'অপপ্রচারে অর্থ নষ্ট না করে করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়ান'

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে নিয়ে অপপ্রচারে অর্থ নষ্ট না করে সেই অর্থ দিয়ে করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়ান। সাবেক মন্ত্রী তারানা হালিমকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও যুবদলের সাবেক সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল এ মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেন, অর্থ নষ্ট করেছেন, সময় নষ্ট করেছেন। সেই সময় ও অর্থ করোনা রোগীদের জন্য ব্যয় করলে আপনাদের ভালো হত। বন্যা দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ালে ভালো হতো।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা জাসাস এর আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও জিয়াউর রহমান পরিবারের সদস্যদের ব্যঙ্গ করে মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট কাহিনী নির্ভর কুরুচিপূর্ণ প্রচারের প্রতিবাদে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

আলাল বলেন, জিয়াউর রহমানকে নিয়েই তো তারা ল্যাবরেটরিতে গবেষণা করবে। বেগম জিয়া, তারেক রহমানকে নিয়ে তো করবে এটাই স্বাভাবিক। বিএনপি নেতা কর্মীদেরকে নিয়েই তো করবে। কারণ যদি তাই না হয় তাহলে গবেষণা করবে কাকে নিয়ে? খন্দকার মোশতাককে নিয়ে? লাভ নাই, সে তো কোনো দল করে নাই। যিনি শেখ মুজিবুর এর হত্যার সময় সেনা প্রধান ছিলেন শফিউল্লাহকে নিয়ে? লাভ নাই কারণ তিনি নৌকার টিকিটে এমপি হয়েছে। যিনি শেখ মুজিব হত্যার সময় বিডিআর প্রধান ছিলেন তাকে নিয়ে গবেষণা করার দরকার নেই। কর্নেল ফারুক খানকে নিয়েও গবেষণার দরকার নেই। এদের কাউকে নিয়ে এই গবেষণা করার দরকার নেই।

তিনি বলেন, এমনিতে আওয়ামী লীগের নাম শুনলে বাংলাদেশের মানুষের পায়ের ঘাম মাথায় উঠে। আওয়ামী লীগ চলে উল্টা পথে। জিনিসের দাম বাড়িয়ে বলে দাম বাড়েনি। পেঁয়াজ ধরা যাবে না, লবণ ধরা যাবে না, তেল, চাল, ডাল প্রত্যেকটা জিনিসের দাম এত বেড়ে গেছে যে মানুষের নাভিশ্বাস উঠে গেছে। এখান থেকে মানুষের চোখ সরাতেই জিয়াউর রহমানের নামে নানা কিছু করছে।

যুবদলের সাবেক সভাপতি বলেন, জিয়াউর রহমানের নামে এত কিছু করত না সরকার যদি না তিনি মাত্র সাড়ে তিন বছরে বিএনপি'র মত এমন একটি দল প্রতিষ্ঠা করে না যেতেন। বিএনপির বয়স ৪২ বছর আওয়ামী লীগের বয়স ৭২ বছর। তার পরেও সমানতালে বিএনপি আওয়ামী লীগকে টেক্কা দিচ্ছে।

জাসাস এর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, শুধু এই প্রতিবাদী মানববন্ধনের সীমাবদ্ধ থাকবে না। যারা এই অপচেষ্টার সাথে লিপ্ত। যারা এই অপকর্মের সাথে লিপ্ত। তাদের যত অপকর্ম আছে সেই দলিল জনগণের সামনে তুলে ধরতে হবে। সেই দায়িত্বটাও জাসাসকে নিতে হবে।

সংগঠনের সভাপতি ডক্টর মামুন আহমেদের সভাপতিত্বে এবং সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম, সংগঠনের সহ-সভাপতি মো. সানাউল্লাহ, শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা প্রমুখ।