জ্বালানি তেলের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবি যাত্রী কল্যাণ সমিতির



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
যাত্রী কল্যাণ সমিতি

যাত্রী কল্যাণ সমিতি

  • Font increase
  • Font Decrease

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা দেশের সাধারণ মানুষের চরম এক দুঃসময়ে জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

শনিবার (০৬ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধনে এই দাবি জানায় সংগঠনটি।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকার গত নভেম্বরে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম এক লাফে ১৫ টাকা বৃদ্ধি করেছিলেন। তখন দাম নির্ধারণ করা হয় ৮০ টাকা লিটার। ডিজেলের দাম বাড়ানোর পর বাস ভাড়া বাড়ানো হয় প্রায় ২৭ শতাংশ, লঞ্চ ভাড়া বাড়ানো হয় ৩৫ শতাংশ যা তেলের দাম বাড়ানো হারের চেয়ে অনেক বেশি।

প্রতিবাদ সমাবেশে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা দেশের সাধারণ মানুষের চরম এক দুঃসময়ে জ্বালানি তেলের দাম একলাফে প্রায় ৫০ শতাংশের কাছাকাছির বাড়ানো ফলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে এসেছে। পরিবহন ব্যয় দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য সাধারণ মানুষের সামর্থ্যের বাইরে চলে যাবে। ইত্যিমধ্যে পরিবহন সেক্টরে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। শিল্প উৎপাদন ব্যাহত হবে, ফলে আমদানির ওপর নির্ভরশীলতা বাড়বে। প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে অনেক ছোট ছোট শিল্প-কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে একদিকে আমদানি ব্যয় বৃদ্ধির মধ্যে দিয়ে জাতীয় অর্থনীতি ওপর চাপ আরও বাড়বে। অন্যদিকে বেকারত্ব সমস্যা প্রকট হবে।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে সাধারণত তেলের দাম যে পরিমাণ বাড়ে তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি বাড়ে বাস ও অন্যান্য গণপরিবহন ভাড়া। পণ্য পরিবহন ভাড়াও ইচ্ছেমত বাড়িয়ে দেয় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিকেরা। বাসের ক্ষেত্রে সরকার বাসের মালিক-শ্রমিক নেতারা মিলেমিশে একচেটিয়াভাবে বাসের ভাড়া যে পরিমাণ বাড়ায় বাসে বাসে তার কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া আদায় করে। সরকার বাসের ভাড়া বাড়িয়ে দিলেও সরকার নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা অনুযায়ী বাসে আদায় হচ্ছে কিনা তা তদারকি করা বা বর্ধিত ভাড়া আদায় বন্ধে তেমন কোন কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ালেও বর্তমানে তেলের বাজার নিম্নমুখী। এই সময়ে বাজার পর্যবেক্ষণ না করে, কেবল আইএমএফের প্রেসক্রিপশন বাস্তবায়নে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক ও গণবিরোধী। অনতিবিলম্বে বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করে, পূর্বের মূল্য বহাল রাখার দাবি জানান তিনি।

প্রতিবাদ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি তাওহিদুল হক লিটন, যুগ্ম মহাসচিব এম. মনিরুল হক, প্রচার সম্পাদক মাহমুদুল হাসান রাসেল, দেশ বাচাঁও মানুষ বাচাঁও আন্দোলনের সভাপতি আর. কে. রিপন প্রমুখ।

মহামারির প্রকোপেও বিকশিত লিডার্স স্কুল



কনক জ্যোতি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ। বার্তা২৪.কম

লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ। বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা মহামারির কিছুদিন আগে ২০১৮ সালে ছোট্ট পরিসরে চট্টগ্রামের ক্যান্টনমেন্ট সংলগ্ন বালুছড়া এলাকায় শুরু হয় লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ। মহামারির প্রকোপে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেলেও লিডার্সের বিকাশ হয়েছে অভাবনীয় গতিতে। করোনা সঙ্কটের মধ্যের বছরগুলোতে প্রায় আট শত শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখরিত হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তাদের নিয়ে কাজ করছেন শতাধিক শিক্ষক ও সহায়ক স্টাফ।

লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের উল্লেখযোগ্য বিকাশ সাধিত হয়েছে কোভিদ প্রটোকল, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মান্য করে। শিক্ষার্থীদেরও আনা হয়েছে টীকাকরণ কর্মসূচির আওতায়। অভিভাবকরা বলছেন, "এসব ছাড়াও শিক্ষার মানগত ও পরিবেশগত দিকগুলো এখানে আকর্ষণীয়। ফলে চট্রগ্রাম মহানগরের আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাতারে স্থান লাভ করেছে লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ।"

লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের স্বপ্নদ্রষ্টা কর্নেল (অব.) আবু নাসের মো. তোহা, যিনি চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের প্রিন্সিপাল ছিলেন। অবসর গ্রহণের পর তিনি নিজের দীর্ঘ অভিজ্ঞতার আলোকে গড়ে তুলেছেন লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

বার্তা২৪.কম'কে কর্নেল (অব.) আবু নাসের মো. তোহা বলেন, "ভালো ছাত্র হওয়ার আগে একজন শিক্ষার্থীকে ভালো মানুষ করতে হবে। ভালো মানুষ হলে সে ভালো ছাত্র হবেই।"

"এজন্য আমরা অ্যাকাডেমিক পড়াশোনার সমান্তরালে নৈতিকতার শিক্ষা প্রদান করি। প্রতিটি শিক্ষার্থীকে সালাম চর্চা, ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা এবং ভুল করলে কালবিলম্ব না করেই সরি বলার অভ্যাস করানো হয়। পাঠ্যক্রমের পাশাপাশি প্রতিদিন একটি ভালো কাজ করার অনুপ্রেরণা জাগানো হয় তাদের মধ্যে", বলেন তিনি।

স্কুলের পরিবেশও বেশ সুন্দর আর পরিপাটি। লতা, গুল্ম, ক্যাকটাস দিয়ে আচ্ছাদিত পুরো প্রাঙ্গণ। রয়েছে একটি মিনি চিড়িয়াখানা, যেখানে নানা জাতের পাখি ও উদ্ভিদ শিক্ষার্থীরা সরাসরি দেখে চিনতে পারে। প্রতিদিন সকালে স্কুলের শুরু হয় আনন্দঘন আবহে। প্রতিটি শিক্ষক উপস্থিত থেকে অভিভাবকদের কাছ থেকে শিক্ষার্থীদের গ্রহণ করেন। পড়াশোনা, খেলাধুলা, স্বাস্থ্যবিধি এবং ভালো ও মন্দ সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয় প্রতিটি শিক্ষার্থীকে। মোবাইল, টিভি আসক্তি এ কারণে লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছে ঘেঁষতে পারে না। মেধা বিকাশের সৃজনশীল প্রয়াসের সঙ্গে সঙ্গে মিথ্যা, প্রবঞ্চনা, সন্ত্রাস ইত্যাদির বিরুদ্ধেও নৈতিক প্রতিরোধ তৈরি করা হয় তাদের মননে।

কর্নেল (অব.) আবু নাসের মো. তোহা বলেন, "ভালো শিক্ষার জন্য প্রয়োজন ভালো প্রতিষ্ঠান ও ভালো পারিবারিক পরিবেশ। আমরা তা নিশ্চিত করতে অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত মতবিনিময় করি। প্রতিটি ছাত্রের সমস্যা ও সম্ভবনার দিকগুলো চিহ্নিত করে কাজ করছি আমরা। ফলে শিক্ষার্থীরা একই সঙ্গে ভালো মানুষ ও ভালো ছাত্র হিসাবে গড়ে উঠছে।"

তিনি বলেন, "অবসর গ্রহণের পর একটি দৃষ্টান্তমূলক আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ার স্বপ্নময় চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ শুরু করি। মহান আল্লাহর রহমতে আমরা সামাজিক নেতৃত্ব, অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অভূতপূর্ব সমর্থন ও সহযোগিতা পাচ্ছি। আমরা আশা করি, শুধু চট্টগ্রামের নয়, বাংলাদেশের অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকায় অচিরেই লিডার্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ স্থান লাভ করবে।"

;

করোনায় আরও একজনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়েছে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
করোনায় আরও একজনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়েছে

করোনায় আরও একজনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়েছে

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩৫ জন।

রোববার (২ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে, শনিবার (১ অক্টোবর) করোনা আক্রান্ত হয়ে পাঁচজনের মৃত্যু এবং আক্রান্ত হয় ৪৮০ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৭৪৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬১ শতাংশ।

এ সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৪৭৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৬ হাজার ১০৭ জন।

দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৬ হাজার ২১২ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ৩৬৯ জনের।

দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত (কোভিড-১৯) প্রথম রোগী শনাক্ত হয় ২০১৯ সালের ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

;

ইসলামী ব্যাংকের অডিট বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইসলামী ব্যাংকের অডিট বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ইসলামী ব্যাংকের অডিট বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামী ব্যাংক ট্রেনিং অ্যান্ড রিসার্চ একাডেমি (আইবিটিআরএ) ২ অক্টোবর রোববার ইসলামী ব্যাংক টাওয়ারে “ইফেক্টিভ ইন্টারনাল অডিট প্রসিডিউর” শীর্ষক দিনব্যাপী এক কর্মশালার আয়োজন করে।

ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মশালার উদ্বোধন করেন।

আইবিটিআরএর প্রিন্সিপাল এস এম রবিউল হাসানের সভাপতিত্বে কর্মশালার বিভিন্ন সেশন পরিচালনা করেন ব্যাংকের অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মোঃ ওমর ফারুক খান, ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মোঃ নাইয়ার আজম ও মুহাম্মদ শাব্বির, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট কে এম মুনিরুল আলম আল মামুন, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ সিরাজুল আলম ও মোঃ রুহুল আমিন ।

এ সময় ব্যাংকের অডিট অ্যান্ড ইনস্পেকশন ডিভিশনের ১০০ জন নির্বাহী ও কর্মকর্তা কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।

;

র‌্যাবের সংস্কার সব সময় চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
র‌্যাবের সংস্কার সব সময় চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

র‌্যাবের সংস্কার সব সময় চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, র‌্যাবের অনেকেই অপরাধ করায় কারাগারে রয়েছেন। এমনকি অনকে পুলিশের সদস্যও কারাগারে আছেন। র‌্যাবের সংস্কার সব সময় চলছে। কোনো অভিযোগ পেলেই আমরা সেটা সংস্কার করছি।

রোববার (২ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, র‌্যাব নীতিমালা অনুযায়ী কাজ করে। র‌্যাবকে যুক্তরাষ্ট্র প্রশিক্ষণ দিয়েছে। র‌্যাবে কোনো ভুলভ্রান্তি হয়ে থাকলে তা দেখব। যারাই অন্যায় করছে কাউকে ছাড় দেওয়া হচ্ছে না। অনেকই জেল খাটছে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, যুক্তরাষ্ট্র রিপোর্ট যা দিয়েছে, আমরা চেক করে দেখছি। কোনো ভুলভ্রান্তি থাকলে অবশ্যই দেখব।

এর আগে গত ২৯ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেছিলেন, র‍্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে তাদের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি। জবাবদিহি ও সংস্কার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞায় পরিবর্তন আনা হবে না।

;