তিন বিশ্ব ঐতিহ্যের প্রচারে একসঙ্গে ইউনেস্কো-সিসিমপুর



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শিশুদের কাছে বাংলাদেশে ইউনেস্কোর তিন বিশ্বঐতিহ্য সুন্দরবন, ঐতিহাসিক মসজিদের শহর বাগেরহাট ও পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারকে পরিচিত এবং জনপ্রিয় করতে একসঙ্গে কাজ করবে ইউনেস্কো এবং সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশ তথা সিসিমপুর। নতুন এই উদ্যোগের আওতায় তথ্য এবং বিনোদনের মাধ্যমে শিশুদের কাছে এই তিন বিশ্ব ঐতিহ্যকে আরও বেশি পরিচিত করতে কাজ করবে সিসিমপুর। শিশুদের কাছে অত্যন্ত প্রিয় সিসিমপুরের চরিত্রগুলোকে দিয়ে এই তিন বিশ্ব ঐতিহ্যের ওপর তৈরি করা হবে এডুটেইনমেন্ট ভিডিও। পাশাপাশি শিশুদের জন্য থাকবে কিছু অংশগ্রহণমূলক কার্যক্রমও।

এই উপলক্ষে ৬ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার ইউনেস্কো-এর ঢাকা কার্যালয়ে ইউনেস্কো এবং সিসিমপুরের মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ইউনেস্কো বাংলাদেশের অফিস প্রধান সুজান ভাইজ এবং সিসিমপুরের কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মোহাম্মদ শাহ আলম নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

ইউনেস্কো-সিসিমপুর নতুন এই উদ্যোগ সম্পর্কে ইউনেস্কো বাংলাদেশের প্রধান সুজান ভাইজ বলেন, ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কনভেনশনের ৫০তম বার্ষিকীতে সিসিমপুরের সাথে এই যৌথ কার্যক্রম শুরু করতে পেরে আমরা আনন্দিত। এর মধ্য দিয়ে হালুম, টুকটুকি, ইকরি এবং শিকুর সাথে আমাদের একটি বর্ণিল এবং ফলপ্রসু যাত্রার সূচনা হলো। আমি বিশ্বাস করি এই কার্যক্রম বাংলাদেশের শিশুদের কাছে দেশটির তিন বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানকে আরও ব্যাপকভাবে পরিচিত করে তুলবে।

সিসিমপুরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ইউনেস্কোর এই বিশ^ ঐতিহ্য আমাদের জন্য গর্বের। কিন্তু শুধু শিশুরাই নয় আমাদের দেশের এই তিন বিশ্ব ঐতিহ্য সম্পর্কে আমরা অনেকেই ঠিকঠাক জানি না। অথ এই বিষয়ে সবারই জানা দরকার। নতুন এই উদ্যোগের মাধ্যমে আমরা শিশু এবং নতুন প্রজন্মের তরুণদের কাছে ইউনেস্কোর তিন বিশ^ ঐতিহ্যকে পরিচিত এবং জনপ্রিয় করতে চাই।

উল্লেখ্য ১৯৮৫ সালে ঐতিহাসিক মসজিদের শহর বাগেরহাট ও পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার এবং ১৯৯৭ সালে সুন্দরবন ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকায় অর্ন্তভুক্ত হয়।

ভালুকায় পুলিশের উপ-পরিদর্শকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস আই) হুমায়ুন কবিরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ।

বুধবার( ৮ জানুয়ারি) দুপুরে ভালুকা মডেল থানার ব্যারাক থেকে মরদেহটি ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

খবর পেয়ে ময়মনসিংহ রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি আবিদা সুলতানা ও জেলা পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এসময় অতিরিক্ত ডিআইজি আবিদা সুলতানা জানান, ব্যারাকে ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস আই) হুমায়ুন কবিরের মরদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে। সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

পরে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে ঘটনার প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে জানান ময়মনসিংহ অতিরিক্ত ডিআইজি আবিদা সুলতানা।

;

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮০.৩২ শতাংশ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮০.৩২ শতাংশ

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮০.৩২ শতাংশ

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এ বোর্ডে পাসের হার শতকরা ৮০ দশমিক ৩২ শতাংশ। এবার এ বোর্ডের ১২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ময়মনসিংহ শিক্ষাবোর্ড থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে ৬১ হাজার ৫১৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন। এরমধ্যে পাস করেছে ৪৯ হাজার ৪০৬ জন। এদের মধ্যে ২৪ হাজার ২৯০ জন ছাত্র (পাসের হার ৮০ দশমিক ২৪ শতাংশ) এবং ২৫ হাজার ১১৬ জন ছাত্রী (পাসের হার ৮০ দশমিক ৩৯ শতাংশ)।

এ বছর মোট জিপিএ-৫ পেয়েছেন পাঁচ হাজার ২৮ জন। এরমধ্যে ছেলে দুই হাজার ৩৯৭ জন এবং মেয়ে দুই হাজার ৬৩১ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয় যে, এবছর এইচএসসি পরীক্ষায় ২৮১ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৬৪ হাজার ২৮৯ শিক্ষার্থী পরীক্ষার ফরম পূরণ করেছিল। ৮৯টি কেন্দ্রে ৬১ হাজার ৫১৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। এবার ১২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। অন্যদিকে তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কেউ পাস করেনি।

;

এনটিআরসিএ নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের বদলির সুযোগ নেই: শিক্ষামন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের বদলির সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে ২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার বিস্তারিত ফল ঘোষণার সময় তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এনটিআরসিএ কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের কিন্তু আমরা নিয়োগ দেই না। তারাই শুন্যস্থানের বিপরীতে আবেদন করে যোগদান করেন। তার মেধা অনুযায়ীই সেখানেই সে চাকরি করে। এগুলো যেহেতু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সেহেতু বদলির সুযোগ নাই।’

মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. কামাল হোসেন এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান।

এ সময় ২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

প্রকাশিত ফলাফলে এবার মোট জিপিএ-৫ ধারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা মোট ১ লাখ ৭৬ হাজার ২৮২ জন। এর মধ্যে ছাত্রীর সংখ্যা ৯৫ হাজার ৭২১ জন আর ছাত্রের সংখ্যা ৮০ হাজার ৫৬১ জন।

এর আগে বেলা পৌনে ১২টার দিকে কম্পিউটারের বোতাম চেপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন।

;

এইচএসসিতে মাইলস্টোন কলেজের অসাধারণ সাফল্য, পাসের হার ৯৯.৯৭%



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
এইচএসসিতে মাইলস্টোন কলেজের অসাধারণ সাফল্য, পাসের হার ৯৯.৯৭%

এইচএসসিতে মাইলস্টোন কলেজের অসাধারণ সাফল্য, পাসের হার ৯৯.৯৭%

  • Font increase
  • Font Decrease

এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত মাইলস্টোন কলেজ। এবছর মাইলস্টোন কলেজ থেকে বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমে ৩২২২ জন ছাত্রছাত্রী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এবং পাস করে ৩২২১ জন। পাসের হার ৯৯.৯৭%। পাসকৃতদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৭৩৪ জন। জিপিএ-৫ অর্জনের হার ৮৪.৮৮%। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ২৫৪৮ জন এবং পাস করে ২৫৪৭ জন। বিজ্ঞান বিভাগে পাসের হার ৯৯.৯৬%। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৪১৯ জন। ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৩৮৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়, পাসের হার শতভাগ। ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬৮ জন। মানবিক বিভাগ থেকে ২৯০ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে, পাসের হার শতভাগ। মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪৭ জন।

এইচএসসি পরীক্ষায় নিয়মিতভাবে ভালো ফলাফলের ধারা অব্যাহত রাখার ব্যাপারে মাইলস্টোন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. সহিদুল ইসলাম বলেন, শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিন থেকেই একটা লক্ষ্য নির্ধারণ করে আমরা নিরলসভাবে কাজ করি। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের স্বপ্নগুলোকে বাস্তবে রূপায়ণের জন্য আমাদের অভিজ্ঞ একাডেমিক পর্ষদ বাস্তবায়ন করে গুণগতমানের একটা সুন্দর পাঠপরিকল্পনা।

এছাড়াও নিয়মানুবর্তিতা, গুণগতমানের শিক্ষা, নিয়মিত পাঠদান ইত্যাদি বিষয়ে আমরা সর্বদা সচেষ্ট। অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. সহিদুল ইসলাম জানান, গ্রাম থেকে অনেক শিক্ষার্থী মাইলস্টোন কলেজে পড়তে আসে; যাদের অনেকেরই এসএসসিতে জিপিএ-৫ থাকে না কিন্তু এইচএসসিতে তারাও জিপিএ-৫ অর্জন করে। এটি মাইলস্টোন কলেজের ভালো ফলাফলের অন্যতম সুন্দর বৈশিষ্ট্য। অধ্যক্ষ বলেন, মাইলস্টোন কলেজে পড়তে আসা ছাত্রছাত্রীদের নিয়মিত পড়াশুনার পাশাপাশি নৈতিক শিক্ষা প্রদান করা হয় যাতে তারা সুশিক্ষা গ্রহণ করে মানবিক ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে পারে। তার মতে, শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিকতা ও পরিশ্রমের ফসল এই ভালো ফলাফল। এইচএসসি পরীক্ষায় আশানুরূপ ফলাফল অর্জনের জন্য মাইলস্টোন কলেজের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা, কৃতকার্য শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন মাইলস্টোন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. সহিদুল ইসলাম ।

 

;