সুন্দরবনের রাসমেলাকে কেন্দ্র করে তৎপর হরিণ শিকারিরা

মানজারুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, খুলনা
রাসমেলায় অংশ নেওয়া পুণ্যার্থীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাসমেলায় অংশ নেওয়া পুণ্যার্থীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতিবছর কার্তিক মাসের শেষ বা অগ্রহায়ণের প্রথম দিকে শুক্লপক্ষের ভরা পূর্ণিমায় সুন্দরবনের দুবলার চরের আলোরকোলে ৩ দিনব্যাপী রাসমেলা অনুষ্ঠিত হয়। এটি এশিয়ার সব থেকে বড় সমুদ্র মেলা। রাসমেলায় হাজার হাজার পুণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের আগমনে মেলা উৎসব মুখর হয়ে ওঠে।

প্রতিবারের ন্যায় এ বছরের আগামী ১০ নভেম্বর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত ৩ দিনব্যাপী রাসমেলা অনুষ্ঠিত হবে। সুন্দরবনের দুবলারচরে রাসমেলাকে ঘিরে উপকূলীয় অঞ্চলে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। ইতোমধ্যে মেলায় যেতে পূণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের প্রস্তুতি চলছে। এ মেলাকে কেন্দ্র করে সুন্দরবন উপকূলবর্তী মানুষের মধ্যে উৎসব মুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। মেলায় যাওয়ার জন্য লঞ্চ, ট্রলার, সাম্পান, জালি বোট, স্পিড বোট ভাড়াসহ বিভিন্ন প্রস্তুতি চলছে।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা পূর্ণিমার সাগরের জোয়ারে নোনা জলে স্নানের মধ্যদিয়ে পাপমোচন হয়ে মনস্কামনা পূর্ণ হবে, এ বিশ্বাসে রাসমেলায় যোগ দিলেও সময়ের ব্যবধানে এখন নানা ধর্ম ও বর্ণের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লঞ্চ, ট্রলার ও নৌকা যোগে তীর্থযাত্রী ও দর্শনার্থীরা সমবেত হয় এখানে। মেলা উপভোগ করতে অসংখ্য বিদেশি পর্যটকের সমাগম ঘটে। তবে মেলাকে সামনে রেখে চোরা শিকারি ও মৌসুমি শিকারি চক্র সুন্দরবনের হরিণ শিকারের সুযোগ নেয়। তাই তাদের আগাম তৎপরতাও শুরু হয়েছে।

সুন্দরবনের রাসমেলাকে কেন্দ্র করে তৎপর শিকারিরা
১৯২৩ সালে ঠাকুর হরিচাঁদের অনুসারী হরিভজন নামে এক সাধকের হাত ধরেই এ মেলার শুরু

 

সুন্দরবন বঙ্গোপসাগরের কুঙ্গা ও মরা পশুর নদীর মোহনায় জেগে ওঠা দুবলার চর দ্বীপের রাসমেলা সাগর কেন্দ্রিক সবচেয়ে বড় উৎসব। মেলার ইতিহাস মতে, ১৯২৩ সালে ঠাকুর হরিচাঁদের অনুসারী হরিভজন নামে এক সাধকের হাত ধরেই এ মেলার শুরু। সেই থেকে প্রতিবছর কার্ত্তিক-অগ্রহায়ণ মাসে পূর্ণিমা তিথিতে শুক্লা পক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পাপমোচন ও পার্থিব জীবনের কামনা-বাসনা পূরণের লক্ষে গঙ্গা স্নানের মধ্য দিয়ে এ উৎসব পালন করে আসছে। তবে সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে সনাতনীদের পাশাপাশি অন্যান্য ধর্ম-বর্ণের দেশি-বিদেশি পর্যটকদেরও মন কাড়তে সক্ষম হয়েছে উৎসবটি। জেলে ও বনজীবীসহ অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরাও সুন্দরবনের দরবেশ গাজী-কালুর স্মরণে মানত দিতে যোগ দিয়ে থাকেন উৎসবে। আর তাই মেলাকে ঘিরেই প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে পর্যটক ও পূজারিদের অন্তরালে চোরা শিকারিদের হরিণ নিয়ে যত আয়োজন। অনেকের মতে হরিণ শিকার করতে না পারলে যেন মেলার আগমনই তাদের কাছে বৃথা।

বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, সুন্দরবন সংলগ্ন উপজেলার চোরা শিকারি চক্র সক্রিয় রয়েছে। সুন্দরবনে প্রবেশে কড়াকড়ির মধ্যেও রাস পূর্ণিমার মেলাকে ঘিরে শিকারিদের হরিণ নিধনের সুযোগ গ্রহণ করে। সুন্দরবন সংলগ্ন উপজেলার শিকারিরা রাসমেলার আড়ালে হরিণ শিকারের ফাঁদ, জাল, বড়শিসহ বিভিন্ন উপকরণ তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে। হরিণ শিকারি চক্র আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় পরিবেশবিদরা ধারণা করছেন, এভাবে হরিণ শিকার করলে হরিণের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়বে।

সুন্দরবনের রাসমেলাকে কেন্দ্র করে তৎপর শিকারিরা
সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পাপমোচন ও পার্থিব জীবনের কামনা-বাসনা পূরণের লক্ষে গঙ্গা স্নানের মধ্য দিয়ে এ উৎসব পালন করে আসছে

 

অভিনব কায়দায় শিকারিরা হরিণ শিকার করে। শিকারিদের কাছ থেকে জানা গেছে, নাইলনের তৈরি ফাঁদ, জাল পেতে, স্পিং বসানো ফাঁদ, বিষটোপ, তীর, গুলি করে, কলার মধ্যে বড়শি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা ফাঁদ ও ঘাস পাতার ওপর চেতনা নাশক ওষুধ দিয়ে হরিণ নিধন করা হয়।

রাসমেলা উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তা গ্রহণ করা হলেও শ্যামনগর, কয়রা, পাইকগাছা, দাকোপ, বটিয়াঘাটা, মংলা, রামপাল, সহ উপকূলীয় এলাকার শিকারিরা মেলা শুরু হওয়ার ১০/১৫ দিন আগে জেলে বা বনজীবী সেজে বনের মধ্যে প্রবেশ করে রেখে আসে শিকার করার উপকরণ। মেলার আনন্দে মেতে ওঠা দর্শনার্থী ও নিরাপত্তা কর্মীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে এসব ফাঁদ দিয়ে হরিণ শিকারের সুযোগ গ্রহণ করে। রাসমেলার সময় হিরণ পয়েন্ট, দুর্বারচর আলোর কোলসহ বিভিন্ন চর ও সুন্দরবন সাগর মোহনায় পুর্ণার্থী, দর্শনার্থী ও পর্যটকসহ হাজার হাজার মানুষের সমাগম ঘটে। এ সময় জনসমুদ্রে শিকারি চক্র মিশে গিয়ে চোখ ফাকি দিয়ে হরিণ নিধনে মেতে ওঠে। ব্যাপক নজরদারী থাকা স্বত্বেও শুধুমাত্র হরিণ শিকারের উদ্দেশ্যে এ বিশাল মেলায় দর্শনার্থীরুপে আগত শিকারিদের আটকানো অনেক সময় সম্ভব হয় না।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) খুলনার সম্পাদক এড. কুদরতই-খুদা বলেন, রাসমেলাকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর হরিণ শিকারিদের তৎপরতা বেড়ে যায়। এই সময়ে প্রচুর তীর্থযাত্রী সুন্দরবনে প্রবেশের সুযোগ পায়। তাদের ভিড়ে মিশে গিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশের জন্য তৎপর থাকে শিকারিরা। পেশাদার চোরা শিকারিরা বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধারণ করে ইতোমধ্যেই প্রবেশ করতে শুরু করেছে বনাঞ্চলে। বন বিভাগসহ কোস্টগার্ড ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর তৎপরতাই চোরা শিকারিদের এ কার্যক্রম বন্ধ করতে পারে।

সুন্দরবনের রাসমেলাকে কেন্দ্র করে তৎপর শিকারিরা
১৯২৩ সালে ঠাকুর হরিচাঁদের অনুসারী হরিভজন নামে এক সাধকের হাত ধরেই এ মেলার শুরু

 

এ দিকে পুণ্যস্নানে নিরাপদে যাতায়াতের জন্য দর্শনার্থী ও তীর্থযাত্রীদের জন্য সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগ আটটি পথ নির্ধারণ করেছে। এ সকল পথে বন বিভাগ, পুলিশ, বিজিবি ও কোস্টগার্ড বাহিনীর টহল দল তীর্থযাত্রী ও দর্শনার্থীদের জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে।

অনুমোদিত আটটি পথ হলো, বুড়িগোয়ালিনী, কোবাদক থেকে বাটুলানদী-বলনদী-পাটকোষ্টা হয়ে হংসরাজ নদী হয়ে দুবলারচর। কদমতলা হতে ইছামতি নদী, দোবেকী হয়ে আড়পাঙ্গাসিয়া-কাগাদোবেকী হয়ে দুবলার চর। কৈখালী স্টেশন হয়ে মাদার গাং, খোপড়াখালী ভাড়ানী, দোবেকী হয়ে আড়পাঙ্গাসিয়া-কাগাদোবেকী হয়ে দুবলার চর। কয়রা, কাশিয়াবাদ, খাসিটানা, বজবজা হয়ে আড়ুয়া শিবসা-শিবসা নদী-মরজাত হয়ে দুবলার চর। নলিয়ান স্টেশন হয়ে শিবসা-মরজাত নদী হয়ে দুবলার চর। ঢাংমারী অথবা চাঁদপাই স্টেশন হয়ে পশুর নদী দিয়ে দুবলারচর। বগী-বলেশ্বর-সুপতি স্টেশন-কচিখালী-শেলার চর হয়ে দুবলার চর এবং শরণখোলা স্টেশন-সুপতি স্টেশন-কচিখালী-শেলার চর হয়ে দুবলার চর।

দর্শনার্থী ও তীর্থযাত্রীদের ১০ নভেম্বর হতে ১২ নভেম্বর এ তিন দিনের জন্য অনুমতি প্রদান করা হবে এবং প্রবেশের সময় এন্ট্রি পথে নির্দিষ্ট ফি প্রদান করতে হবে। যাত্রীরা নির্ধারিত রুটের পছন্দমতো একটি মাত্র পথ ব্যবহারের সুযোগ পাবেন এবং দিনের বেলায় চলাচল করতে পারবেন। বনবিভাগের চেকিং পয়েন্ট ছাড়া অন্য কোথাও নৌকা, লঞ্চ বা ট্রলার থামানো যাবে না। প্রতিটি ট্রলারের গায়ে রং দিয়ে বিএলসি অথবা সিরিয়াল নম্বর লিখতে হবে। রাস পূর্ণিমায় আগত পুণ্যার্থীদের সুন্দরবনে প্রবেশের সময় জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট হতে প্রাপ্ত সনদপত্র সাথে রাখতে হবে। পরিবেশ দূষণ করে এমন বস্তু, মাইক বাজানো, পটকা ও বাজি ফোটানো, বিস্ফোরক দ্রব্য, দেশীয় যে কোনো অস্ত্র এবং আগ্নেয়াস্ত্র বহন থেকে যাত্রীদের বিরত থাকতে হবে। সুন্দরবনের অভ্যন্তরে অবস্থানকালীন সবসময় টোকেন ও টিকেট নিজের সঙ্গে রাখতে হবে।

সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. বশিরুল আল মামুন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, পশ্চিম বনবিভাগে অভিযান পরিচালনার জন্য বিভিন্ন টিম গঠন করা হয়েছে। তীর্থযাত্রীরা যাতে নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারে তার জন্য সকল প্রকার সহযোগিতা করা হবে। রাসমেলাকে কেন্দ্র করে কঠোর নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হবে। র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সার্বক্ষণিক টহলে নিয়জিত থাকবে। কোনো প্রকার চোরা শিকারিরা সুযোগ পাবেনা। বনের সম্পদ ধ্বংসকারীদের কঠোর হস্তে দমন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :