষ্ঠান শেষে রচনা ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি অঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা বই পুরস্কার হিসেবে তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ভেন. প্রজ্ঞানন্দ মহাথেরো।

;

আং‌শিক বক্তব্য নিয়ে সমালোচনা, প্রতিমন্ত্রী বলছেন ‘স্লিপ অব টাঙ’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুডিগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শোক দিবস উপলক্ষে আয়ো‌জিত দলীয় অনুষ্ঠানে দেওয়া প্রাথ‌মিক ও গণ‌শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জা‌কির হোসেনের বক্তব্যের এক‌টি অং‌শ ‌নি‌য়ে সামা‌জিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার সৃ‌ষ্টি হ‌য়েছে। তবে প্রতিমন্ত্রী বলছেন, 'এটা স্লিপ অব টাঙ'। তি‌নি পরক্ষণেই দুঃখ প্রকাশ ক‌রে তার বক্তব্য সং‌শোধন করে‌ছেন।

‌সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকা‌লে কু‌ড়িগ্রা‌মের রাজীবপুর উপ‌জেলা আওয়ামী লীগ আয়ো‌জিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যের এক পর্যায়ে প্রতিমন্ত্রী ভুল বশত বলেন, আমরা কায়মনে তার (বঙ্গবন্ধু) জন্য দোয়া করবো, বঙ্গবন্ধুকে আল্লাহ যেন জাহান্নামের ভালো জায়গায় স্থান করে দেন।

তবে প্রতিমন্ত্রীর দা‌বি, ভুলবশত তার মুখ থেকে এমন বাক্য বের হয়ে‌ছিল। তি‌নি তৎক্ষণাত তা বুঝ‌তে পেরে দুঃখ প্রকাশ করে‌ছেন এবং বক্তব্য সং‌শোধন ক‌রে বঙ্গবন্ধু‌কে জান্নাত দানের দোয়া করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হ‌লে প্রতিমন্ত্রী জা‌কির হোসেন ব‌লেন, 'ওটা স্লিপ অব টাঙ’। আ‌মি আজ তিন উপ‌জেলায় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিয়ে‌ছি। ক্লা‌ন্তি ছিলাম, অ‌নিচ্ছাকৃত ভাবে জান্নাত শব্দের স্থলে জাহান্নাম বলে ফেলে‌ছি। সঙ্গে সঙ্গে স‌রি বলে বক্তব্য ঠিক ক‌রে‌ছি। বিষয়‌টি নিয়ে বিভ্রান্তি সৃ‌ষ্টির সুযোগ নেই।

এ‌ নিয়ে কোনও লি‌খিত সং‌শোধনী দেবেন কিনা, এমন প্রশ্নে প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'সং‌শোধনী দেওয়ার প্রয়োজন নেই। আ‌মি সঙ্গে সঙ্গে স‌রি বলে বক্তব্য সং‌শোধন করে‌ছি।

অনুষ্ঠানে উপ‌স্থিত নেতাকর্মীরা বলছেন, মন্ত্রী ভুলবশত মুখ ফসকে জাহান্নাম বললেও তি‌নি পরক্ষণে দুঃখ প্রকাশ করে তা সং‌শোধন করে বক্তব্য ঠিক করেছেন। কিন্তু এক‌টি পক্ষ তার বক্তব্যের ভুল অংশটুকু ‌কেটে নি‌য়ে সামা‌জিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রা‌ন্তি ছড়াচ্ছে। পুরো ভি‌ডিও প্রকাশ করলে বিষয়‌টি প‌রিষ্কার হতো।

এ বিষয়ে রাজীবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই সরকার বলেন, বিষয়টি আসলেই স্লিপ অব টাঙ হয়েছে। তিনি পরক্ষণেই সংশোধিত বক্তব্য দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, প্রাথ‌মিক ও গণ‌শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জা‌কির হো‌সেন কু‌ড়িগ্রাম-৪ আস‌নের (‌রৌমারী,রাজীবপুর ও চিলমারী) সংসদ সদস‌্য। তি‌নি রৌমারী উপ‌জেলা আওয়ামী লী‌গের সভাপ‌তি।

;

সাতজনের মধ্যে বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর উত্তরায় নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের এক্সপ্রেসওয়ের গার্ডার চাপায় প্রাইভেটকারে নবদম্পতিসহ ৭ জন ছিলেন। এ দুর্ঘটনায় পাঁচজন মারা গেছেন। বেঁচে রয়েছেন শুধু নবদম্পতি হৃদয় (২৬) ও রিয়া মনি (২১) ।

সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর উত্তরায় বাস র‍্যাপিড ট্রানজিটের (বিআরটি) উড়াল সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের ক্রেন থেকে গার্ডার পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- বর হৃদয়ের বাবা রুবেল (৬০), কনে মা ফাহিমা (৪০), খালা ঝরনা (২৮), ঝরনার দুই সন্তান জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)। শুধু বেঁচে গেছেন হৃদয় ও রিয়া। তাদের গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত নিহতের স্বজনরা জানান, শনিবার হৃদয় ও রিয়ার বিয়ে হয়। তারা সোমবার ছেলের বাড়ি থেকে মেয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। হৃদয়ের পরিবার
উত্তরার দক্ষিণখান থানার কাওলা আফিল মেম্বারের বাড়ির ভাড়াটিয়া। আর কনে রিয়া মনির বাড়ি আশুলিয়ার খেজুরবাগানে আসরাফউদ্দিন চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নিহতরা তিন নম্বর সেক্টরের বিআরটি প্রকল্প এলাকায় সিয়াম টাওয়ারের সামনে প্রাইভেটকারে ছিলেন। নির্মাণ কাজের ক্রেনের তার ছিঁড়ে গার্ডার পড়ে যায়। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।

বিআরটি প্রকল্পের প্রকৌশলী কায়সার হামিদ বলেন, এখনও গাড়িটি চাপা পড়ে আছে। ক্রেন দিয়ে গার্ডার ওঠানোর সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। পরে মারা যায় আরও একজন। গার্ডারের নিচে গাড়ির ভেতরে চাপা রয়েছেন, এর মালিক রুবেল, একজন নারী ও দুই শিশু।

উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, নিহত পাঁচজনের লাশ গাড়ির ভেতরেই চাপা পড়ে রয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

;