রাজপথ থেকেই সরকারকে ধাক্কা দিতে হবে: খন্দকার মোশাররফ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজপথ থেকেই এই সরকারকে ধাক্কা দিতে হবে এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সেই ধাক্কা দেওয়ার সূচনা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

শনিবার (২৮ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, বাংলাদেশ যাবে কোন পথে ফায়সালা হবে রাজপথে। এই রাজপথ থেকেই আমাদের অবৈধ সরকারকে ধাক্কা দিতে। আমাদের ছাত্রদল তাদের শরীরের রক্ত ঢাকার রাজপথে দিয়ে এই ধাক্কা দেওয়ার আন্দোলনের সূচনা করেছে। আমি আশাকরি যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন ঐক্যবদ্ধভাবে ছাত্রদলের পাশে থেকে একই ইস্যুতে আন্দোলন করতে হবে। আন্দোলনের বিকল্প নাই।

তিনি বলেন, আমাদের এই আন্দোলনের ইস্যু সরকারের পদত্যাগ, অবৈধ সংসদ বাতিল ও বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি। আমাদের ইস্যু একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন। যে নির্বাচনে জনগণ নিজের ভোট নিজে দিবে, ইভিএমের মাধ্যমে না। তাই আমাদের ইস্যু পরিষ্কার। এই ইস্যু যুবদলের, এই ইস্যু ছাত্রদলের, সকল অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন ও সারা দেশের মানুষের। তাই আমি আহ্বান জানাবো যারা এদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও দেশের জনগণের মালিকানা জনগণের কাছে ফিরিয়ে দিতে চায় তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নেমে আসুন।

ছাত্রদলের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের হামলার নিন্দা জানিয়ে ড. খন্দকার মোশাররফ বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের ছেলেদের পিটিয়ে যেভাবে রক্ত বের করেছে, আমাদের একজন ছাত্রী নেত্রীকে যেভাবে মারধর করেছে সে সকল ছবি পত্র পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। আমাদের সমাবেশ থেকে এ ধরনের ঘৃণ্য কাজের জন্য নিন্দা জানাই।

তিনি বলেন, আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখার জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ের নির্দেশে ছাত্রলীগ-যুবলীগের সন্ত্রাসীরা এ সকল অপকর্ম করছে। আমি স্মরণ করিয়ে দিতে চাই এই নেতাদের নির্দেশে যুবলীগ-ছাত্রলীগের পাণ্ডারা নিউ মার্কেটের ঘটনা ঘটিয়েছিল, পার পায়নি। তারা কিন্তু গ্রেফতার হয়েছে। আবরারকে যারা হত্যা করেছিল তারাও কিন্তু তাদের নেত্রী ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় রেহায় পায়নি। বিশ্বজিৎকে যারা হত্যা করেছিল তারাও কিন্তু তাদের ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় রেহাই পায়নি। অতএব আমি তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যারা আজকে এই নির্দেশ তোমাদেরকে দিচ্ছে তারা তোমাদেরকে ধ্বংস করছে।

যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এছাড়াও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম ও উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানসহ বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতারা সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

আ.লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য মুকুল বোস মারা গেছেন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আ.লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য মুকুল বোস মারা গেছেন

আ.লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য মুকুল বোস মারা গেছেন

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর অন্যতম সদস্য মুকুল বোস মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন)।

শনিবার (২ জুলাই) চেন্নাই এপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর সোয়া পাঁচটায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মুকুল বোস বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে মুকুল বোসের বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী, এক পুত্র এক কন্যা রেখে গেছেন। প্রধানমন্ত্রী ও  আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধা মুকুল বোসের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের সবশেষ কাউন্সিলের পর ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি মুকুল বোসকে দলটির উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য করা হয়।

;

বালিয়াকান্দিতে আ.লীগের কমিটি গঠনে হামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
বালিয়াকান্দিতে আ.লীগের কমিটি গঠনে হামলা

বালিয়াকান্দিতে আ.লীগের কমিটি গঠনে হামলা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনের সময় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ হামলায় ৩ জন আহত হয়েছেন। হামলার ঘটনায় রাতেই ১৪ জনকে আসামি করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বালিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়াবিষিয়ক সম্পাদক বাশারুল আলম বাপ্পু।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিকালে নবাবপুর ইউনিয়নের বড়হিজলি আলিম মাদরাসা প্রাঙ্গণে এঘটনা ঘটে। আহতদের দুজন বালিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। তারা হলেন বড়হিজলি গ্রামের খালেক মিয়ার ছেলে খোকন ও বেরুলি গ্রামের রহিম মোল্লার ছেলে রইস মোল্লা। আহত অপরজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে রাতেই হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন।

থানায় অভিযোগকারী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক বাশারুল আলম বাপ্পু বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৭নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন কাজ চলছিল। অনুষ্ঠানের শুরুতেই শুভেচ্ছা বক্তব্যের সময় অতর্কিতভাবে নবাবপুর ইউনিয়নের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত সেনাসদস্য বাদশাহ আলমগীরের উসকানিতে তার অনুসারী ২৫-৩০ জন দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদসহ ইউনিয়ন পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। হামলাকারীরা আমাদের অনুষ্ঠানের মঞ্চ ও চেয়ার-টেবিল ভাংচুরসহ দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাদশাহ আলমগীর ২০১৭ ও ২০২২ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় দল তাকে বহিষ্কার করে৷ তার পরিবারের সকল সদস্য বিএনপি রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। বিএনপি কর্মীদের নিয়েই সে হামলা চালিয়েছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ বিষয়ে আমরা পরবর্তী দলীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো।

নবাবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাদশাহ আলমগীর বলেন, এই ঘটনার সাথে আমি সম্পৃক্ত না। এই ঘটনার সূত্রপাত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে। আমাকে শুধু শুধু এখানে জড়ানো হচ্ছে। তবে চেয়ার ভাংচুরের ঘটনাটি তিনি স্বীকার করেন।

;

‘গণতন্ত্রের প্রশ্নে সরকার কখনই মাথা নত করবে না’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
'গণতন্ত্রের প্রশ্নে শেখ হাসিনা সরকার কখনই মাথা নত করবে না'

'গণতন্ত্রের প্রশ্নে শেখ হাসিনা সরকার কখনই মাথা নত করবে না'

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বাবু সুজিত রায় নন্দী বলেছেন, শান্তি, মানবতা, অসাম্প্রদায়িকতা ও গণতন্ত্রের প্রশ্নে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার কখনই অশুভ শক্তির কাছে মাথা নত করবে না।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিকালে রাজধানীর গুলশান লেকশোর হোটেলে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল (ডিআই) কর্তৃক আয়োজিত তরুণ নেতৃত্ব গঠন ফেলোশিপ প্রোগ্রামে তিনি এসব কথা বলেন।

সুজিত রায় নন্দী বলেন, গত ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে সব ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতু আমাদের মর্যাদার প্রতীক, সক্ষমতার প্রতীক, সাহসিকতার প্রতীক। এর সফল নায়ক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন অশুভ শক্তি মেনে নিতে পারছে না। দেশে তারা মাথা চাড়া দিয়ে দাঁড়াতে পারেনি শুধু মাত্র শেখ হাসিনার কারণে। সন্ত্রাসীদের কোনো জায়গা বাংলাদেশে হবে না। বাংলাদেশ হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার গণতান্ত্রিক দেশ।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বলেন, রাজনীতিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও প্রতিযোগিতা থাকবে কিন্তু প্রতিহিংসা নয়। আমরা কেউ হিংসাত্মক মনোভাব পোষণ করব না। মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করেই কাজ করতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল পার্টির প্রধান ডানা ওল্ডস, ক্রিস্টিন ওয়াল, ডিরেক্টর অফিস অফ ডেমোক্রেসি, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড গভর্নেন্স, ইউএসএআইডি, লেসলি রিচার্ডস,ডেপুটি চিফ অফ পার্টি, ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল, জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদনান এমপি, বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন।

;

সুইচ গেটগুলো খুলে অপরাধ করেছে ভারত: জাফরুল্লাহ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

গজলডোবার সব সুইচ গেটগুলো খুলে দিয়ে ভারত আন্তর্জাতিক অপরাধ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ভারতের অন্যায় হলো গজলডোবার সব সুইচ গেটগুলো আমাদেরকে না জানিয়ে অতর্কিত খুলে দেয়া। এইটা একটা রাজনৈতিক অপরাধ করেছে তারা। এটা আন্তর্জাতিক অপরাধ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বন্যা, খরা ও পরিবেশ বিপর্যয় রোধে সরকারের ব্যর্থতা ও উদাসীনতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ তিনি এসব কথা বলেন। গণঅধিকার পরিষদ এই সমাবেশের আয়োজন করে।

বাজেট প্রসঙ্গে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আজকে আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে ভুলটা করছেন আমাদের বোকা বানাচ্ছেন। একটা বাজেট করেছেন সেখানে একটা শব্দ নেই- কীভাবে গণতন্ত্র আসবে। কীভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। উনারা এইটা দখল করে রাখবে। প্রতিটা ক্ষেত্রে ভুল। এখানে ক্ষুদ্র খামারি- শ্রমিক তার জন্য কোন বরাদ্দ নাই। তার চাইতেও বড় কথা, বাংলাদেশে ১২-১৩ লাখ রোহিঙ্গা এসেছিলো। এখন হয়ে গেছে ২৫ লাখ। আগামী ১০ বছরে এইটা আরও বাড়বে, তার জন্য কোন বরাদ্দ নাই।

জাফরুল্লাহ বলেন, আমাদের অধিকার ফেরত দিতে বাংলাদেশকে ১৫ থেকে ১৭টা প্রদেশে ভাগ করতে হবে। তাহলে দেখা যাবে এখানে যারা উপস্থিত আছে তাদেরও দু একজন মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাবে। তারা মুখ্যমন্ত্রী হলে নতুনত্ব দিবে। আমাদের সততা আনবে, উদাহরণ সৃষ্টি করবে। ঘুষ কমাবে, দুর্নীতি কমাবে। তোমরাই আমাদের ভবিষ্যৎ। তোমাদের এই ভবিষ্যতের বিজয় পথে আমি তোমাদের সঙ্গে আছি।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর, যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খানসহ অনান্য নেতারা।

;