সিলেট আ’লীগে অর্ধশত অনুপ্রবেশকারী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, সিলেট
সিলেট জেলার মানচিত্র, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সিলেট জেলার মানচিত্র, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেট বিভাগে বিএনপি-জামায়াতসহ বিভিন্ন দল থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন কয়েকশত ব্যক্তি। তাদের অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছে আওয়ামী লীগ। ইতোমধ্যে তাদের একটি তালিকা করা হয়েছে।

শনিবার (৯ নভেম্বর) এসব বিতর্কিত ব্যক্তিদের তালিকা সিলেট বিভাগের চার জেলার দায়িত্বশীল নেতাদের কাছে পাঠানো হবে। এছাড়া তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে দলটির বিভিন্ন শাখা ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, সিলেট বিভাগে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীর প্রাথমিক তালিকায় নাম এসেছে ৫৫ জনের। তবে অনুপ্রবেশকারী তালিকায় আরও নামযুক্ত হতে পারে বলে আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, ‘আমার কাছে ৫৫ জন অনুপ্রবেশকারীর নাম রয়েছে। এই তালিকা বিভিন্নভাবে খোঁজখবর নিয়ে তৈরি করা হয়েছে। এই তালিকায় কারো নাম বাদ পড়লে তাদের নাম যুক্ত করা হবে।’

জানা যায়, অনুপ্রবেশকারীর তালিকায় রয়েছেন ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি আতিকুর রহমান, বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা ইদ্রিস আলী, মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলা তাঁতী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ আশরাফ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক কোষাধ্যক্ষ শাহ আলম, জেলার কুলাউড়ার বরমচাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাছিদুর রহমান, হাজীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াদুদ, সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলী মর্তুজা, হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি এটিএম জুয়েল, সুনামগঞ্জে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে এসেছেন ধর্মপাশার ফেরদৌসুর রহমান, দিরাই উপজেলায় আরিফুজ্জামান চৌধুরী, মতিউর রহমান মতি ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি শাহজাহান সর্দার প্রমুখ।

অনুপ্রবেশকারীর তালিকায় থাকা ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি আতিকুর রহমান বলেন, তালিকায় আমার নাম কিভাবে এলো। আমি সাধারণ প্রকৃতির মানুষ। দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িত। আমি অনুপ্রবেশকারী নই।’

আপনার মতামত লিখুন :