বঙ্গবন্ধু সত্য ও ন্যায়ের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন

  • Font increase
  • Font Decrease

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সত্য, ন্যায় ও বাঙালির অধিকার আদায়ের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বঙ্গবন্ধু আমাদের যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন সেই সোনার বাংলার স্বপ্ন আজকে আমরা অর্জনের পথে আছি। তারই সুযোগ্য কন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কারণে আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে যাত্রা শুরু করেছি।’

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (এফডিসি) গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড খ্যাত যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তবলা বাদক পণ্ডিত সুদর্শন দাশের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত নানা কর্মসূচি পালন করব। পরবর্তীতে আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করব। এ দুবছরে সারাদেশে আমাদের বর্তমানের অভাবনীয় সাফল্য তুলে ধরব। বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ, এই ব্র্যান্ডিংটা আমরা তুলে ধরতে চাই। শেখ হাসিনা আছেন বলেই আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন, আমাদের স্বপ্ন- সোনার বাংলা; উন্নত সমৃদ্ধশালী স্থিতিশীল অর্থনীতি, যেখানে অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান শিক্ষাসেবা, স্বাস্থ্যসেবা সবার জন্য নিশ্চিত হবে- এমন রাষ্ট্রের কল্পনা করতে পারি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আশা করি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সোনার বাংলা অবশ্যই অর্জন করব। আর এই অর্জন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের বিনিয়োগ ছাড়াও সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সোনার মানুষ। যারা সোনার মানুষ হবে তাদের সবল, সত ও একাগ্রচিত্তের লোক হতে হবে। তারা স্বাস্থ্যবান লোক হবে, তাদের স্বপ্ন থাকবে উন্নত। বড় স্বপ্ন থাকলে বড় অর্জনও সম্ভব হয়।’

পণ্ডিত সুদর্শন দাশের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মোমেন বলেন, ‘৫৫৭ ঘণ্টা ১১ মিনিট একনাগাড়ে তবলা বাজিয়ে রেকর্ড গড়তে আমরা পারি। আমরা বিজয়ের জাতি। আমরা সর্বক্ষেত্রে তা প্রমাণ করব।’

উল্লেখ্য, তবলার নানা ধুনো বাজিয়ে চলেছেন পণ্ডিত সুদর্শন দাশ। ছুটিতে বেড়াতে এসে'ও থেমে নেই তার সাধনা। কঠোর পরিশ্রম আর অধ্যবসায়ের কারণে সুদর্শন দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এখন বিশ্ব মাতাচ্ছেন। ইতোমধ্যেই চারটি বিশ্ব রেকর্ডের মালিক চট্টগ্রামের ছেলে সুদর্শন। ২০১৬ সালে একটানা ৫শ ৫৭ ঘণ্টা ১১ মিনিট তবলা বাজিয়ে রেকর্ড গড়েন তিনি। এরপরই যেন রেকর্ডের নেশায় পেয়ে বসে তাকে। ২০১৭ সালে একটানা ২৭ ঘণ্টা ঢোল, ২০১৮ সালে ১৪ ঘণ্টা ড্রাম রোল এবং সবশেষ চলতি বছর ১শ ৪০ ঘণ্টা ড্রাম সেট বাজিয়ে তিনি চতুর্থ রেকর্ডটি নিজের দখলে নেন।

আপনার মতামত লিখুন :