‘আ’লীগের ত্রাণ তৎপরতায় দিশেহারা বিএনপি’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করছেন তথ্যমন্ত্রী/ছবি: সংগৃহীত

বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করছেন তথ্যমন্ত্রী/ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারের পাশাপাশি দেশব্যাপী আওয়ামী লীগের ত্রাণ তৎপরতায় বিএনপি দিশেহারার মতো কথা বলছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় শেষে দেয়া বক্তব্যে চলমান ত্রাণ তৎপরতা নিয়ে বিএনপি'র বিরূপ মন্তব্যের জবাবে তিনি একথা বলেন।

বৈশ্বিক দুর্যোগ করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দেশের এক-তৃতীয়াংশের বেশি মানুষকে সরকার নানাভাবে সহায়তার আওতায় এনেছে জানিয়ে মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, অপরদিকে ক'দিন আগে আমরা বিএনপিকে তিতুমীর কলেজে ছাত্রদলের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে দেখেছি। আর মীর্জা ফখরুল সাহেব বলছেন, তারা সারাদেশে ত্রাণ বিতরণ করছেন, কিন্তু জনগণ তা দেখতে পারছেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্ন আসছে, তারা কাকে ত্রাণ বিতরণ করছেন!

সরকার ৫০ লাখ পরিবারকে বছরে ৭ মাসে ৩০ কেজি করে চাল ১০ টাকা কেজি দরে খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে এবং আরো ৫০ লাখ পরিবারের জন্য রেশন কার্ডের ব্যবস্থা করছে, যার আওতায় আসবে ১ কোটি পরিবারের প্রায় ৫ কোটি মানুষ, জানান তথ্যমন্ত্রী। এছাড়াও আরো ১ কোটির বেশি মানুষকে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় সহায়তা দিচ্ছে সরকার। আওয়ামী লীগ শুধু এখন নয়, ক্ষমতায় বা বিরোধী দল যেখানেই ছিলো, সবসময় দুর্যোগে জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে, আর বিএনপি এখনো শুধু ঢাকা শহরে কয়েকটা লোক দেখানো ফটোসেশনে ব্যস্ত।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে সিটি কর্পোরেশন-জেলা-উপজেলা-ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায় পর্যন্ত সবমিলে ৭২ হাজারের মতো স্থানীয় সরকার প্রতিনিধি রয়েছে। এরমধ্যে অনিয়মের ঘটনা আনুপাতিক হারে দুই হাজারে একটির মতো, যদিও একটি ঘটনাও কাম্য নয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এ ধরনের অনিয়মের সাথে জড়িতদের আগে মোবাইল কোর্টে বিচার হচ্ছে, পরে নিয়মিত মামলার হাত থেকেও এদের রেহাই নেই।

এসময় করোনাভাইরাস মোকাবিলা কালে সহায়তা চেয়ে তথ্যমন্ত্রীর কাছে সাংবাদিকদের তালিকা হস্তান্তর করেন বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতৃবৃন্দ। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে'র সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে'র সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম তপু এ তালিকা হস্তান্তর করেন।

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এসময় বলেন, আজকে বিএফইউজে ও ডিইউজে'র পক্ষ থেকে সারাদেশের সাংবাদিকদের একটি তালিকা দেয়া হয়েছে। তাদেরকে কীভাবে রেশনিংয়ের আওতায় আনা যায়, সেটি আমরা আলোচনা করেছি। একইসঙ্গে কীভাবে আর্থিক সহায়তা করা যায়, সেটিও আলোচনা হয়েছে।

যেহেতু সাংবাদিকরা ঝুঁকির মধ্যে থেকে কাজ করছেন, সংবাদ পরিবেশন করছেন এবং করোনা মোকাবিলাতেও তারা কাজ করছেন, আমরা আশা করছি, শিগগিরই তাদের জন্য ইতিবাচক কিছু করতে আমরা সক্ষম হবো বলে উল্লেখ করেন তিনি। জাতীয় প্রেসক্লাবে ইতোমধ্যেই একটি ন্যায্যমূল্যের দোকান চালু করা হয়েছে, জানান ড. হাছান।

আপনার মতামত লিখুন :