শ্রমিকদলের সভাপতি ও কার্যকরী সভাপতির পাল্টাপাল্টি চিঠি!



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজীপুর জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলহাজ উদ্দিন ও সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মিনার উদ্দিনকে পাল্টাপাল্টি বহিষ্কার ও স্বপদে বহাল রেখে চিঠি দিয়েছে শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও কার্যকারী সভাপতি সালাউদ্দিন সরকার। এখন কোন চিঠি কার্যকর তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে গাজীপুর জেলা শ্রমিকদলের সাধারণ নেতাকর্মীদের মাঝে। এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান চান শ্রমিক দলের নেতাকর্মীরা।

জুলাই মাসের ১৪ তারিখে কেন্দ্রীয় শ্রমিকদলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে গাজীপুর জেলা শ্রমিকদলের সম্পাদক মোহাম্মদ আলহাজ উদ্দিন ও সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মিনার উদ্দিন স্বপদে বহাল আছে এবং তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার নির্দেশ প্রদান করেন।

এরপর গত ১৬ জুলাই কেন্দ্রীয় শ্রমিকদলের কার্যকারী সভাপতি সালাউদ্দিন সরকার ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে জেলা শ্রমিকদলের সম্পাদক মোহাম্মদ আলহাজ উদ্দিন ও সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মিনার উদ্দিনকে তাদের পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করে।

এবিষয় জানতে চাইলে গাজীপুর জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি আক্তারুজ্জামান বাবুল বলেন, জেলা কমিটির অধিকাংশ সদস্যরা ও জেলার অধিকাংশ কাউন্সিলরা যদি অনাস্থা প্রকাশ করে তবে কেন্দ্রকে শুধু অবহিত করতে হয়। অধিকাংশ জেলা কমিটির সদস্য ও কাউন্সিলররা জেলা সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলহাজ উদ্দিন ও সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মিনার উদ্দিনের ওপর অনাস্থা প্রকাশ করে। আমরা সেটা কেন্দ্রীয় কমিটিকে অবহিত করেছি।

জেলা সভাপতি আক্তারুজ্জামান বাবুলের অনাস্থার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে গাজীপুর জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলহাজ উদ্দিন বলেন, সে যে অভিযোগ করেছেন তার মধ্যে ২২ জনের সাইন নকল। ওইখানে সাইন করা ৫২ জনের মধ্যে ৪০ জনের সাইন আমার কাছে আছে। আমি সুবিচারের আবেদন জানিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও শ্রমিকদলের প্রধান উপদেষ্টা ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে চিঠি দিয়েছি।

এবিষয় জানতে চাইলে শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এবিষয়ে জানতে চেয়ে ফোন করা হলে শ্রমিকদলের কার্যকরী সভাপতি সালাউদ্দিন সরকারের ফোন নম্বর বন্ধ পাওয়া গেছে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসাইন বলেন, সভাপতি থাকা অবস্থায় সভাপতি দায়িত্ব না দিলে কার্যকরী সভাপতি কোন চিঠিতে স্বাক্ষর করতে পারে না। তাই তাদের অব্যাহতি প্রদানের চিঠি অবৈধ।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিম দীর্ঘ দুই-তিন বছর যাবৎ অনুপস্থিত। কোনও চিঠিতে স্বাক্ষর করতে তাকে পাওয়া যায় না। তাছাড়া সভাপতি কোন আদেশ দিলে তার সাথে আলোচনা না করে সেক্রেটারি সেই আদেশ প্রত্যাহার করতে পারে না।