সন্ধ্যা ৬টার পর ঘর থেকে বের হলেই আইনানুগ ব্যবস্থা

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছুটির দিনে কেউ রাস্তায় বের হলেই পুলিশের জেরার মুখে পড়ছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

ছুটির দিনে কেউ রাস্তায় বের হলেই পুলিশের জেরার মুখে পড়ছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সাধারণ ছুটি ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে এ ছুটি অন্যান্য সাধারণ ছুটির মতো বিবেচিত হবে না। ছুটির মধ্যে সন্ধ্যা ৬টার পর কেউ বাড়ি থেকে বের হলে, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শুক্রবার (১০ এপ্রিল) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব কাজী মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ছুটি সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে সরকারের এ কঠোর অবস্থানের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বণিত ছুটি সাধারণ ছুটির মতো বিবেচিত হবে না। ছুটির সময়ে নিম্ন বর্ণিত নির্দেশনাগুলো কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে।

নির্দেশনাগুলো হলো:

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রশমনে জনগণকে অবশ্যই ঘরে অবস্থান করতে হবে। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের না হওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করা হলো। সন্ধ্যা ৬টার পর কেউ ঘরের বাইরে বের হতে পারবেন না। এ নির্দেশ অমান্য করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় চলাচল কঠোরভাবে সীমিত করা হলো। বিভাগ, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে কর্মরত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করতে হবে। জরুরি পরিষেবার (বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস, ফায়ার সার্ভিস, পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট ইত্যাদি) ক্ষেত্রে এ ব্যবস্থা প্রযোজ্য হবে না। কৃষি পণ্য, সার, কীটনাশক, খাদ্য, শিল্প পণ্য, চিকিৎসা সরঞ্জামাদি, জরুরি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য পরিবহন এবং কাঁচাবাজার, খাবার, ওষুধের দোকান, হাসপাতাল এ ছুটির আওতা বহির্ভূত থাকবে। জরুরি প্রয়োজনে অফিস খোলা রাখা যাবে। প্রয়োজনে ওষুধ শিল্প ও রপ্তানিমুখী শিল্প কলকারখানা চালু রাখতে পারবে। জনগণের প্রয়োজন বিবেচনায় ছুটির সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক সীমিত পরিসরে ব্যাংকিং ব্যবস্থা চালু রাখার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

এতে ছুটির বিষয়ে বলা হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলা এবং এর ব্যাপক বিস্তার রোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে গত ২৪ মার্চ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে প্রথমে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। পরে তিন দফায় ৪ থেকে ৯, এরপর ৯ থেকে ১৪ এবং সর্ব শেষে ১৪ থেকে বাড়িয়ে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বাড়ানো হলো। ২৬ মার্চ থেকে ২৫ এপ্রিলের সাধারণ ছুটির মধ্যে শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলো এবং স্বাধিনতা দিবস ও পহেলা বৈশাখ রয়েছে।
ছুটির বিষয়টি নিশ্চিত করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, সাধারণ ছুটি সাত দিন বেড়েছে। সঙ্গে চার দিন সাপ্তাহিক ছুটি রয়েছে। ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি থাকবে। ২৬ এপ্রিল খুলবে। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস