রংপুরে গণপরিবহনে দেদারছে ধূমপান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, রংপুর
রংপুরে গণপরিবহনে চলছে প্রকাশ্যে ধূমপান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রংপুরে গণপরিবহনে চলছে প্রকাশ্যে ধূমপান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের অধিকাংশ পাবলিক প্লেসে ধূমপায়ীরা দেদারছে ধূমপান করছেন। বিশেষ করে গণপরিবহনে অর্থাৎ অটোরিকশা, রিকশা, সিএনজি ও আন্তঃজেলায় চলাচলকৃত লোকাল বাসগুলোতে চলে দেদারছে ধূমপান। এতে করে ধূমপায়ীদের পাশাপাশি যানবাহনে থাকা অন্য যাত্রীরাও সমান ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

বুধবার (১৬ অক্টোবর) রংপুর মহানগরীর বিভিন্ন এলাকাঘুরে এমন চিত্রই চোখে পড়ে। অথচ পাবলিক পরিবহন বা গণপরিবহনে ধূমপান আইনগতভাবে নিষিদ্ধ।

দুপুরে রংপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বিভিন্ন বয়সী লোকের সমাগম। পাশেই বেশ কয়েকজন ধূমপায়ী সিগারেট টানছেন। বাস টার্মিনালের অদূরেই হাইওয়ে রাস্তায় চলন্ত অটোরিকশায় এক যাত্রীকে সিগারেট টানতে দেখা গেল। অটোরিকশাটি থামিয়ে গণপরিবহনে কেন ধূমপায়ী করছেন এমন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর না দিয়ে সে সিগারেটটি ফেলে দেয়।

এ সময় ওই অটোরিকশায় থাকা নাজমীন নাহার নামে স্কুলপড়ুয়া এক যাত্রী বলে উঠলেন, ‘ধূমপানের গন্ধে আমাদের নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হচ্ছে- এজন্য ওনাকে (ধূমপানকারী) বেশ কয়েকবার সিগারেটটি ফেলে দিতে অনুরোধ করলেও তিনি ফেলেননি।’

একইভাবে মহানগরীর পার্কের মোড়, শাপলা চত্বর, পায়রা চত্বর, মেডিক্যাল মোড়, দর্শনা, সাতমাথা, বাংলাদেশ ব্যাংক মোড়সহ বেশ কয়েকটি এলাকার রাস্তায় অটোরিকশা-রিকশা-সিএনজিতে চালক ও যাত্রীদের ধূমপান করতে দেখা গেছে।

এভাবে গণপরিবহনে দেদারছে ধূমপানের ফলে পাশের যাত্রীরাও সমান ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। এতে ধূমপায়ী-অধূমপায়ীরা ক্যান্সার, আলসার, হাইপ্রেসার, হৃদরোগসহ ধূমপানজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে জানান উন্নয়ন ও মানবাধিকার সংস্থা এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট-এসিডির তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের রংপুর অঞ্চলের অ্যাডভোকেসি অফিসার মো. তুহিন ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘গ্লোবাল এ্যাডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে-গ্যাট্স’ এর ২০১৭ রিপোর্ট অনুযায়ী- দেশের গণপরিবহনে যাতায়াতকারী দুই কোটি ৫০ লাখ মানুষ পরোক্ষভাবে ধূমপানের শিকার। এর উল্লেখযোগ্য একটি অংশ ধূমপানজনিত নানা রোগে আক্রান্ত। রংপুরেও গণপরিবহনে যাত্রী এবং চালকদের অনেক বেশি ধূমপান করতে দেখা যায়। গণপরিবহনে পরোক্ষ ধূমপানের হাত থেকে যাত্রীদের বাঁচাতে হলে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সঠিক বাস্তবায়ন জরুরি।’

এদিকে, গণপরিবহনে ধূমপান বন্ধের পদক্ষেপ হিসেবে ২০ হাজার স্টিকার তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র। পাশাপাশি রংপুর সিটিকে তামাকমুক্ত করতে তার নানা পরিকল্পনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ‘তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন আছে কিন্তু এর বাস্তব প্রয়োগ নেই। অন্তত পাবলিক প্লেসে যাতে ধূমপান না হয় এজন্য ‘স্মোকিং জোন’ তৈরির উদ্যোগের কথা ভাবছি। এছাড়া এক মাসের মধ্যেই জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মহানগর এলাকায় আমরা বড় ধরনের একটি র‌্যালি করার উদ্যোগ নিয়েছি।’

আপনার মতামত লিখুন :