নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে এরশাদের জন্মদিন



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ৯২ তম জন্ম দিন। জাতীয় পার্টি বিভিন্ন বর্নিল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এরশাদের জন্মদিন উৎযাপন করছে।

সকাল ৯ টায় জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয় কাকরাইলে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান মালার শুভ সুচনা করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি।

এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় অতিরিক্ত মহাসচিব এড. মোঃ রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা রওশন আরা মান্নান এমপি, যুগ্ম মহাসচিব ফখরুল আহসান শাহজাদা, এড. আব্দুল হামিদ খান ভাষানী, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এস এম আল জুবায়ের, যুগ্ম সম্পাদক মন্ডলির সদস্য সেরনিয়াবাত সেকান্দার আলী, সমরেশ মন্ডল মানিক, মোঃ শাহজাহান কবির।

এরপর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল আলম রুবেলের নেতৃত্বে আকতার দেওয়ান, হুমায়ুন কবির মজুমদার, মোঃ মিজানুর রহমান, মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর আলম পাঠানের নেতৃত্বে আবুল খায়ের, এস এম হাশেম, জাতীয় মহিলা পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমা আক্তার এমপির নেতৃত্বে এড. লাকি বেগম, সৈয়দ পারভীন তারেক, শারমিন পারভীন লিজা, শাহনাজ পারভীন, মিনি খান, মেহরুন্নিসা হিয়া, জাতীয় যুব সংহতির সদস্য সচিব আহাদ ইউ চৌধুরী শাহিনের নেতৃত্বে আবু নাসের বাদল, জিয়াউর রহমান বিপুল, জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোঃ বেলাল হোসেনের নেতৃত্বে মোঃ গোলাম মোস্তফা, জায়েদুল ইসলাম জাহিদ, জাতীয় মৎস্যজীবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মীর সামসুল আলম লিপ্টন, জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি ইব্রাহিম খান জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আল মামুনের নেতৃত্বে শাহ ইমরান রিপন, শাহরিয়ার রাসেল, মোঃ নাজমুল রেজা, মোঃ রুহুল আমিন গাজী বিপ্লব, শিবলি আহম্মেদ সবুজ, জাতীয় যুব সংহতি মহানগর দক্ষিণের সদস্য সচিব শেখ মোঃ সরোয়ারের নেতৃত্বে মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু, নিজ নিজ সংগঠনের পক্ষে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন।

এরপর মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি আনন্দ উপস্থিত নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে কেক কাটেন ও দোয়া অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। সারাদেশে যথাযোগ্য মযাদার সঙ্গে দিবসটি পালন করছে জাপা। সন্ধ্যায় হোটেল সোনারগাঁও বলরুমে প্রথমবারের মতো এরশাদের নামে প্রবতিত "পল্লীবন্ধু পদক" প্রদান করা হবে। ইতোমধ্যে ৮ বিশিষ্ট ব্যাক্তির নাম ঘোষণা করা হয়েছে। অন্যদিকে রংপুরেও দোয়া মাহফিলসহ নানা কমসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে।

‘আগস্ট যাইতে দেন টের পাবেন কত ধানে কত চাল’-ফখরুলকে নানক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘আগস্ট যাইতে দেন টের পাবেন কত ধানে কত চাল’-ফখরুলকে নানক

‘আগস্ট যাইতে দেন টের পাবেন কত ধানে কত চাল’-ফখরুলকে নানক

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আমাদেরকে রাজপথের ভয় দেখান, রাজপথের ভয় দেখিয়ে লাভ নাই। নৈরাজ্যের পথ ছেড়ে দিয়ে নির্বাচনের পথে হাঁটুন, নির্বাচনকে মোকাবিলা করেন। আগস্ট মাসটা যাইতে দেন তারপর টের পাবেন কত ধানে কত চাল।

শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডি-৩২ নম্বরের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে ‘‘ইতিহাস কথা কয়” শীর্ষক তিনদিনব্যাপী আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। শাহাবুদ্দিন মজুমদারের এই আলোকচিত্র কর্মশালার আয়োজন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছে জানিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নানক বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সামরিকতন্ত্রকে পদাঘাত করার জন্য এই আওয়ামী লীগ লড়াই করেছে, ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে।

সরকার পতনে বিএনপি নেতাদের হুমকি-ধামকির প্রসঙ্গে হুশিয়ারি উচ্চারণ করে আওয়ামী লীগ নেতা নানক বলেন, পরিষ্কারভাবে বলতে চাই মির্জা ফখরুল সাহেব নৈরাজ্যের পথ ছেড়ে দেন, নৈরাজ্য সৃষ্টি করে শব্দবোমা ব্যবহার করে হুমকি-ধামকি দিয়ে এই আওয়ামী লীগকে ভয় দেখানো যাবে না। এই আওয়ামী লীগ আপনাদের প্রতিরোধ করেছে। জনগণকে সাথে নিয়ে ঘাড় ধরে ক্ষমতা থেকে নামিয়ে নিয়েছে। আর এই আওয়ামী লীগকে ভয় দেখান? নৈরাজ্যের পথ ছেড়ে দেন, নির্বাচনের পথে হাঁটুন। নির্বাচনকে মোকাবিলা করেন।

সেই নির্বাচন সাংবিধানসস্মতভাবে নির্বাচন হবে, সেই নির্বাচনে যদি আপনারা জয়লাভ করতে পারেন আপনাদেরকে ফুলের মালা দিয়ে আমরা বরণ করে নেব। আপনাদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবো,  তাই তো ইতিহাস বলে মনে করেন তিনি।

নানক বলেন, শেখ হাসিনা যখন প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন, তিনিই একমাত্র প্রধানমন্ত্রী যিনি ৫বছর পূর্ণ ক্ষমতায় থেকে শান্তিপূর্ণভাবে সাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছেন। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের ধারক-বাহক। আমাদের নেত্রী সত্যের ধারক-বাহক। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের ধারক-বাহক।

তিনি আরও বলেন, নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫ আগস্টের হত্যাকারীদের বিচার করেছেন, আর যারা এই হত্যাকান্ডে এই ষড়যন্ত্রের পিছনে কলকাঠি নেড়েছে, প্লট তৈরি করেছে, পূর্বের পরিস্থিতি করেছে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে বাংলার মানুষের কাছে তাদেরকে চিহ্নিত করা এখন আমাদের নৈতিক এবং পবিত্র দায়িত্ব।

এই বাংলাদেশে আবার ওই হায়েনারা যে হায়েনারা ২১ আগস্ট, ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করে ক্ষান্ত হয়নি। তারা আবার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। সেই হায়েনাদের আর বাংলাদেশের মানুষ চায় না। তাদের প্রত্যাখান করেছে। তাই রাজপথে যেকোন পরিস্থিতি মোকাবিলায় দলের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান তিনি।

একইসঙ্গে দেশের সকল প্রগতিশীল শক্তি, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ষড়যন্ত্রকে মোকাবিলার উদাত্ত আহ্বান জানান সাবেক প্রতিমন্ত্রী নানক।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ সভাপতি শামীম শাহরিয়ার, তানভীর শাকিল জয় এমপি, আব্দুল আলীম বেপারী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আজিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুর রহমান টিটু, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল প্রমূখ।

;

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনগণের সঙ্গে ‘তামাশা’ করছেন: ফখরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

  • Font increase
  • Font Decrease

অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশকে ‘বেহেশত’ উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনগণের সঙ্গে ‘তামাশা’ করছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, দেশের মানুষ যখন প্রতি মুহূর্তে ভোগান্তি পোহাচ্ছে, কষ্ট করছে, সেই সময়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, (মানুষ) বেহেশতে আছে। আমি দুঃখিত ব্যক্তিগত পর্যায়ে কথা বলছি। ইদানীং উনার (পররাষ্ট্রমন্ত্রী) চেহারার মধ্যে যেটা ফুটে উঠেছে…ক্ষিপ্ত হয়েছেন; বেশিরভাগ মন্ত্রীদের যেটা হয়েছে…প্রচুর লুটপাট হচ্ছে। সেই লুটপাটের কারণে তারা জনগণের সঙ্গে পরিহাস, তামাশা শুরু করেছে।

শনিবার (১১ আগস্ট) গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল বলেন, মন্ত্রী মহোদয় এর আগেও এমন এমন সব উক্তি করেছেন, যেগুলো কিছুটা হাস্যকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে উনার এরকম পরিহাস করার কোনো অধিকার নেই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ইসমাইল জবিউল্লাহ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

;

‘প্রত্যেককে কথা-বার্তা, আচার-আচরণে দায়িত্বশীল হতে হবে’



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ওবায়দুল কাদের, ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের, ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রত্যেককে কথা-বার্তা, আচার-আচরণে দায়িত্বশীল হতে হবে। এ সময় দায়িত্বজ্ঞানহীন কোনো কথা বলা সমীচীন নয়। ক্ষমতার দাপট দেখানো সমীচীন নয়। ঠান্ডা মাথায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। মানুষের জন্য কাজ করতে হবে।

শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে মহিলা শ্রমিক লীগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

 

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, বিএনপি আমাদের শত্রু ভাবে। অথচ ইতিহাস বলে আমাদের সঙ্গে শত্রুতা তারাই করেছে বারেবারে। আমরা শত্রুতা করিনি। ২১ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীকে টার্গেট করে গ্রেনেড হামলা করার পরও তিনি কোকোর মৃত্যুর পর বেগম জিয়ার বাড়িতে ছুটে গিয়েছিলেন শোকাহত মাকে সান্ত্বনা দিতে। ঘরের দরজা বন্ধ, বাইরের গেট বন্ধ শেখ হাসিনার মুখের ওপর। প্রতিপক্ষের মতো আচরণ আমরা করতে চেয়েছি, গণভবনে সংলাপ করেছি কিন্তু তারা আমাদের শত্রুই ভেবে এসেছে, শত্রুতাই করছে।

তিনি বলেন, সারা বিশ্বের নেতিবাচক প্রভাব আজ বাংলাদেশ মোকাবিলা করছে। আমরা জানি অনেক মানুষের কষ্ট হচ্ছে। কস্ট অব লিভিং যেভাবে বেড়ে গেছে, মানুষ কষ্ট পাচ্ছে এটা ঠিক। গরিব মানুষ, প্রান্তিক মানুষ। কিন্তু আমাদের সামনে কোনো উপায় ছিল না।

পশ্চিমা দেশগুলোর পরিস্থিতি তুলে ধরে তিনি বলেন, কেউই তো আজকে আরামে নেই। বাংলাদেশের জনগণ যাদের কষ্ট হচ্ছে, আপনাদের শুধু এটুকু বলবো, চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই। শেখ হাসিনা; আজকে তার ঘুম নেই। আন্তরিকভাবে আপনাদের এই সংকট উত্তরণের জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। করোনাকালেও তিনি রাতে ঘুমাতে পারেননি। এখনো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ঘুম হারাম হয়ে গেছে। কীভাবে মানুষকে একটু আরাম দেওয়া যায়, স্বস্তি দেওয়া যায় সেটাই আমাদের নেত্রী করে যাচ্ছেন। তিনি মানুষকে স্বস্তি দিতে চান। পৃথিবীর বহু দেশ আজকে সমস্যায় জর্জরিত। এটাকে কেন্দ্র করে ফ্রান্স, আমেরিকার বিরোধী দল সরকার উৎখাতে নামেনি। যুক্তরাজ্য, জার্মানি, জাপানের বিরোধী দল সরকার উৎখাতে প্রোটেস্ট করেনি। আমাদের প্রশ্ন সেখানে, সহযোগিতা চেয়েছিলাম আমরা। এই সংকটে সারা দুনিয়া সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আর বাংলাদেশে তারা সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করছে। নিজেরা ইচ্ছা মতো মিছিল করছে পল্টন-প্রেসক্লাবের সামনে। এতদিন বলতো, আওয়ামী লীগ আমাদের মিছিল-মিটিং করতে দেয় না। এখন যখন নেত্রী বলেছেন, ওরা করুক। যখন মিছিল মিটিং করতে পারছে তখন তাদের সাহসের ডানা বিস্তারিত হয়ে গেছে। এখন তারা বলে বিদেশি শক্তির চাপে বাধা দিচ্ছে না। তাহলে এখন স্বীকার করলেন পুলিশ বাধা দিচ্ছে না।

বিদেশি শক্তির চাপে মাথানত করার মতো লোক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নয়। মনে রাখবেন কোনো শক্তির কাছে মাথানত করি না আমরা। শেখ হাসিনা আপন শক্তিতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে এগিয়ে যান। আমাদের সমস্যা, আমাদের সংকট, আমাদেরকেই সমাধান করতে হবে, বলেন ওবায়দুল কাদের।

;

সরকার পাচারকারীদের পক্ষ নিচ্ছে: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকার পাচারকারীদের তথ্য প্রকাশ না করে নিজকেই প্রশ্নবিদ্ধ করছে। দুর্নীতিবাজ ও পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে সরকার অপরাধীদের পক্ষ নিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি।

শুক্রবার (১২ আগস্ট ) রাজধানীর মিরপুরের চিড়িয়াখানা রোডের ঈদগাহ মাঠে মিরপুর ও শাহ্আলী থানার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, প্রতি বছর কারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে, তাদের তালিকা জানতে চায় দেশের মানুষ। পাচারকারীদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। গেলো বছর সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশ থেকে ৪ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে। সাধারণ মানুষ মনে করছে বর্তমান সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও ক্ষমতাসীন দলের লোকজন বাঁচাতে দুর্নীতির তথ্য প্রকাশ করছে না।

তিনি বলেন, জ্বালানি খাতের দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে হবে। দেশের মানুষ জানতে চায়, প্রতি বছর কত হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি হয়েছে। কারা এই দুর্নীতির সাথে জড়িত? দুর্নীতির সাথে জড়িতদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে। বিচারের মুখোমুখি করতে হবে দুর্নীতিবাজদের।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ইউরোপ, আমেরিকা আর সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্য ছেড়ে দেয়া উন্নয়নের নৌকা এখন শ্রীলঙ্কার পথে। দেশের স্বার্থে কথা বললেই সরকারের কিছু নেতা ষড়যন্ত্র খোঁজে। আমরা যখন বলেছি, দেশ শ্রীলঙ্কার মত ব্যর্থ হতে চলছে। তখন আমাদের মুর্খ বলেছে। এখন আমাদের প্রশ্ন, দেশে লোডশেডিং কেন? ডলারের দাম এত বেড়েছে কেন? জ্বালানি তেলের দাম এত বেড়েছে কেন? সারাদিন বিশ্বব্যাংক আর আইএমএফ-কে গালাগাল দিয়ে এখন ঋণের জন্য তাদের পিছনে ঘুরছেন কেন?

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বললেই আওয়ামী লীগ এর কিছু নেতা মনে করেন, তাদের গালাগাল দেয়া হচ্ছে। অযৌক্তিক ভাবে তারা আমাদের গালাগাল দিতে শুরু করেন। তারা বুঝতে চান না, মানুষ তাদের ভোটাধিকার ফিরে পেতে চায়। মানুষ নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধি নির্বাচিত করে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দিতে চায়। দেশের মানুষ আর টালবাহানার নির্বাচন চায় না। নির্বাচনের নামে ইভিএম এর কারসাজি চলবে না। কালো টাকা, পেশিশক্তি, অস্র আর প্রশাসনকে প্রভাবিত করে যেনতেন নির্বাচন করতে পারবে না কেউ। এখন মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠাই গুরুত্বপূর্ণ।

জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর উত্তর এর সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর আলম পাঠানের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বক্তৃতা করেন পার্টির মহাসচিব মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আব্দুস সবুর আসুদ, সফিকুল ইসলাম সেন্টু, আতিকুর রহমান, মোস্তফা আল মাহমুদ, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা এমএ কুদ্দুস খান, আমানত হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন, মাহবুবুর রহমান লিপটন প্রমুখ।

;