৩ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চন্দ্রগ্রহণ, দেখাবে পূর্ণিমার চাঁদের মতো

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
৩ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চন্দ্রগ্রহণ, দেখাবে পূর্ণিমার চাঁদের মতো

৩ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চন্দ্রগ্রহণ, দেখাবে পূর্ণিমার চাঁদের মতো

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২০ সালের দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ হতে যাচ্ছে শুক্রবার (৫ জুন)। এর আগে জানুয়ারিতে হয়েছিল বছরের প্রথম চন্দ্রগ্রহণ। প্রথম গ্রহণটির মতো এটিও উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ।

এবারের গ্রহণ থাকবে ৩ ঘণ্টা ১৮ মিনিট।বাংলাদেশ সময় ১১টা ৪৫ মিনিটে এই গ্রহণ শুরু হবে। শেষ হবে ৬ জুন বাংলাদেশ সময় ৩.০৪ মিনিটে। বাংলাদেশ ছাড়াও ইউরোপ, আফ্রিকা, এশিয়ার বিশেষ কিছু এলাকা, ও অস্ট্রেলিয়া থেকে দেখা যাবে।

এবার চন্দ্রগ্রহণে চাঁদকে দেখাবে প্রায় পূর্ণিমার চাঁদের মতো। কারণ পৃথিবীর প্রধান ছায়ার ভেতরে থাকবে না চাঁদ। বরং তা থাকবে পৃথিবীর প্রচ্ছায়ার মধ্যে। তাই এবারের এই চন্দ্রগ্রহণকে বলা হচ্ছে penumbral lunar eclipse। সাধারণভাবে জুন মাসের চাঁদকে বলা হয় স্ট্রবেরি মুন। তাই এই চন্দ্রগ্রহণকে বলা হচ্ছে স্ট্রবেরি penumbral lunar eclipse।

যেভাবে দেখবেন:

সূর্যগ্রহণের মতো চন্দ্রগ্রহণ দেখতে কোনও আলাদা সতর্কতার প্রয়োজন নেই। খালি চোখেই এই গ্রহণ দেখা যেতে পারে। তাতে চোখের ক্ষতির কোনও আশঙ্কা নেই। তবে টেলিস্কোপের সাহায্যে এই গ্রহণ দেখলে নিঃসন্দেহে গ্রহণের সৌন্দর্য আরও তীব্রভাবে ধরা পড়বে।

চন্দ্রগ্রহণ কী:

পৃথিবী যখন চন্দ্র ও সূর্য-এর মধ্যে চলে আসে, তখন পৃথিবীর আড়ালে চাঁদ ঢাকা পড়ে এবং চন্দ্রগ্রহণ হয়। সূর্য একটি তারা বলে তার আলো পৃথিবীতে বাঁধা পায় এবং চাঁদ পৃথিবীর ছায়ায় ঢাকা পড়ে যায়। পৃথিবী চাঁদের চেয়ে বড় হওয়ায়, পৃথিবীর ছায়া চন্দ্রপৃষ্ঠকে পুরোপুরি ঢেকে ফেলে। এই কারণে চন্দ্রগ্রহণ পৃথিবীর কোনো কোনো অংশে পূর্ণগ্রাস হিসাবে দেখা যায়। এই পূর্ণগ্রাস বা আংশিকগ্রাস পৃথিবীর সকল স্থান থেকে একই রকম দেখা যায়। কিন্তু পৃথিবীর সকল স্থানে কোনো না কোনো সময় পূর্ণ বা আংশিক গ্রহণ দেখা যায়।

উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ কি:

উপচ্ছায় চন্দ্রগ্রহণ তখনই হয় যখন সূর্য ও চন্দ্রের মাঝামাঝি পৃথিবী চ‌লে আসে। কিন্তু এই তিনজন সরলরেখায় থাকে না। এই পরিস্থিতিতে হয় চাঁদের উপচ্ছায়া গ্রহণ।

আপনার মতামত লিখুন :