কথিত বাংলাদেশি ‘বিলিওনিয়ার’ডাবলু চৌধুরীর আসল পরিচয় পাওয়া গেছে!



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কথিত বাংলাদেশি ‘বিলিওনিয়ার’ডাবলু চৌধুরীর আসল পরিচয় পাওয়া গেছে!

কথিত বাংলাদেশি ‘বিলিওনিয়ার’ডাবলু চৌধুরীর আসল পরিচয় পাওয়া গেছে!

  • Font increase
  • Font Decrease

ইতালির ভেনিসে বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়ে ভাইরাল হওয়া ‘কথিত’ বিলিওনিয়ার ডাবলু চৌধুরীর আসল পরিচয় পাওয়া গেছে! কয়েকদিন ধরে গণমাধ্যমে ‘কে এই বাংলাদেশি বিলিওনিয়ার’ বলে ডাবলু চৌধুরীর যে পরিচয় দেয়া হচ্ছে, বার্তা২৪.কমের অনুসন্ধানে তার পুরো সত্যতা মেলেনি। ভেনিসে ইলেকট্রিক মোটর গাড়ি কারখানা স্থাপনের প্রস্তাব দিয়ে হৈ চৈ ফেলে দেয়া ডাবলু চৌধুরী আসলে বাংলাদেশের একজন সাধারণ ব্যবসায়ী! যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক বছর থাকলেও তিনি বাংলাদেশের বাসিন্দা, তাঁর বিদেশি নাগরিকত্বের কোন প্রমাণ মেলেনি। এমনকি তার বাড়ি সিলেটে নয়, কুষ্টিয়ায়। কুষ্টিয়া, পাবনা ও সুইজারল্যান্ডে লেখাপড়া করা ডাবলু চৌধুরী প্রবাসী ভেঞ্চার ক্যাপিটাল সংগ্রহের আওতায় সবুজ জ্বালানির গাড়ি কারখানার বিনিয়োগ সম্ভাবনা যাচাই করে বিদেশে ঘুরে ফিরছিলেন। এরই মধ্যে তথাকথিত বিলিওনিয়ার হওয়ার খবর বেরিয়েছে!

খবরে প্রকাশ, ইতালির ভেনিসে এপসিলন মোটরস ইনৃকপ্রায় এক বিলিয়ন ডলারের প্রস্তাব দেয় সম্প্রতি।এই কোম্পানির চেয়ারম্যান ডাবলু চৌধুরী। এতে এই বাংলাদেশি বিলিওনারের কে এবং তার অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হয়। জমি ও ইউটিলিটির সুযোগ পাওয়া গেলে গাড়ি কারখানার পাশাপাশি লিথিনিয়াম ব্যাটারি কারখানাও স্থাপন করা হবে বলে এসপিলনের প্রস্তাবে রয়েছে। এতে প্রবাসী বাংলাদেশীসহ এক হাজার মানুষের চাকরির ব্যবস্থা হবে। এই প্রস্তাবের আলোকে মিলানে অবস্থিত বাংলাদেশ কনসাল অফিসের সহায়তা নেয়া হয়। এই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে প্রকাশিত ডাবলু চৌধুরীকে বিলিওনিয়ার হিসাবে উল্লেখ করে মিডিয়ায় খবর চাউর হয়।গণমাধ্যমে নানা রকম খবর প্রকাশিত থাকার প্রেক্ষিতে বার্তা২৪.কম প্রকৃত তথ্য জানতে নিবিড় অনুসন্ধান করে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ডাবলু চৌধুরীর জন্ম কুষ্টিয়া শহরে। তার বাবা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী অবসর গ্রহণ করেন। তিনি কয়েক বছর আগে মারা যান। দু্ই বোনের পর ডাবলু চৌধুরী পিতার একমাত্র পুত্র। কুষ্টিয়া শহরের জেলখানা মোড়েতাদের দুটি ত্রিতল দালান রয়েছে। পঞ্চাশোর্ধ বয়সের ডাবলু দীর্ঘদিন ঢাকায় থাকেন। উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের লেখাপড়া শেষ করার পর প্রবাসী হওয়ার লক্ষ্যে  সুইজারল্যান্ডে পাড়ি জমান এবং সেখানে লেখাপড়া ও চাকরি করেন। পরে আবার দেশে ফিরে এটিএন বাংলা ও চ্যানেল আইয়ের সঙ্গে যুক্ত হন। সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নানা পর্যায়ে ওঠ বসের সুবাদে ডাবলু চৌধুরী নানা রকম ব্যবসা বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করেন। এর আগে তিনি এভিয়েশন, নির্মাণ, বিদ্যুৎ ইত্যাদি খাতে অংশীদারি ব্যবসার চেষ্টা করেন। ২০০৭ সালের দিকে ডাবলু চৌধুরী স্লোভাকিয়ান এয়ারলাইন্সের জিএসএ নিয়ে এসে এভিয়েশন ব্যবসারও চেষ্টা করেছিলেন।

জানা গেছে, ডাবলু চৌধুরী ডরোথি চৌধুরীকে বিয়ে করে কিছুদিন ঢাকায় বসবাস করেন। পরে স্ত্রীর উচ্চতর পড়াশুনার জন্য ২০০৮ সালে লন্ডনে পাড়ি জমান। ২০০৯ সালে লন্ডনে তাঁদের একমাত্র পুত্রের জন্ম হয়। কয়েক বছর পর  লন্ডন থেকে দেশে ফিরে তিনি ঢাকায় ব্যবসা-বাণিজ্যের চেষ্টা চালান।স্থায়ীভাবে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের উদ্দেশে ২০১৫ সালে সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় পাড়ি জমান তিনি। ক্যালিফোর্নিয়ায় বাড়িভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন বলে একটি সূত্র জানায়। ও্ই সূত্রমতে, স্ত্রীর ইচ্ছে অনুযায়ী ২০২১ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে বসবাসের জন্য আসেন এবং লন্ডনের ইলফোর্ড এলাকায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। তাঁর স্ত্রী ও সন্তান বর্তমানে যুক্তরাজ্যেই বসবাস করছে।

জানা গেছে, ডাবলু চৌধুরী ২০২২ সালে চীন, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানির প্রবাসী ও বিদেশি নাগরিকদের একত্রিত করে এপসিলন মোটর কোম্পানি গঠন করে এই কোম্পানির চেয়ারম্যান হন। যুক্তরাষ্ট্রের দিলওয়ারে রাজ্য থেকে এর রেজিস্ট্রেশন গ্রহণ করা হয়।কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৌরভ মোহাম্মদ প্রবাসী বাংলাদেশি ও  বিশ্বখ্যাত মোটর কোম্পানিতে কাজ করার অভিজ্ঞ সম্পন্ন। এপসিলনের ওয়েবসাইটে দেখা গেছে, এর পরিচালনা পর্ষদে মিসেস ঝ্যাং ইয়ানমেই, ট্রিসিয়া ব্রাউন প্লাঞ্জ ও আফজাল আনসারী প্রমুখ দেশি বিদেশি উদ্যোক্তরা রয়েছেন। তবে এখনও একটি ঝকঝকে ওয়েবসাইট, কোম্পানির প্যাড এবং বিদেশি ও প্রবাসী কিছু অভিজ্ঞ ব্যক্তিই এই কোম্পানির পুঁজি করে ধারণা করা হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, এই কোম্পানির পক্ষে বিনিয়োগ প্রস্তাব নিয়ে ডাবলু চৌধুরী এ বছরের শুরু থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদার রেনো, লাসভেগাস, দুবাই, ক্যালফোর্নিয়ার লসএঞ্জেলেস, ইথিওপিয়ার আদিসআবাবা, জার্মানি, পর্তুগাল, হাঙ্গেরি ভ্রমণ করেন। একই প্রস্তাব নেভাদার রেনো ও লাসভেগাসেও দেয়া হয়। মাস দুয়েক আগে ঢাকা থেকে জনাব চৌধুরী আফ্রিকা হয়ে ইতালিতে যান বলে জানা যায়।

এ নিয়ে ডাবলু চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে বার্তা ২৪.কম। তিনি ইতালির বের্গামো শহরে আছেন বলে জানা যায়। অনলাইনে ডাবলু চৌধুরী এ প্রতিবেদককে জানান, এপসিলন মোটর্স ইনক এর আওতায় কারখানা স্থাপনে বিভিন্ন দেশে জায়গা খোঁজার খবর ঠিক। এতে আমাদের এক টাকাও বিনিয়োগ নেই, আমাদের এতো বিপুল অর্থও নেই। কোম্পানির প্রাথমিক অর্থের যোগান দিচ্ছে মোটরগাড়ি তৈরিতে আগ্রহী ও অভিজ্ঞ প্রবাসী এবং বিদেশি উদ্যোক্তাগণ। প্রকল্প প্রস্তাবের বিনিয়োগ আসার কথা ভেঞ্চার ক্যাপিটালের আওতায় নতুন ও উদ্ভাবনী শিল্পে মূলধন লগ্নীকারীদের কাছ থেকে। বিশ্ব জুড়ে ব্যবসা বাণিজ্যে এভাবেই বিনিয়োগের যোগান হয়। তিনি বলেন, আমাদের কোম্পানির স্লোগান হচ্ছে, এপসিলন শুধু কোম্পানি নয়, লাগসই জ্বালানিতে সবুজ পৃথিবীর স্বপ্ন। বাংলাদেশি হিসাবে আমার  মেধা, নানা দেশের অভিজ্ঞতা বিনিয়োগ করেছি মাত্র! আমাদের প্রস্তাবটি গ্রীন হাউজ গ্যাসের বিপরীতে টেকসই পৃথিবীর জন্য ইতিবাচক বলে মনে করি। এর বিপরীতে গণমাধ্যমে অনাকাঙ্খিত ও আজগুবি তথ্য ভেসে বেড়াচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে

নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে নাশকতার মামলায় ইসাহাক আলী (৪০) নামের ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ইসাহাক আলী সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি।

বুধবার রাতে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের শহীদ এম.মনসুর আলী ষ্টেশন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বিকালে সিরাজগঞ্জ সদর থানার অপারেশন কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাস গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইসাহাকের বিরুদ্ধে নাশকতার একটি মামলা ছিল। একারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জিব্রাইল হোসেন বলেন, রাতে ইসাহাক আলী ট্রেনযোগে রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে আসার পথে মনসুর আলী ষ্টেশন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

;

দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম আকর্ষণ এখন মোংলা বন্দর



উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মোংলা (বাগেরহাট)
দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম আকর্ষণ মোংলা বন্দর 

দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম আকর্ষণ মোংলা বন্দর 

  • Font increase
  • Font Decrease

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম মুসা বলেন, অনেক চড়াই উতরাই পেরিয়ে আসা মোংলা বন্দর পদ্মা সেতু চালু হওয়ার সাথে সাথেই বর্তমানে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম আকর্ষণে পরিণত হয়েছে।

জাকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের ৭২৩ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৯টায় বন্দর জেটির মেইন গেইটের সম্মুখ থেকে বের হওয়া বর্ণাঢ্য র‍্যালি বন্দর এলাকা প্রদক্ষিণ করেন। পরে বন্দরের স্বাধীনতা চত্বরে গিয়ে তা শেষ হয়। সেখানে উপস্থিত সকলকে বন্দর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানান বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম মুসা।

এরপর বন্দর জেটির সেডে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। আলোচনা সভার শুরুতেই কেক কেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করেন বন্দর কর্তৃপক্ষ। এরপর বন্দরের উপর নির্মিত উন্নয়নমূলক ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব কালাচাঁদ সিংহ।

পরে অনুষ্ঠানের সভাপতি পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ শাহীনুর আলম ও বিশেষ অতিথি হিসেবে সদস্য (হারবার ও মেরিন) কমডোর মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার বক্তব্য রাখেন।

এরপর প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম মুসা বলেন, এক সময়ের লোকসানী বন্দর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার সাথে সাথে বেশ কিছু প্রকল্প গ্রহণ করেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক দূরদর্শিতায় অচিরেই মোংলা বন্দর শিপিং হাব এ রূপান্তর হবে। মোংলা বন্দরকে আরো আধুনিক ও বিশ্বমানের করে গড়ে তোলার জন্য বেশ কিছু প্রকল্প চলামান রয়েছে ও কিছু প্রকল্প ভবিষ্যৎ উন্নয়নের জন্য হাতে নেয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বন্দরের সেরা কৃতিত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বন্দরের কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সাংবাদিকদের ক্রেস্ট ও সম্মাননা প্রদান করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বন্দর ব্যবহারকারী ও সম্মানিত অতিথিদের মধ্যে কয়েকজনকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, ১লা ডিসেম্বর মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের ৭২তম প্রতিষ্ঠা দিবস। মোংলা বন্দর বিশ্ব ঐতিহ্যের ধারক সুন্দরবনের পাদদেশে অবস্থিত। এ বন্দর ১৯৫০ সালের ০১ ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। একই বছর ১১ ডিসেম্বর পশুর নদীর জয়মনিরগোলে ‘দি সিটি অব লিয়নস’ নামক ব্রিটিশ বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙ্গরের মধ্যদিয়ে এ বন্দরের কার্যক্রম শুরু হয়। ১৯৮৭ সালের পোর্ট অব চালনা অথরিটি এ্যাক্ট অনুসারে প্রথমে চালনা বন্দর কর্তৃপক্ষ ও পরবর্তীতে মোংলা পোর্ট অথরিটি নামে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর হিসেবে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের তথা বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে এ বন্দর ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে। ২০০১ হতে ২০০৮ অর্থ বছর পর্যন্ত এ বন্দর নানামুখী প্রতিকুলতার কারণে লোকসানী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছিল। বিগত ২০০৭-২০০৮ইং অর্থ বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে ০৭টি জাহাজ ও সম্পূর্ণ অর্থ বছরে ৯৫টি জাহাজ আগমন করে এবং ২০০৪-২০০৫ইং অর্থ বছরে বন্দর ১১ কোটি টাকা লোকসান করে।
২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকে মোংলা বন্দর উন্নয়নের জন্য সরকার অগ্রাধিকার ও বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করে এবং বন্দরের উন্নয়ন ও আধুনিকায়নে কাজ শুরু করেন। ফলে ক্রমান্বয়ে মোংলা বন্দর গতিশীল হতে থাকে, যার কারণে প্রতি বছর বিদেশী জাহাজ আগমনের রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে।

;

এবার এডিসিসহ পুলিশের ৬ কর্মকর্তা বদলি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের(ডিএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) পদ মর্যাদার এক কর্মকর্তাসহ মোট ছয় কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) ও মঙ্গলবার ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত পৃথক অফিস আদেশে তাদের বদলি করা হয়।

অফিস আদেশ অনুযায়ী, ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সাকিবুল ইসলাম খানকে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (প্রফেশনাল স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড ইন্টারনাল ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন) হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

বদলি হওয়া পুলিশ পরিদর্শকেরা হলেন:

Caption

 

;

শাস্তির মুখে ১৩৪ ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা, অনিয়মে কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তাও



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনে ১২৫ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা দায়িত্ব পালনে অবহেলা করেছেন। সব মিলে এই উপনির্বাচনে অনিয়মে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় ১৩৪ ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা বিভাগীয় শাস্তির মুখোমুখি হচ্ছেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সুশান্ত কুমার সাহা, জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম ও কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তার অনিয়মে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে। তবে জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি) ও কোনো প্রার্থীর অনিয়মে জড়িত থাকার প্রমাণ মেলেনি।

নির্বাচন কমিশন ১২৫ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হবে। আর রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ইসি সচিবকে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে বৃহস্পতিবার দুপুরে এক ব্রিফিংয়ে গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচন বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি)কাজী হাবিবুল আউয়াল এসব কথা বলেন।

সিইসি বলেন, ‘১২৫ কেন্দ্রের কর্মকর্তাকে দায়িত্ব পালনে অবহেলায় সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্ত এক মাসের মধ্যে কার্যকর করতে নিয়ন্ত্রণকারী বা নিয়োগকারী দপ্তরকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে এক কলেজশিক্ষক দুই মাসের জন্য সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন।’

সিইসি আরও বলেন, ‘এছাড়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রণালয়কে অবহিত করবে নির্বাচন কমিশন। আর রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইসি সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

;