কুষ্টিয়ার ৭ প্রবেশ দ্বারে ব্যারিকেড

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা রোধে কুষ্টিয়া জেলার সাতটি প্রবেশদ্বারে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) রাতে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, শুক্রবার (১০ এপ্রিল) সকাল ৮টা থেকে প্রতিটি ব্যারিকেডের কাছে পুলিশ ও আনসার নিয়োগ করা হবে।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন এক পরিপত্রে জানান, করোনার প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধের লক্ষ্যে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, মাদারীপুর, গাজীপুরসহ করোনা সংক্রমিত কোনো জেলা থেকে কোনো ব্যক্তি বা পরিবহন এ কুষ্টিয়ায় প্রবেশ করতে পারবে না।

এদিকে দৌলতপুর ও কুমারখালী উপজেলার তিনটি প্রবেশ পথও লকডাউন করা হয়েছে।

শুক্রবার সকালে কুমারখালী উপজেলার তিনটি ও দৌলতপুর উপজেলার তিনটি প্রবেশ পথে ব্যারিকেড দিয়ে এ লকডাউন করা হয়। এর ফলে মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলা এবং ভেড়ামারা উপজেলার সঙ্গে সড়কপথে দৌলতপুরের যোগাযোগ বন্ধ হয়েছে।

এদিকে দৌলতপুর উপজেলার খলিশাকুন্ডি ব্রিজের ওপর এবং ধর্মদহ এলাকার কাজীপুর ব্রিজের ওপর ব্যারিকেড দিয়ে গাংনী উপজেলার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এছাড়া আল্লার দর্গা বাজারে ব্যারিকেড দিয়ে পাশের ভেড়ামারা উপজেলার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন জানান, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার গোস্বামীদুর্গাপুরে নারায়ণগঞ্জ থেকে ৩০ পরিবার, কুমারখালী উপজেলার দু’টি ইউনিয়নে নারায়ণগঞ্জ ও মাদারীপুর থেকে ১৪০ পরিবার এবং দৌলতপুর উপজেলায় ৩০টি পরিবার এসে আত্মগোপন করেছে। পরিবারগুলোকে চিহ্নিত করার পর ওই ইউনিয়ন ও গ্রামগুলো লকডাউন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস