ঘামে ভেজা টাকা আমাকে দিলেন রিকশাচালক মনির



ইজাজ আহমেদ মিলন
ঘামেভেজা টাকা আমাকে দিলেন রিকশাচালক মনির

ঘামেভেজা টাকা আমাকে দিলেন রিকশাচালক মনির

  • Font increase
  • Font Decrease

সমকাল অফিস থেকে বের হয়ে চ্যানেল আই ভবনে যাচ্ছিলাম। শত শত গাড়ি আটকে আছে সড়কে। ফুটপাতেও ভীড়। এরই মধ্যে পেছন থেকে আমার নাম ধরে কেউ একজন ডাক দিলেন। বুকটা যেনো কেমন করে উঠলো! এখানে তো কেউ আমাকে চেনার কথা না। ডাকটি কোথাও বাঁধাপ্রাপ্ত না হয়ে সরাসরি আমার কানে এসে ধাক্কা লাগে। পেছন ফিরে তাকিয়ে দেখি রিকশার হ্যান্ডেল হাতে মনির হোসেন পান খাচ্ছেন। কাছে এগিয়ে যেতেই জড়িয়ে ধরলেন মনির। তার শরীর থেকে ঘাম ঝরছিল। মনিরের ঘামের গন্ধ নাকে আসার সঙ্গে সঙ্গে আব্বার কথা মনে পড়ে গেলো। আব্বার শরীরে ঘামের গন্ধও মনিরের ঘামের মতোই ছিল।

মনিরকে আমি চিনি, আমাদের পাশের গ্রামের মানুষ। তবে নামটা মনে করতে পারছিলাম না। তিনি নিজে থেকেই তার পরিচয় দিতে শুরু করলেন। এবার আমি তাকে জড়িয়ে ধরলাম। বুকে বুক মিলিয়ে পুনরায় তার ঘামের গন্ধ নিলাম। বাড়ি থেকে গিয়ে ঢাকায় রিকশা চালান তিনি। আমার প্রতি তার দরদ ও ভালোবাসা দেখে আপ্লুত হয়ে পড়ছিলাম।

মনিরের সঙ্গে থাকা টাকাগুলো ঘামে ভিজে গেছে। ঘামে ভেজা কিছু টাকা বের করে আমাকে বললেন, ‘এই নেও কিছু খাইয়া যাও’। আমার চোখ ভিজে উঠলো। আহা দরদ - ভালোবাসা! আব্বাও যখন বুক পকেট থেকে বের করে আমাকে টাকা দিতেন সে টাকাও এমন ভেজা থাকতো। খুব বিনয়ের সঙ্গে মনির ভাইয়ের টাকাটা হাতে নিলাম ঠিকই, কিন্তু আবার তাকেই সে টাকা ফিরিয়ে দিতে আমার বিবেক বাধ্য করলো।

মনির ভাই একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললেন! ছলছল করে উঠছিল তার চোখ। এবার আমার পকেট থেকে বের করে মনির ভাইকে কিছু..... । কিন্তু নিতে চাইলেন না, মনির তার সমস্ত বিনয় ঢেলে দিয়ে ' না ' করছিলেন। খুব জোর করে তার হাতে দিলাম। যাক সে কথা। তার সঙ্গে আরও অনেক কথা হয় আমার। কেমন এক মায়ায় জড়িয়ে পড়ি।

বিদায় বেলায় মনির ভাই বললেন - ' দেইখ্যা যাইয়ো কিন্তু ভাই! বাড়িতে আইলে দেহা করুমনি '। আমি বারবার তার দিকে ফিরে তাকাই আর তিনি আমার দিকে তাকিয়ে রইলেন অপলক। রিকশার হ্যান্ডেল তখনও তার হাতে....

গাজীপুর প্রতিনিধি, দৈনিক সমকাল

নোয়াখালীতে ওএমএসের চাল উদ্ধার, গ্রেফতার ১



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
নোয়াখালীতে ওএমএসের ১১৩০ কেজি চাল উদ্ধার

নোয়াখালীতে ওএমএসের ১১৩০ কেজি চাল উদ্ধার

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালী সদর উপজেলায় ওএমএসের সরকারি ১১৩০ কেজি চাল উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে গ্রেফতার মাদক কারবারিকে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে। এর আগে, গতকাল মঙ্গলবার নোয়াখালী পৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের দত্তেরহাট বাজারের হাকিম ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ভিতর থেকে এই চাল উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতার মো.আব্দুল হাকিম (৪৭) নোয়াখালী পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের গোপাই গ্রামের দাইয়া মিয়ার বাড়ির মৃত আবদুর রশিদের ছেলে।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো.শহীদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিত্তে এসব চাল উদ্ধার করা হয় এবং এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করে।

;

ডিআরইউ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ডিআরইউ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে

ডিআরইউ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে

  • Font increase
  • Font Decrease

সাংবাদিকদের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বুধবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ৯টা থেকে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

সকাল থেকেই ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের সরব উপস্থিতি দেখা গেছে।

এবারের নির্বাচনে ২০টি পদের বিপরীতে প্রার্থী হয়েছেন মোট ৪৩ জন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীরা শেষ মুহূর্তের প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুলসহ আরও কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রার্থী যারা

এবারের নির্বাচনে সভাপতি পদে রয়েছেন তিনজন প্রার্থী। তারা হলেন- বর্তমান সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু, সাবেক সভাপতি মুরসালীন নোমানী ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান।

সাধারণ সম্পাদকের পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ছয়জন। তারা হলেন— সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল বারী, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আরাফাত, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জামিউল আহসান সিপু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মুহাম্মদ জামাল হোসাইন (শেখ জামিল), মাইনুল হাসান সোহেল ও সাবেক এক নম্বর সদস্য মহিউদ্দিন।

সহ-সভাপতি পদের বিপরীতে প্রার্থী হয়েছেন দুই জন। এরা হলেন- দীপু সারোয়ার ও সাবেক সহ-সভাপতি গ্যালমান শফি।

যুগ্ম সম্পাদকের পদের জন্য প্রার্থী হয়েছেন পাঁচ জন। তারা হলেন— ফারুক খান, কামাল মোশারেফ, মঈনুল আহসান, নয়ন মুরাদ ও পবন আহমেদ।

সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দুই প্রার্থী দুই হলেন— আবদুল হাই তুহিন ও সাইফুল ইসলাম। দপ্তর সম্পাদক পদে রয়েছেন কাওসার আজম ও রফিক রাফি। নারীবিষয়ক সম্পাদক পদের জন্য প্রার্থী হয়েছেন মরিয়ম মনি (সেঁজুতি) ও রোজিনা রোজী। অর্থ সম্পাদক পদের বিপরীতে প্রার্থী রয়েছেন— মো. জাকির হোসাইন ও সাখাওয়াত হোসেন সুমন।

প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদের বিপরীতে প্রার্থী কামাল উদ্দিন সুমন ও মেজবাহ উল্লাহ শিমুল। তথ্যপ্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদকের পদের জন্য প্রার্থী মো. রাশিম (রাশিম মোল্লা) ও তোফাজ্জল হোসেন রুবেল।

ক্রীড়া সম্পাদক পদের বিপরীতে প্রার্থী মাহবুবুর রহমান ও রকিবুল ইসলাম মানিক। সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে প্রার্থী মো. শাহাবুদ্দিন মাহতাব ও মিজান চৌধুরী। আপ্যায়ন সম্পাদক পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হয়েছেন মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন। এ ছাড়া কল্যাণ সম্পাদক পদের জন্য প্রার্থী জাহাঙ্গীর কিরণ ও তানভীর আহমেদ।

কার্যনির্বাহী সদস্যের সাতটি পদের জন্য ইসমাঈল হোসাইন রাসেল (রাসেল আহমেদ), মনিরুল ইসলাম মিল্লাত (মনির মিল্লাত), মোজাম্মেল হক তুহিন, কিরণ সেখ, মহসিন বেপারী, মো. ফারুক আলম, মো. ইব্রাহিম আলী (আলী ইব্রাহিম), মো. শরীফুল ইসলাম এবং এস এম মোস্তাফিজুর রহমান (সুমন)— এ ৯ জন প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

;

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারো সাব মাঝি খুন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে শাহাব উদ্দীন (৩৫) নামের একে সাব মাঝিকে ছুরিকাঘাত ও গুলি করে হত্যা করেছে একদল দুর্বৃত্ত।

মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উখিয়ার পালংখালীর ১২ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহাব উদ্দীন ওই ক্যাম্পের এইচ/১৪ নম্বর ব্লকের মনির আহম্মদের ছেলে।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, ভোরে অজ্ঞাত ২০ থেকে ৩০ জন সশস্ত্র দুর্বৃত্ত আকস্মিকভাবে ক্যাম্পের বসতঘরে ঢুকে শাহাব উদ্দীনের বুকের মাঝ বরাবর নিচে পেটের উপরে ও ডান হাতের পিছনে বাহুতে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে এবং পেটের মাঝ বরাবর নাভির উপরে গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। হয় ।

ওসি জানান, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে একদল দুর্বৃত্ত এই ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে ভিকটিমের পরিবারসহ অন্য রোহিঙ্গারা ঘটনার সঠিক কারণ সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনোকিছু বলতে পারেনি। ঘটনার পর থেকে ক্যাম্প এলাকায় পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

;

সিরাজগঞ্জে আ.লীগ কার্যালয়ে ককটেল বিস্ফোরণ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ককটেল বিস্ফোরণ

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ককটেল বিস্ফোরণ

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে বিকট শব্দে আওয়ামী লীগ কার্যালয় ও আশাপাশ এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। তবে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এ ঘটনায় বিএনপিকে দায়ী করছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। অপরদিকে বিএনপির দাবি এ ঘটনাটি সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রমূলক।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) রাত ৯টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আলামত সংগ্রহ করেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বলেন, একটি মোটরসাইকেল থেকে ককটেল নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়। তবে এ ঘটনায় বিএনপির নেতাকর্মীরা জড়িত বলে তাদের অভিযোগ। তারা এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবিতে রাতেই বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা বিএনপির সভাপতি শামছুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ তাদের নেতাকর্মীদের দিয়ে এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে এবং সে দোষ আমাদের ওপর চাপানোর চেষ্টা করছে। এটার উদ্দেশ্য আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা।

রায়গঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মাদ সিদ্দিকুল ইসলাম ককটেল বিস্ফোরণের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় চারটি তাজা ককটেল ও একটি বিস্ফোরিত ককটেলের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

;