বিএনপির মেয়র প্রার্থীদের সমর্থন দেবে ২০ দল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছেন নজরুল ইসলাম খান, ছবি: বার্তা২৪.কম

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছেন নজরুল ইসলাম খান, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি) নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থীদের ২০ দলীয় জোট সমর্থন ও সহযোগিতা করবে বলে জানিয়েছেন জোটের সমন্বয়ক ও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘দুই সিটি নির্বাচন পরিচালনার জন্য গঠিত কমিটিতে ২০ দলের শীর্ষ নেতারা থাকবেন এবং বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নেবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘কারচুপির মাধ্যমে ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচনে পরিণত করা হয়। ফলে বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারকে জনগণ নির্বাচিত সরকার হিসেবে মনে করে না।’

এর আগে বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর ও তার সহযোগীদের ওপর মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের বর্বরোচিত হামলার নিন্দা জানিয়েছে ২০ দলীয় জোট। হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন জোটের নেতারা। একই সঙ্গে তারা ‘দৈনিক সংগ্রাম’ পত্রিকার অফিসে ভাঙচুর ও সম্পাদককে নির্যাতনের নিন্দা জানান।

২০ দলের সমন্বয়ক বলেন, ‘২০২০ সালের ২৬ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত বছরব্যাপী স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করবে ২০ দল। এ উপলক্ষে একটি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই উপ-কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে বছরজুড়ে ২০ দল কী কী কর্মসূচি পালন করবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০ দল মনে করে সম্প্রতি ভারতের নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) নামে জাতীয় সংসদে একটি আইন পাসের মাধ্যমে সেখানে যুগ যুগ ধরে বসবাসরত মুসলমানদের জানমালের অনিরাপদ করে তুলেছে। সারা ভারতবর্ষে, জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মহল এই আইনের প্রতিবাদ জানিয়েছে। এই আইনের বিরুদ্ধে ভারতের আন্দোলন-সংগ্রাম অব্যাহত রয়েছে।’

বৈঠকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে বিলম্ব করার কারণে ২০ দলীয় জোট নিন্দা জানায় এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে।

জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দারের সভাপতিত্বে বৈঠকে ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।