৬৬ দিন পর বরিশালে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরিশাল
ভেদুরিয়া লঞ্চঘাট থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চ/ছবি: বার্তা২৪.কম

ভেদুরিয়া লঞ্চঘাট থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চ/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধের ৬৬ দিন পর সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে বরিশালের সকল অভ‍্যন্তরীণ নৌপথে লঞ্চসহ যাত্রী নৌযান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

রোববার (৩১ মে) সকাল থেকে সীমিত পরিসরে অভ‍্যন্তরীণ নৌপথে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়। পাশাপাশি সকাল থেকেই বরিশাল থেকে ভোলা, লক্ষ্মীপুর রুটেও লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে।

এমভি সঞ্চিতা লঞ্চের মাস্টার শাহে আলম জানান, তারা সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী স্বাস্থ্যসুরক্ষা মেনে সকাল সাড়ে ৮টায় ভেদুরিয়া লঞ্চঘাট থেকে বরিশালের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে। এর আগে সকাল পৌনে আটটার দিকে আরেকটি লঞ্চ ভেদুরিয়া থেকে বরিশালের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

এম ভি পারাবত লঞ্চ কোম্পানির মালিক শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, করোনা মোকাবিলা ও এর বিস্তার রোধে যাত্রীদের দূরত্ব বজায় রাখার লক্ষে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অর্ধেক যাত্রী বহন করার জন্য লঞ্চের মাস্টার ও স্টাফদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ বরিশাল নদী বন্দর ও পরিবহন বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মো. আজমল হুদা মিঠু সরকার জানান, রোববার সকাল থেকে যথানিয়মে লঞ্চ চলাচল করছে। রাতে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রীবাহী লঞ্চগুলো রওনা দিবে।

তিনি আরো জানান, করোনাভাইরাসের পরিপ্রেক্ষিতে নৌপথে যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে ১৪টি নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিআইডব্লিউটিএ এ নির্দেশনা মেনে লঞ্চে যাত্রী পরিবহনের নির্দেশ দিয়েছে। সার্ভে সনদ অনুযায়ী যাত্রী নিতে হবে। কোনো লঞ্চ অতিরিক্ত যাত্রী বহন করছে কিনা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে কিনা- তা মনিটরিং করা হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, রোববার সকাল ৮টায় গ্রীন লাইন ওয়াটার সার্ভিস ঢাকার লালকুঠি এলাকা থেকে বরিশালের উদ্দেশে রওনা হবে। এরপর ঢাকা থেকে চাঁদপুর ও শরীয়তপুরগামী সব লঞ্চ চলাচল শুরু হবে। বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী ও পিরোজপুরের উদ্দেশে লঞ্চগুলো ঢাকা ত্যাগ করবে। এছাড়া সন্ধ্যা ৬টায় সরকারি স্টিমার মধূমতি বাদামতলী ঘাট থেকে বরিশাল, মোড়লগঞ্জ ও খুলনার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে বলে কথা রয়েছে।

এর আগে করোনার কারণে ৬৬ দিন বন্ধ ছিল দেশের দক্ষিণাঞ্চলে ঢাকা-বরিশালসহ ৩৪টি জেলায় লঞ্চ ও স্টিমার চলাচল।

আপনার মতামত লিখুন :