রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা বুধবার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল চূড়ান্ত করতে বুধবার বেলা ১১টায় কমিশন সভা আহ্বান করেছে কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

মঙ্গলবার দুপুর ২টায় জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে এ তথ্য জানান সিইসি।

তিনি বলেন, আইনানুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার বিধান আছে। সেই মোতাবেক মঙ্গলবার দুপুরে স্পিকারের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিলের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। কমিশন সভায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, বিদ্যমান ভোটার তালিকা অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্যরাই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোটার। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ৬টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে বিজয়ী সংসদ সদস্যরা এবারের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দিতে পারবেন না।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ উপনির্বাচন: চল্লিশ মিনিটে চার ভোট



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া উপনির্বাচন: চল্লিশ মিনিটে চার ভোট

ব্রাহ্মণবাড়িয়া উপনির্বাচন: চল্লিশ মিনিটে চার ভোট

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) উপনির্বাচনের সকল প্রস্তুতি শেষ করে ইভিএম মেশিনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। তবে ভোটারদের উপস্থিতি তেমন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার চল্লিশ মিনিটে চার ভোট পড়েছে আশুগঞ্জ উপজেলার আড়াইসিধা কেবি উচ্চ বিদ্যালয় পূর্ব পাশের মহিলা ভোট কেন্দ্রে। এই কেন্দ্রে ২ হাজার ৭৩১ ভোট রয়েছে। প্রিজাইডিং অফিসাররা বলছে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়বে।

বুধবার (১ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮ টা থেকে এই আসনের সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলার ১৭ টি ইউনিয়নের ১৩২ টি ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। ভোট গ্রহণ একটানা চলবে বিকাল সাড়ে চারটা পর্যন্ত। এরই মধ্যে সকাল ৯টা ১০ মিনিটে আড়াইসিধা কেবি উচ্চ বিদ্যালয়ের দুটি কেন্দ্রে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায় দুটি কেন্দ্রে মোট ১২ টি বুথ। এই সময়ে মহিলা কেন্দ্রের ৬টি বুথে ভোট পড়েছে মাত্র চারটি। আর পুরুষ কেন্দ্রের ৬টি বুথে ভোট পড়েছে ২১ টি।

আড়াইসিধা কেবি উচ্চ বিদ্যালয় পূর্ব পাশের মহিলা ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার জহিরুল ইসলাম বলেন, সকাল সাড়ে আটটা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হলেও ভোটারদের উপস্থিতি তেমন নাই। ৪০ মিনিটে চারটি ভোট পড়েছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটরদের উপসস্থিতি বাড়বে।

কেন্দ্র পরিদর্শনে আসা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এহসানুল হক শিপন বলেন, সকাল সাড়ে আটটা থেকে ইভিএমে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলা ও আশুগঞ্জ উপজেলার ১৭ টি ইউনিয়ন নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসন গঠিত। এর মধ্যে সরাইল উপজেলায় ৯ ইউনিয়ন ও আশুগঞ্জ উপজেলায় রয়েছে ৮ ইউনিয়ন। নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৩১৯ জন। এর মধ্যে সরাইল উপজেলায় ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯ এবং আশুগঞ্জ উপজেলার মোট ভোটার ১ লাখ ৩২ হাজার ২৪০ জন। উপ নির্বাচনে মোট কেন্দ্র ১৩২টি। এর মধ্যে সরাইল উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ৮৪টি ও আশুগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের ৪৮টি ভোট কেন্দ্র করা হয়েছে।

এদিকে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে উপ নির্বাচন করার লক্ষ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে প্রশাসন। নির্বাচনে সংসদীয় আসনে অফিসারসহ ১ হাজার ১শ পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও রয়েছে দুই প্লাটুন বিজিবি সদস্য, র‍্যাবের ৯টি টিম, পুলিশের ৯টি মোবাইল টিম ও ৪টি স্ট্রাইকিং টিম। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে ৩ জন পুলিশ, অস্ত্রধারী ২ জন আনসার, লাঠিধারী ১০ জন আনসার ও ২ জন গ্রাম পুলিশ। উপনির্বাচনে ১৭টি ইউনিয়নে ১৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ২ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

এ ব্যাপারে জেলা নির্বাচন অফিসার ও উপ নির্বাচনে সহকারী রিটার্নিং অফিসার জিল্লুর রহমান বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সকাল ৮ টা থেকে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মো. শাখাওয়াত হোসেন বলেন, উপনির্বাচন উপলক্ষে আমরা ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সহ্য করা হবে না। কেউ বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনে অফিসারসহ ১ হাজার ১শ পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

;

বিএনপির ছেড়ে দেয়া ৬ আসনে ভোট চলছে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির এমপিদের পদত্যাগে শূন্য হওয়া ছয়টি সংসদীয় আসনে উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় শুরু হয়েছে। আসনগুলো হলো ঠাকুরগাঁও-৩, বগুড়া-৪ ও বগুড়া-৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২। সব কেন্দ্রে ভোট হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)। ইভিএমে ভোটগ্রহণ হলেও সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকছে না কোনো কেন্দ্র।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, এ ছয় আসনের উপনির্বাচনে সাধারণ কেন্দ্রে ১৬-১৭ জন এবং গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৭-১৮ জন করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

ইসি জানিয়েছে, নির্বাচনে আগের মতোই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। শুধু বগুড়া-৬ আসনে অতিরিক্ত চার প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রয়েছে।

একনজরে ছয় আসনের প্রার্থী ও ভোটার সংখ্যা :

ঠাকুরগাঁও-৩ : এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছয়জন। ভোটকেন্দ্র ১২৮টি আর ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ২৪ হাজার ৭৪১ জন।

বগুড়া-৪ : প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নয়জন। ভোটকেন্দ্র ১১২টি এবং ভোটার তিন লাখ ২৮ হাজার ৪৬৯ জন।

বগুড়া-৬ : প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১১ জন। ভোটকেন্দ্র ১৪৩টি এবং ভোটার চার লাখ ১০ হাজার ৭৪৩ জন।

;

আজকের ছাত্রছাত্রীরা প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশের কারিগর: পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রী



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশের কারিগর আজকের এই ছাত্রছাত্রীরা। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সোনার বাংলা গড়ে তুলতে বাংলাদেশের প্রতিটি এলাকায় সোনার ছেলে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছিলেন। মন্ত্রী বলেন, সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা এগিয়ে চলেছে।

আজ রাজধানীর তেজগাঁও বিএফডিসি ৮ নম্বর ফ্লোরে পার্বত্য বিতর্ক উৎসব ২০২৩ এর গ্র্যান্ড ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এসব কথা বলেন।

শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ ও সংস্কৃতিসহ কোন দিকেই এখন আর পার্বত্য অঞ্চল পিছিয়ে নেই উল্লেখ করে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের শিক্ষা বিকাশে সরকার যেভাবে কাজ করে যাচ্ছে তা অব্যাহত থাকলে এই অঞ্চল দেশের জন্য এক বিশাল সম্পদে পরিণত হবে।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির আয়োজিত অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ এর সঞ্চালনায় ও পরিচালনায় এ সময় প্রধান পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক এডুকেশন, স্কিলস ডেভেলপমেন্ট এন্ড মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের  পরিচালক সাফি রহমান খান ও ব্র্যাক শিক্ষা কর্মসূচির প্রধান প্রফুল্ল চন্দ্র বর্মন বক্তব্য রাখেন । এ সময় বিচারক মন্ডলীর দায়িত্বে ছিলেন ৭১ টিভির বিশেষ প্রতিনিধি সাংবাদিক পার্থ সঞ্জয়, দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার চিফ রিপোর্টার ও সিটি এডিটর সিনিয়র সাংবাদিক আবুল খায়ের, ডিবিসি টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার ইসরাত জাহান উর্মী, লেখক, বিতর্ক সংগঠক ও নাট্যকার অধ্যাপক আবু মোহাম্মদ রইস এবং চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের সিনিয়র রিপোর্টার সাংবাদিক নীল মাহবুব।

এ সময় মন্ত্রী বীর বাহাদুর পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তির সুবাতাস বহার পরিবেশ সৃষ্টি করে দিয়েছেন যিনি, তাঁর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে  বলেন, ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পার্বত্য চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তির পর সুদীর্ঘ সময় ধরে নানাভাবে শোষণ বঞ্চনার শিকার পার্বত্য চট্টগ্রামে উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা সূচিত হয়েছে। দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করা পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন জনগোষ্ঠী আজ অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে শুরু করেছে। শিক্ষা দীক্ষায় এগিয়ে যাচ্ছে। জাতীয় উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে নানাভাবে অবদান রাখছে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগোষ্ঠী। আগামী দিনে যারা রাষ্ট্র পরিচালনা করবে তাদের গড়ে তোলার জন্য শুধু সরকার নয় সমাজের সকলের ইচ্ছা, আগ্রহ ও সহযোগিতা কামনা করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসং এমপি। মন্ত্রী বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের দুর্গম এলাকায় এ সরকার আগামি ২৩শে জুনের মধ্যে ৪২ হাজার ৫০০ পরিবারকে সোলার প্যানেলের মাধ্যমে বিদ্যুত বিতরণ কাজ সম্পন্ন করবে। এ সরকার প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়া নিশ্চিত করবে। মন্ত্রী বীর বাহাদুর পার্বত্য অঞ্চলের কৃষি উৎপাদনের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের এক ইঞ্চি জায়গাও পতিত ফেলে রাখা হবে না। উৎপাদনের দিক দিযে কৃষিক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তন এনে দিবে বাংলাদেশের এক দশমাংশ আয়তনের এই পার্বত্য অঞ্চলের মানুষেরা। কৃষকদের জন্য সরকারিভাবে সেচনালা, পাওয়ার পাম্প, পাওয়ার টিলার, ধান মারাই মেশিনের সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। আমরা প্রমাণ করে দেব পার্বত্য অঞ্চল দেশের জন্য বোঝা নয়, পার্বত্য অঞ্চল দেশের জন্য একটা সম্পদ।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের ৫০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০০০ শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। পার্বত্য বিতর্ক উৎসব-২০২৩ এর গ্র্যান্ড ফাইনাল প্রতিযোগিতায় পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবন জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি মাধ্যমিক বালিকায় বিদ্যালয় এবং রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার মোনঘর আবাসিক বিদ্যালয় অংশ নেয়। চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার মোনঘর আবাসিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন হয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় বিজয়ী দলের দলনেতা সুজাতা চাকমা। পরে মন্ত্রী বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

;

রেমিট্যান্স বৃদ্ধির জন্য দরকার সহায়ক পরিবেশ: রাষ্ট্রদূত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সুফিউর রহমান

রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সুফিউর রহমান

  • Font increase
  • Font Decrease

জেনেভায় নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সুফিউর রহমান বলেছেন, রেমিট্যান্স বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন উদ্বুদ্ধকরণের পাশাপাশি অনুকূল বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ এবং প্রবাসীদের অর্থ-সম্পদের নিরাপত্তা।

মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উপলক্ষে জেনেভাস্থ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন কর্তৃক আয়োজিত এক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রদূত সুফিউর রহমান জানান, সরকার প্রবাসীদের অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ৩০ ডিসেম্বর-কে ‘জাতীয় প্রবাসী দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। সুইজারল্যান্ডে স্বল্পসংখ্যক অভিবাসী থাকলেও অনেক প্রবাসী দেশের চেয়েও আনুপাতিক হারে বেশি রেমিটেন্স প্রেরণের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি প্রবাসীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং রেমিট্যান্স প্রেরণের এ ধারা অব্যাহত রাখতে তিনি প্রবাসীদের সহায়তা কামনা করেন।

জনসংখ্যাতাত্ত্বিক লভ্যাংশ কাজে লাগানোর উদ্দেশ্যে সরকার দক্ষতা বৃদ্ধির ওপর জোর দিচ্ছে, যাতে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রযাত্রা বেগবান করার সাথে তা কাজে লাগিয়ে বিদেশে দক্ষ জনশক্তি প্রেরণে এবং অভিবাসী কর্মীদের স্বার্থ, নিরাপত্তা ও অধিকার রক্ষায় সরকার দেশে এবং দেশের বাইরে বিভিন্ন দেশ ও আর্ন্তজাতিক সংস্থাসমূহের সাথে নিয়মিত কাজ করছে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলদেশের অভাবনীয় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অভিবাসীরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। দেশের চলমান উন্নয়নে অধিকতর অবদান রাখতে হলে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিবর্তিত ও দক্ষ কর্মসংস্থানের জন্য বাংলাদেশি অভিবাসী কর্মীদের অধিকতর ও নতুনতর দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে তৈরি হতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

সভায় সুইজারল্যান্ডে বসবাসরত বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রবাসীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন। তারা ই-ব্যাংকিং সুবিধা, বাংলাদেশের অফিস সময়ের বাইরেও ছুটির দিনে ব্যাংকিং সেবা, রেমিট্যান্স প্রেরণে সর্বোচ্চ সীমা ও এ সংক্রান্ত জটিলতা, রেমিট্যান্স গায়েব হওয়া ইত্যাদি বিষয় ও সমস্যার সমাধানের ওপর জোর দেন।

রাষ্ট্রদূত তাদের পরামর্শ, সুপারিশ ও নানাবিধ সমস্যার কথা শোনেন। প্রবাসীরা তাদের কল্যাণে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রশংসা করেন।

;