'বাপু আমাদের পেটে লাথি দিবেন না'

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
হরিজন অধিকার আদায় সংগঠনের অবস্থান কর্মসূচি, ছবি: বার্তা২৪.কম

হরিজন অধিকার আদায় সংগঠনের অবস্থান কর্মসূচি, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

'বাপু আমাদের পেটে লাথি দিবেন না। আমরা তো সুইপার। বংশ পরম্পরায় শহরের রাস্তাঘাট, অফিস আদালত, ব্যাংকসহ নানা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করে আসছি। এখন আমাদের জাত হরিজন সম্প্রদায়ের লোকদের বাদ দিয়ে অন্যদেরকে দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। আমরা অতি দুঃখ-কষ্টে জীবন যাপন করছি।' এভাবেই নিজের পেশাগত কাজ ফেরত পাবার আকুতি মিনতি করেন ঝুমা রানী।

রোববার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে অগ্রণী ব্যাংক রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত অবস্থান কর্মসূচিতে ঝুমা রানীকে চাকরিতে বহাল রাখার দাবি জানান হরিজন অধিকার আদায় সংগঠন।

নগরীর সেন্ট্রাল রোডে অবস্থায় কর্মসূচিতে ঝুমা রানী অভিযোগ করেন, অগ্রণী ব্যাংক রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ে দীর্ঘ সময় ধরে তার মা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ করতেন। সেই ধারাবাহিকতায় মায়ের অসুস্থতার সময় থেকে ঝুমা ব্যাংকে ঝাড়ু দেওয়ার কাজ করে আসছিলেন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে তার মায়ের মৃত্যু হলে ঝুমাকে চাকরি থেকে বাদ দেয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। এতে সন্তান সন্ততি নিয়ে তাকে খুব কষ্টে দিন কাটাতে হচ্ছে ঝুমা রানীকে।

একই রকম ঘটনা নগরীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চলছে। একারণে প্রকৃত হরিজন সম্প্রদায়ের লোকেরা কাজের সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ করে সংগঠনটির প্রতিনিধিরা।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন- হরিজন অধিকার আদায় সংগঠনের সভাপতি সুরেশ বাসফোর, সাজু বাসফোর, সদস্য রাজু বাসফোর, জয় বাসফোর, রাজা বাসফোর, বিকাশ হাড়ি, শাকিল বাসফোর, ডলি রাণী, কবিতা রাণী, ভুক্তভোগী ঝুমা রাণী, সংগঠনের উপদেষ্টা শবরন বাসফোর প্রমুখ।

এসময় ঝুমা রানীকে অগ্রণী ব্যাংকে দ্রুত নিয়োগ চূড়ান্তকরণসহ রংপুরের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রকৃত হরিজন সুইপারদের চাকরি নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়। অন্যথায় জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি দেন সংগঠনের প্রতিনিধিরা।

আপনার মতামত লিখুন :