এরশাদপুত্র সাদের আসনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা জিএম কাদেরের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে আয়োজিত কর্মীসভা

জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে আয়োজিত কর্মীসভা

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী সংসদ নির্বাচনে রংপুর-৩ আসনের প্রার্থী হবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। বর্তমানে এ আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে আছেন জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পুত্র রাহগীর আল মাহি এরশাদ ওরফে সাদ এরশাদ।

আরেক ঘোষণায় রংপুর সিটি করপোরেশনে মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে পুনরায় মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান।

এজন্য দলের নেতাকর্মীদের এখন থেকেই নির্বাচনী কর্মকাণ্ড শুরু করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমি আগাম এ ঘোষণা দিলাম, যদি কেউ আমার নির্দেশ অমান্য করে মেয়র পদে প্রার্থী হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এরপর তিনি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার হাত তুলে ধরলে সমবেত নেতাকর্মীরা করতালির মাধ্যমে তাদের সমর্থন জানান।

শনিবার (২১ আগস্ট) বিকালে রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডস্থ জেলা জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে আয়োজিত কর্মীসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ ঘোষণা দেন জিএম কাদের।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, দেশে এখন মাত্র তিনটি রাজনৈতিক দল আছে- আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি। বাকি দলগুলো বানের পানির মতো ভেসে গেছে। দেশে আইনের শাসন নেই, আইন অনুযায়ী দেশ চলছে না।

জাতীয় পার্টিতে যে গণজোয়ার তৈরি হয়েছে, দলে দলে বিভিন্ন দল থেকে নেতাকর্মীরা জাতীয় পার্টিতে যোগদানই এর প্রমাণ। এছাড়াও রাজনীতি করেন না এমন অনেকে লাইন ধরেছেন দলে যোগ দিতে।

বর্তমানে রংপুর -৩ (সদর) আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে আছেন জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পুত্র রাহগীর আল মাহি এরশাদ ওরফে সাদ এরশাদ। জিএম কাদের লালমনিরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য।

চেয়ারম্যানের এ ঘোষণার মধ্য দিয়ে আগামী সংসদ নির্বাচনে রাহগীর আল মাহি এরশাদ রংপুর-৩ আসনে দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন না।

এর আগে দলীয় কার্যালয়ে এসে পৌঁছালে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী জিএম কাদেরকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। এ সময় আরও বক্তব্য দেন মহানগর জাপা সভাপতি রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির, জেলা সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।