ব্যানার-ফেস্টুনে সৌন্দর্য হারাচ্ছে বিএম কলেজ

জহির রায়হান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরিশাল
বিএম কলেজের সর্বত্রই এমন ব্যানার-ফেস্টুন দেখা যাচ্ছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

বিএম কলেজের সর্বত্রই এমন ব্যানার-ফেস্টুন দেখা যাচ্ছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ ক্যাম্পাস বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুন আর পোস্টারে ছেয়ে গেছে। ফলে কলেজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। কলেজ প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বিভিন্ন কোচিং সেন্টার, পোশাক-কসমেটিকস দোকানের বিজ্ঞাপন সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন ও পোস্টার লাগানো হয়েছে যাচ্ছেতাইভাবে। এছাড়া রাজনৈতিক দল ও মাহফিলের ব্যানারও লক্ষ্য করা গেছে ক্যাম্পাসে।

বুধবার (৪ নভেম্বর) দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, কলেজের বিভিন্ন গাছের সঙ্গে বড় বড় পেরেক মেরে কয়েকশ ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটানো ও ঝোলানো হয়েছে। এছাড়াও কলেজের চারটি বড় বড় নোটিশ বোর্ডে লাগানো আছে রীড, কনফার্ম, অ্যাচিভমেন্ট নামের কয়েকটি কোচিং সেন্টারের পোস্টার।

কলেজের চারদিকে সীমানা প্রাচীর থেকে শুরু করে প্রবেশদ্বার, জিরো পয়েন্ট, মুক্তমঞ্চসহ গোটা ক্যাম্পাসে এসব ব্যানার-ফেস্টুন ঝোলানো রয়েছে। আবার কোচিং সেন্টারগুলোর পোস্টার কলেজের বিভিন্ন দেয়ালেও লাগানো আছে।

বিএম কলেজ বরিশাল
কলেজের বিভিন্ন গাছের সাথে বড় বড় পেরেক মেরে কয়েকশ ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটানো ও ঝোলানো হয়েছে

এদিকে, কলেজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনা ও গাছের সঙ্গে ঝোলানো ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণের দাবি জানিয়েছে ছাত্র ইউনিয়ন বিএম কলেজ সংসদ। ইতোমধ্যে সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ কলেজ অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে দুইবার মৌখিকভাবে আলোচনা করেছেন।

ছাত্র ইউনিয়ন বিএম কলেজ সংসদের সভাপতি কিশোর কুমার বালা বার্তা২৪.কমকে বলেন, কলেজে ঝোলানো ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণের জন্য কলেজ অধ্যক্ষের কাছে দুইবার করে বলা হয়েছে। তিনি ২ ডিসেম্বরের মধ্যে শ্রমিক দিয়ে সকল ব্যানার ফেস্টুন ও পোস্টার অপসারণ করবেন বলে আশ্বাস দেন। কিন্তু ৪ ডিসেম্বর অতিবাহিত হলেও এখনো বিভিন্ন কোচিং সেন্টারের ব্যানার-ফেস্টুন দেখা যাচ্ছে। দেয়ালে দেয়ালে লাগানো আছে পোস্টার। এখন আইন করে এসব বন্ধ করা উচিত।’

এই ছাত্র নেতা আরো বলেন, ‘যেহেতু কলেজে ছাত্র রাজনীতি রয়েছে তাই রাজনৈতিক দলের ব্যানার-ফেস্টুন নির্দিষ্ট স্থানে লাগানো যেতে পারে।’

বিএম কলেজ
কলেজের চারদিকে সীমানা প্রাচীর থেকে শুরু করে প্রবেশদ্বারসহ গোটা ক্যাম্পাসে ব্যানার-ফেস্টুন ঝোলানো রয়েছে

কলেজের মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ও বরিশাল জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি শম্পা দাস বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের অস্তিত্বের সাথে মিশে আছেন প্রকৃতির কবি জীবনানন্দ দাস। আর সেই প্রকৃতি আর কলেজের সৌন্দর্য নষ্ট করছে ব্যানার-ফেস্টুন লাগানো শিক্ষা বাণিজ্যিককরণ কোচিং সেন্টারগুলো। বড় বড় পেরেক গাছে মেরে ব্যানার-ফেস্টুন লাগানোর ফলে গাছগুলো তাদের সৌন্দর্য হারাচ্ছে। তাই কলেজ প্রশাসনের কাছে অনতিবিলম্বে সকল ধরনের ব্যানার-ফেস্টুন আর পোস্টার অপসারণের দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের অধ্যক্ষ, অধ্যাপক মো. শফিকুর রহমান সিকদার বার্তা২৪.কমকে জানান, সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ ক্যাম্পাসে সকল ধরনের কোচিং সেন্টারসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ব্যানার-ফেস্টুন ও পোস্টার লাগানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তারপরও গোপনে গোপনে কোচিং সেন্টারগুলোর তাদের পোস্টারগুলো কলেজ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় লাগিয়ে যাচ্ছে। ফলে কলেজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। তবে খুব দ্রুত লাগানো ব্যানার-ফেস্টুন ও পোস্টারগুলো অপসারণ করা হবে।

পরবর্তীতে যাতে এ ধরনের ব্যানার পোস্টারগুলো না লাগাতে পারে তার জন্য প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি কোচিং সেন্টারগুলোকে অবহিত করবেন বলেও জানান এই অধ্যক্ষ।

আপনার মতামত লিখুন :