মকারির নির্বাচনে বিএনপি যাবে না: টুকু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বর্তমান সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচনে অংশ নিবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল মাহমুদ টুকু বলেছেন, এই সরকারের অধীনে আগে একবার নির্বাচন হয়েছিল আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। আমরা বিশ্বাস করে সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম কিন্তু তারা দিনের ভোট রাতেই শেষ করে দিয়েছে। এখন ইভিএম, ইভিএম করছে। অর্থাৎ রাতের বেলা সিল মারতে হবে না দিনের বেলা ঘরে বসেই সব ভোট নিয়ে নিতে পারবে। এরকম মকারির নির্বাচনে মধ্যে আমরা যাব না।

বুধবার (২৯ জুন) সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপি'র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। যুবদলের নবগঠিত কমিটির উদ্যোগে মাজার জিয়ারত ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

টুকু বলেন, যতক্ষণ একটি নিরপেক্ষ সরকার না আসবে বিএনপি সেই নির্বাচনে অংশ নিবে না। বিএনপি একটি সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশে নির্বাচন করতে চায়।

তিনি বলেন, বিএনপি দেখিয়ে দিয়েছে গণতন্ত্র কাকে বলে। বেগম খালেদা জিয়া পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার দিয়েছিল। সেই নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি পরাজয় বরণ করেছিল। এটাকেই বলে আসল গণতন্ত্র। এই সরকারের যদি সৎ সাহস থাকে তাহলে তারা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসুক। আমরা যদি পরাজয় বরণ করি করব। তবে খেলাটা ফেয়ার হতে হবে।

সিইসির চারদিনে ভোট করার প্রস্তাব সম্পর্কে জানতে চাইলে বিএনপির নীতিনির্ধারক বলেন, তিনি হাইব্রিড কিনা জানিনা আবার তিনি চার দিনে কেনো নির্বাচন করতে চান সেটাও জানি না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ জন্মের আগে থেকেও আমরা একদিনেই ভোট করি। চার দিনে ভোট করার মানে হলো ভোটগুলো এনে ডিসি অফিসে রাখা, আর ডিসি অফিসকে কেউ বিশ্বাস করে না। সুতরাং এটি বাংলাদেশ হবে না।

এসময় বিএনপি'র ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, যুবদলের সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, বর্তমান সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাধারণ সম্পাদক মোনায়েম মুন্না, সিনিয়র সহ সভাপতি মামুন হাসান, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মিল্টন, যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

‘আ.লীগ ক্ষমতার জন্য ভারতকে কখনো অনুরোধ করেনি’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ওবায়দুল কাদের/ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের/ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের সাথে বাংলাদেশ কোন বৈরিতার সম্পর্ক চায় না, ভারতের সাথে বৈরিতা করে দেশের ক্ষতি হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (১৯ আগস্ট) রাজধানীর পলাশি মোড়ে ঐতিহাসিক কেন্দ্রীয় জন্মাষ্টমী মিছিল উদ্বোধন শেষে এসব কথা বলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় টিকিয়ে থাকা ও আসার জন্য ভারতকে কখনো অনুরোধ করেনি, শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি। এটি কারো ব্যক্তিগত অভিমত হতে পারে।

হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কোন সাম্প্রদায়িক হামলা হয়নি, জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যারা হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা করেছে তারা দুর্বৃত্ত।

;

কমিটি সহসাই যারা আসছে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্বে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কমিটি সহসাই যারা আসছে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্বে

কমিটি সহসাই যারা আসছে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্বে

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রথম কমিটি গঠন হয় ২০১৬ সালের দিকে। এরপর দীর্ঘ ৪ বছর পর ২০২০ সালের ১৮ সেপ্টেম্বরে স্বেচ্ছাসেবক দলের ১৪৯ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। কিন্তু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেন্দ্রীয় সভাপতি শফিউল বারী বাবু মৃত্যুবরণ করলে সংগঠনে কিছুটা স্থবিরতা আসে। তবে সংগঠনের সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করে যান।পরে ২০২২ সালের ২০ এপ্রিল মোস্তাফিজুর রহমানকে সভাপতি করেই ৩৫২ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়।

তবে এই কমিটি নিয়ে দলের মধ্যে যথেষ্ট নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। সাংগঠনিক বিচারে এটি একটি মেয়াদোর্ত্তীণ কমিটি। স্বেচ্ছাসেবক দলের বেশ কয়েকজন নেতার সাথে আলাপ করে জানা গেছে, বর্তমান কমিটি প্রত্যাশানুযায়ী কাজ করতে পারছে না। তাছাড়া সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের রসায়নেও যথেষ্ট সমস্যা রয়েছে। বিভিন্ন ইউনিটের কমিটি দেয়াতে দীর্ঘ সূত্রিতার আশ্রয় নেয়ায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সংগঠনটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দের উপর ক্ষুব্ধ। বিএনপির অন্যান্য সক্রিয় সংগঠনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে না পারার কারণে স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন কমিটি দেয়ার প্রয়োজন অনুভব করছে বিএনপি হাইকমান্ড। চলতি মাসে (২ আগস্ট) বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সংগঠনটির নেতৃবৃন্দের সাথে নতুন কমিটি গঠন নিয়ে ভার্চুয়ালি আলোচনা করেছেন। সেখানে তিনি সম্ভাব্য নেতৃবৃন্দ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা নিয়েছেন।

নতুন কমিটিতে সাবেক ছাত্রনেতাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে বলে জানা গেছে। এছাড়া বিগত আন্দোলন সংগ্রামে যেসব নেতা ভূমিকা রেখেছে কিন্তু অন্য কোথাও পদ পাননি তাদেরকে পূর্নবাসনের ইচ্ছে আছে বিএনপি হাইকমান্ডের। এছাড়া ছাত্রদলের সদ্য সাবেক এবং যুব নেতাদের যারা পদ বঞ্চিত তাদের ব্যাপারেও সফট কর্ণার রয়েছে দলের। এজন্যই এবার আংশিক কমিটির বদলে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ার ব্যাপারে শক্ত অবস্থানে আছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান।

স্বেচ্ছাসেবক দলে সভাপতি পদ প্রত্যাশীদের মধ্যে জোর আলোচনায় আছেন-বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল ছাড়াও হাবিবুর রশীদ হাবিব,রাজীব আহসান,গোলাম সারোয়ার,সাইফুল ইসলাম ফিরোজ এবং এস এম জিলানী।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদকের পদে ছাত্রদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ সহ আলোচনায় আছেন আজহারুল হক মুকুল,সাদরেজ জামান, ইয়াসিন আলী,সর্দার মো. নুরুজ্জামান এবং নাজমুল হাসান।

কমিটিতে যারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী কিন্তু পদে আসতে পারবেন না তাদেরকে সংগঠনের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়ন করা হবে বলে জানা গেছে। কমিটি গঠনের কাজ একেবারেই শেষ পর্যায়ে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাই যে কোন মুহূর্তেই নতুন কমিটি ঘোষণা হতে পারে।

;

জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গুম-বিচারবর্হিভূত হত্যার তদন্ত চায় বিএনপি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে তদন্তের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) বিকালে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনারের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই দাবি জানান।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশনার অত্যন্ত সঙ্গতভাবে বলেছেন, এগুলোর সুষ্ঠু স্বাধীন নিরপেক্ষ তদন্ত হতে হবে। সেই সঙ্গে এগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে, তাদের বিচার হতে হবে। তিনি র‌্যাবের নামও উচ্চারণ করেছেন। র‌্যাবের মাধ্যমে এগুলো হয়েছে বলে তাদের তদন্তে যতটুকু এসেছে। এ বিষয়ে আমরা বলছি যে, জাতিসংঘের তত্ত্বাবধায়নে স্বাধীন তদন্ত চাই। তদন্তের মাধ্যমে সেগুলো উৎঘাটন করতে চাই। যারা এসবের সঙ্গে জড়িত, যেসব সংগঠন জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, প্রায় ৬ শতাধিক বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতাকর্মী, বিভিন্ন সিভিল সোসাইটির মানুষ ও শ্রমিক নেতাকে গুম করা হয়েছে। বেশির ভাগকেই খুঁজে পাওয়া যায়নি। এগুলোর কোনো সদুত্তর আমরা পাইনি, গুম হওয়া পরিবারের সদস্যরা পায়নি। একটা লোককে রাষ্ট্র গুম করে রাখবে, কিছু জানবে না! তার সমস্ত অধিকারকে ক্ষুণ্ন করা হবে, তার পরিবারের মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত করা হবে- এটা কখনোই মেনে নেওয়া যায় না। এই ধরনের অপরাধ অবশ্যই খুঁজে বের করা দরকার।

‘গুম নিয়ে বিএনপির অভিযোগ বেশিরভাগই রাজনৈতিক’ ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী-নেতাদের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘উনারা তো একথা বলবেনই। তারা তো স্বীকার করবেন না। তবে কালকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য যেটা দেখলাম যে, জাতিসংঘের কোনো ক্ষমতা নেই এসব গুম-অপহরণ হয়ে যাওয়ার বিষয়গুলো বিচার করার। তার মানে এসব ঘটনা সংঘটিত হয়েছে, তাহলে স্বীকার করছেন যে সংঘটিত হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, সবাই তো নিশ্চয়ই পুলিশ অফিসারদের বক্তব্যগুলো শুনেছেন। তারা সব সময়ই বলে থাকেন, অনেকে হারিয়ে যায়, অনেকে পারিবারিক কারণে লুকিয়ে থাকে- এই ধরনের কথা-বার্তা। কিন্তু এগুলো প্রমাণিত হয়ে গেছে। বিশেষ করে একটি অনলাইন পোর্টালে যে প্রতিবেদন বেরিয়েছে তাতে আরও বেশি প্রমাণিত হয়েছে যে, সম্পূর্ণ রাষ্ট্র এর সঙ্গে জড়িত। রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই গুম, অত্যাচার-নির্যাতনের ঘটনার সঙ্গে জড়ানো হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনার যে বিবৃতি দিয়েছেন তাতে বিএনপির যে দাবি তা আবারো প্রমাণিত হয়েছে। আমরা এত দিন বলে আসছি , এখানে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা চলছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের বিবৃতিতে আছে শর্টটার্ম ও লং টার্ম গুম হয়েছে। পরিস্কার করে বলেছেন জাতিসংঘের কর্মীদের ফাইন্ডিংসগুলো হচ্ছে এভাবে গুম হয়ে গেছে, বিচারবহির্ভূত হত্যা করেছে। এমনকি তারা এটাও বলেছে যে, এসব ঘটনা ইনভেস্টিগেশন করার জন্য নতুন একটি টিম আসবে। তারা আশা করেন যে, সরকার তাদেরকে অনুমতি দেবে। যদিও এর আগে কয়েকবার হিউম্যান রাইটস কমিশন আসতে চেয়েছিল। সরকার তাদেরকে বাধা দিয়েছে, তাদেরকে আসতে দেয়নি। এবার তাদেরকে আসতে দিয়েছে।

;

‘বিএনপি এখনো দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত’ 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, যারা জাতির পিতার হত্যাকারীদের রক্ষা করেছিল ও সরকারি চাকরি দিয়েছিল তারা এখনও বাংলাদেশের রাজনীতিতে রয়েছে। এখনও তারা ধ্বংস হয়নি। এখন তারা সাম্প্রদায়িক রাজনীতির মোহে রয়েছে। তারা বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক শক্তির উত্থান চায়।

তিনি বলেন, এখন শুধু তারা বঙ্গবন্ধুকন্যার বিরোধিতা করে না তারা তাঁকে ক্ষমতা থেকে সরাতে চায়। তারা যে কোন উপায়ে যে কোনো মূল্যে ক্ষমতায় আসতে চায়। এর জন্য তারা দেশে ও আন্তর্জাতিকভাবে নানা ষড়যন্ত্র করছে। তারা মিথ্যাচার ও গুজব রটিয়ে দেশ অস্থিতিশীল করতে চায়। এরাই দেশে হত্যা ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু করেছিল। তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, শুধু গণতন্ত্রের লেবাস ধরে থাকে।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) সকালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৭ তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট সেনাবাহিনীর কিছু উচ্চাভিলাসী অফিসার জাতির পিতা ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে নির্মমভাবে হত্যা করে। সেসময় কিছু সংখ্যক সেনা অফিসার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ছিল না তারাই এ ঘটনা ঘটায় এবং তাদের সাথে দেশে ও আন্তর্জাতিক শক্তি মিলে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। এখানে মূল সেনাবাহিনী সংযুক্ত ছিল না। এরা মহান স্বাধীনতাকে মেনে নেয়নি। জাতির পিতার নেতৃত্বে যখন মুক্তিযুদ্ধ চলেছে তখন এই অপশক্তি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে যুদ্ধের নামে পাকিস্তানীদের সহায়তা করেছিল। ১৫ ই আগস্ট সকল অপশক্তি এক হয়ে জাতির পিতাকে হত্যা করে। তারা আমাদের বাঙালি জাতির সংস্কৃতি, সত্তা, ভাষা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করতে চেয়েছে। তারা চায়নি বাংলাদেশে কোন মুক্তিযুদ্ধের শক্তি থাকুক।

তিনি বলেন, জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডে যারা অংশগ্রহণ করেছে তাদের বিচার হয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে এই বিচারের পথ তৈরি করেছেন। তিনি কুখ্যাত খুনি জিয়াউর রহমানের ইনডেমনিটি আইন বাতিল করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবিধান থেকে কালো অধ্যায় বিলুপ্ত করে জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচার করেছেন। ২১ বছর পর বঙ্গবন্ধুকন্যা তাদের যে বিচারকার্য শুরু করেন তার মধ্য দিয়ে খুনিদের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে এবং আমরা বায় পেয়েছি। তবে একটি দল এখনও সে খুনিদের ভাষায় কথা বলে।

তিনি আরও বলেন, আমরা এখন চাই উন্নয়নের পথে হাঁটতে, এগিয়ে যেতে। এই পথযাত্রায় যেখানেই বাধা আসবে আমরা সেখানেই প্রতিবাদ করব। বিএনপি-জামাত যখনই সুযোগ পাবে এই বাংলাদেশকে আফগানিস্তানের মতো বানাবে অথবা পাকিস্তান শাসনের মতো দুঃশাসনে পরিণত করবে। এরা সুযোগ পেলেই দেশকে জঙ্গিবাদের অভয়ারণ্যে পরিণত করবে। তখন দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিপন্ন হবে ও সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা বিপন্ন হবে। আমরা জাতির পিতার সৃষ্ট বাংলাদেশে এমন কোন কিছু হতে দিতে পারিনা। তাই এদের এমন কোন কর্মকাণ্ড দেখলে আমরা তা শক্ত হাতে প্রতিরোধ করব।

শেকৃবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কৃষিবিদ প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি, কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশনের সভাপতি, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কৃষিবিদ প্রফেসর ড. মো. শহীদুর রশীদ ভূঁইয়া, শেকৃবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ও যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব কৃষিবিদ মেজবাহ উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ ড. মোঃ সাঈদুর রহমান সেলিম প্রমুখ।

;