শ্বশুরবাড়ির লোকজনের মারপিটে ঘর জামাইয়ের ‘মৃত্যু’, মরদেহ চুরির চেষ্টা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: প্রতীকী।

ছবি: প্রতীকী।

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার সোনাতলায় শ্বশুরবাড়ির লোকজনের মারপিটে ঠান্ডু মিয়া (৫২) নামে এক ঘর জামাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (১ আগস্ট) দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি। এরপর মরদেহ হাসপাতাল থেকে চুরি করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এ সময় পুলিশের সহযোগিতায় মরদেহ উদ্ধার করে ওই হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়।

নিহত ঠান্ডু মিয়া সোনাতলা থানার সুজায়েত পুর গ্রামের মৃত আছিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি একই থানার লোহাগাড়া গ্রামের ফরিদ উদ্দিনের মেয়েকে বিয়ে করে ঘর জামাই থাকতেন।

নিহতের ভাই আবুল কালাম আজাদ জানান, টাকা লেনদেনের জের ধরে শুক্রবার (৩১ জুলাই) রাতে ঠান্ডু মিয়াকে লাঠি দিয়ে মারধর করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এতে গুরুতর অসুস্থ হন তিনি। শনিবার সকালে ওই হাসপাতালে ঠান্ডু মিয়াকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ভর্তির সময় জানানো হয় ঠান্ডু মিয়া বিষাক্ত গ্যাস ট্যাবলেট সেবন করেছেন। হাসপাতালে ভর্তির পর দুপুর ১টার দিকে ঠান্ডু মিয়া মারা যান।

এদিকে ঠান্ডু মিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজন কৌশলে হাসপাতাল থেকে মরদেহ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় নিহতের ভাই সহ অন্যান্য আত্মীয়স্বজনরা হাসপাতাল চত্বরেই মরদেহ আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে মেডিকেল কলেজ ফাঁড়ি পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এ সময় ঠান্ডু মিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজন হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (ছিলিমপুর) পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজ মন্ডল জানান, ঠান্ডু মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কাগজপত্র বগুড়া সদর থানায় পাঠানো হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :