শক্তি-গতি দুটোই বেড়েছে বুলবুলের

  ঘূর্ণিঝড় বুলবুল

নিউজ ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: সংগৃৃহীত

ছবি: সংগৃৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শক্তি সঞ্চার করে ক্রমেই ভয়াবহ আকার ধারণ করছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। শুরুর দিকে ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের বেগ ঘণ্টায় ৮০-৯০ কিলোমিটার ছিল।

তবে শুক্রবার (৮ নভেম্বর) দুপুর থেকে ক্রমেই শক্তি বাড়তে থাকে এটির। শক্তি বাড়িয়ে ইতোমধ্যে দ্বিতীয় ক্যাটাগরির ঘূর্ণিঝড়ে উন্নীত হয়েছে। এটি এখন আঘাত হানলে ১৩০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইবে। যে বাতাসে ঘরবাড়ি উড়িয়ে নিয়ে যেতে পারে। তবে উপকূলের দিকে আসতে আসতে আরও শক্তির সঞ্চার হতে পারে।

এদিকে, গতিবেগও বেড়েছে বুলবুলের। প্রায় ২০ কিলোমিটার গতিবেগে বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ অভিমুখে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়টি। এ গতিবেগে আঘাত হানলে ভালোই ক্ষয়ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে। অথচ শুরুর দিকে এর গতিবেগ ছিল মাত্র ৮-১০ কিলোমিটার। কিনারে আসতে আসতে আরও গতিবেগ বাড়তে পারে।

শুক্রবার ওয়ার্ল্ড মেটেরোলজিক্যাল অরগানাইজেশনের ওয়েবসাইটে এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়। এটিকে খুব মারাত্মক ঘূর্ণিঝড় বলে আখ্যা দিয়েছে সংস্থাটি।

এদিকে, কক্সবাজার উপকূল থেকে ৬৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে বুলবুল। এটি বাংলাদেশের উপকূলে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানতে পারে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ মো. আব্দুর রহমান।

এছাড়া পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ থেকে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার দূরে, উড়িষ্যার পারাদ্বীপ থেকে ৩১০ কিলোমিটার এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়া থেকে ঘূর্ণিঝড় রয়েছে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে বুলবুল।

ধারণা করা হচ্ছে, শনিবার দিনের যেকোনো সময় আঘাত হানতে পারে এ ঘূর্ণিঝড়। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দেশের বেশ কয়েক জেলায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হচ্ছে।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় উপকূল এলাকার সাইক্লোন শেল্টারগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে। একই সঙ্গে মেডিকেল টিমও প্রস্তুত করা হচ্ছে। উপকূল এলাকায় সরকারি কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। জেলায় জেলায় জরুরি বৈঠক ডেকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

  ঘূর্ণিঝড় বুলবুল