রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টিকা আগে নিলে অসুবিধা কোথায় প্রশ্ন রিজভীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী

  • Font increase
  • Font Decrease

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী করোনার ভ্যাকসিন আগে নিলে অসুবিধা কোথায় এমন প্রশ্ন রেখেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেছেন, এই সরকার জনগণের সাথে তামাশা শুরু করেছে। ভারতে এই ভ্যাকসিন নিয়ে অনেকে মারা গেছে। এজন্য আমরা বলেছিলাম নিরাপত্তা প্রমাণের জন্য ক্ষমতাসীনদের উচিত আগে ভ্যাকসিন গ্রহণ করা। কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ভ্যাকসিন আগে নিয়েছিল এবং যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসিও ভ্যাকসিন আগে নিয়েছিল। সুতরাং আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি আগে নিলে অসুবিধা কোথায়? তারা আগে নিলে জনগণের আস্থা বাড়বে এই ভ্যাকসিনের ওপর।

রোববার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, হাছান মাহমুদ মিথ্যার যন্ত্রে পরিণত হয়ে গিয়েছে। মিথ্যার যন্ত্রে পরিণত হয়ে বলেছেন বিএনপিকে এ ভ্যাকসিন আগে দিবে। এদের উদ্দেশ্য হলো বিএনপিকে নিধন করা। খুন, গুম দিয়ে বিএনপিকে নিধন করার চেষ্টা করেছিল। এখন ভ্যাকসিনের নিরাপত্তার জন্য বিএনপিকে আগে দিয়ে নিধন করার চেষ্টা। এসরকার মানুষের মরা বাঁচা নিয়ে তিরস্কারও শুরু করেছে।

আরাফাত রহমান কোকোর স্মৃতি স্মরণ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আরাফাত রহমান কোকো রাজনৈতিক ব্যক্তি ছিলেন না। তবে রাজনীতি পরিবারের সন্তান ছিলেন তিনি। রাজনীতি পরিবারের সন্তান হিসেবে রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহ তাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছে।

রিজভী আরও বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এবং বারবার যিনি স্বৈরাচারের অন্ধকার থেকে গণতন্ত্রকে উদ্ধার করেছেন এখনো তিনি অসংখ্য মিথ্যাচার নিপীড়ন সহ্য করেও, আপন শিরদাঁড়ায় সংগ্রাম করছেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সহধর্মিনী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠপুত্র ক্রীড়া সাংগঠনিক আরাফাত রহমান কোকোর ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির পক্ষ থেকে আজকের দোয়া মাহফিল। আমি আবারও আরাফাত রহমান কোকোর আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। এই মৃত্যুর জন্য সম্পন্ন হাসিনা দায়ী। মায়ের এমন অবস্থা কি কোন সন্তান সহ্য করতে পারে? তাই প্রকারান্তরে আরাফাত রহমান কোকোকে হত্যা করেছে এই আওয়ামী লীগ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুস সালাম আজাদ, মীর নেওয়াজ আলী প্রমুখ।