রবিউলের ‘ভালোবাসার নৌকা’

ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, রংপুর
ভালোবাসার নৌকা। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ভালোবাসার নৌকা। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

চার মাস ধরে নিজের রিপিয়ারিং ওয়ার্কশপে অক্লান্ত পরিশ্রম করে ব্যতিক্রমী এক নৌকা তৈরি করেছেন রবিউল ইসলাম। তবে নৌকাটি নদীতে ভাসবে না। ব্যাটারি ও চার্জার সংযুক্ত এই নৌকা চলবে উন্নয়নের মহাসড়কে। এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকায় তৈরি করা নৌকাকে শুধু নৌকা বলতে নারাজ রবিউল। এর নাম দিয়েছেন ‘ভালোবাসার নৌকা’।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা শেখ হাসিনার ভক্ত রবিউল ইসলাম। তিনি রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ২নং পারুল ইউনিয়নের হাউদারপাড় গুনজোরখাঁ গ্রামের মৃত হাফিজুল ইসলামের ছেলে। তিন ভাই-বোনের মধ্যে দ্বিতীয় তিনি।

জানা গেছে, বাবাহারা রবিউলের অভাব অনটনের সংসার চলে রিপিয়ারিং ওয়ার্কশপে কাজ করে। বাড়ি থেকে নিকটস্থ বাজারে ছোট্ট পরিসরে নিজের নামে গড়ে তুলেছেন রবিউল রিপিয়ারিং ওয়ার্কশপ। সেখানে দিনরাত কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এই ব্যস্ততার ফাঁকেই তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণে জুন মাসে শুরু করেন নৌকা তৈরির কাজ। নিজের ঘাম ঝরানো পরিশ্রমের টাকার সঙ্গে সমিতি থেকে নেয়া ঋণের টাকায় চার মাসের মাথায় শেষ হয় ভালোবাসার নৌকা তৈরির কাজ।

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

রবিউলের হাতে গড়া নৌকাটি ব্যাটারি চালিত। এই নৌকাতে বৈঠা নেই। নেই পাল তোলার ব্যবস্থা। বাঁশ-কাঠের কোনো ব্যবহারও হয়নি। সম্পূর্ণ রড, স্টিল ও টিন দিয়ে তৈরি করা নৌকাটি প্রতিদিন ১০-১২ ঘণ্টা চার্জ দিলে ১২০ কিলোমিটার চালানো সম্ভব। কিন্তু রবিউল নৌকাটি ভাড়ায় চালানো কিংবা উপার্জনের জন্য তৈরি করেননি। এই নৌকাটি প্রধানমন্ত্রীর জন্য তৈরি করেছেন তিনি।

এখন ব্যতিক্রমী এই নৌকা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে চান। এ জন্য স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাসহ সংবাদ কর্মীদের কাছে পাগলের মতো যোগাযোগ শুরু করেছেন ৩৫ বছর বয়সী এই ব্যক্তি।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় পীরগাছা থেকে নৌকাটি নিয়ে রংপুর টাউন হল পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে এসেছিলেন রবিউল। ওই সময় কথা হয় তার সঙ্গে।

রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ছোটবেলা থাকি নৌকা মার্কা ভালো লাগে। বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি মনোত আলাদা একটা মহব্বত কাজ করে। অনেক কষ্টে এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকা খরচ করি নিজ হাতে এই নৌকা তৈরি করছি। এটা দিয়া ব্যবসা করব না।’

প্রধানমন্ত্রী এই নৌকাতে উঠলে রবিউলের মন প্রশান্তিতে ভরে যাবে উল্লেখ করে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে মোর ভালোবাসার নৌকা উপহার দিমু। যদি প্রধানমন্ত্রী এই নৌকাত চড়ে, তাইলে মুই শান্তি পাইম।’

আপনার মতামত লিখুন :