জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ৯ দশমিক ৯



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে রিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে রিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

  • Font increase
  • Font Decrease

নতুন করে ২০ বছরের কর্মকাণ্ডের একটি রূপরেখা অনুমোদন করা হয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায়। ২০২১ সাল থেকে ২০৪১ সালের মধ্যে এই পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন করা হবে। উন্নত দেশে যেতে ২০ বছর মেয়াদি পরিকল্পনাটি তৈরি করেছে সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ (জিইডি)। এতে ২০৪১ সালে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৯ দশমিক ৯ শতাংশ।

মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে ব্রিফিং করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি সাংবাদিকদের এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, প্রায় চার ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে ২০ বছর মেয়াদি একটি পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে তাকে বাজেট বলা যাবে না। এটা একটা রূপ রেখা । ২০ বছর লম্বা সময়। আমরা কি করতে চাই সে সব জায়গার উপরে ফোকাস করা হয়েছে। আমাদের দারিদ্র দূর করার লক্ষ্য। সুশাসনকে আরও সুসংহত করতে হবে। আমাদের আইসিটিকে বিশ্বমানের করে গড়ে তোলা হবে। এসব বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আগামী এক মাসের ভেতরে এসব বিষয়ের উপর একটি মতামত নেওয়া হবে। চূড়ান্ত খসড়া এটা হলেও। চূড়ান্ত খসড়া এক, চূড়ান্ত খসড়া দুই হতে পারে।

সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম বলেন, আগামী এক মাসের ভেতরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে মতামত দেবেন।

তিনি বলেন, আগামী ২০ বছর পর বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে কোথায় যাবে এর একটি রূপরেখা এটা। হয়তো আরও কিছু সংযোজন হবে। প্রধানমন্ত্রী সম্পদের পুনর্বন্টনের বিষয়ে জোর দিতে বলেছেন। তিনি এ বিষয়ে আমাদের পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে দেশের প্রথম প্রেক্ষিত পরিকল্পনাটি (২০১০-২০২১) তৈরি করা হয়। এটি বাস্তবায়ন এনইসিতে করা হয় ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০১০-১৫) ও সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার (২০১৬-২০) মাধ্যমে। ফলে ২০০৯ সালের ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি থেকে বেড়ে এখন ৮ শতাংশের ঘর অতিক্রম করেছে।

নতুন প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় বলা হয়েছে, ২০২০ সালে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ২ শতাংশ থেকে বেড়ে ২০৩১ সালে দাঁড়াবে ৯ শতাংশে। সেটি আবার বাড়তে বাড়তে ২০৪১ সালে গিয়ে হবে ৯ দশমিক ৯ শতাংশ। সেই সঙ্গে চরম দারিদ্র্যের হার ২০২০ সালে ৯ দশমিক ৩৮ শতাংশ থেকে কমে ২০৩১ সালে পৌঁছাবে ২ দশমিক ৫৫ শতাংশে । পরিকল্পনার শেষ বছর ২০৪১ সালে কমে দাঁড়াবে শূন্য দশমিক ৬৮ শতাংশে। অন্যদিকে মাঝারি দারিদ্র্য হার ১৮ দশমিক ৮২ শতাংশ থেকে কমে ২০৩১ সালে দাঁড়াবে ৭ দশমিক শূন্য শতাংশে । পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শেষে ২০৪১ সালে এ হার হবে ৩ শতাংশের নিচে। এছাড়া মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ুষ্কাল বেড়ে দাঁড়াবে ৮০ বছরে। এক্ষেত্রে ২০১৮ সালের হিসেবে গড় আয় ৭২ দশমিক ৩ বছর থেকে ২০৩১ সালে বেড়ে হবে ৭৫ বছর।