মহামারি মোকাবিলায় কৃষি খাতে ভর্তুকির দাবি গণসংহতির

নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

চলমান মহামারি ও এর পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলায় কৃষি খাতকে বাঁচাতে ভর্তুকি দেওয়ার দাবি জানিয়েছে গণসংহতি আন্দোলন।

বুধবার (৮ এপ্রিল) গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি ও নির্বাহী সমন্বয়কারী (ভারপ্রাপ্ত) আবুল হাসান রুবেল এক যুক্ত বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

কৃষক ও কৃষিখাত নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তারা বলেন, দেশের কৃষিখাত লকডাউন পরিস্থিতির ফলে ইতোমধ্যে কঠিন পরিস্থিতির ভেতর পড়েছে। পরিবহন ও মানুষের গতিশীলতা কমে যাবার প্রতিক্রিয়ায় কৃষি পণ্যের চাহিদা কমে যাবার ফলে এর দাম লক্ষ্যণীয় মাত্রায় হ্রাস পেয়েছে।

নেতারা আরও বলেন, কৃষক তার ফসলের উৎপাদন খরচও পাচ্ছেন না, কখনো তার পচনশীল পণ্য ক্রেতা না পেয়ে নষ্ট হচ্ছে। একইভাবে দেশের প্রোটিনের সবচেয়ে বড় উৎস পোলট্রি খাতও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হতে যাচ্ছে।

এ অবস্থায় কৃষিখাতকে সরকারি ক্রয় ও ভর্তুকি মারফত টিকে থাকতে সহায়তা না করলে পুরো দেশের মানুষের ওপরই তা মহামারির সময় ও পরবর্তীতে ভয়াবহ প্রভাব বিস্তার করবে। এমনকি তা দুর্ভিক্ষের দিকেও ঠেলে দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন গণসংহতি আন্দোলনের নেতারা।

তারা বলেন, জাতীয় প্রয়োজনে এই সময় কৃষিকে বাঁচানো সরকারের অগ্রাধিকার হতে হবে। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাই, অবিলম্বে কৃষি খাতকে বাঁচাতে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ক্রয়, পোল্ট্রিসহ সামগ্রিকভাবে কৃষিখাতে ভর্তুকির ব্যবস্থা করতে।

নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও ঘরে থাকা’ই যখন প্রধান কাজ, তখন আমরা দেখতে পাচ্ছি এখনো হাজারো গৃহহীন মানুষ রাস্থায়-স্টেশনে যত্রতত্র দিনাতিপাত করছে, যা তাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ হচ্ছে ও সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কাও বাড়িয়ে তুলছে। আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাই, অবিলম্বে বন্ধ স্কুল-কলেজগুলোতে গৃহহীনদের দুইবেলা খাবারসহ অস্থায়ী আবাসনের ব্যবস্থা করা হোক।

আপনার মতামত লিখুন :