প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের অভিনন্দন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা/ছবি: সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা/ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় অর্থ-বাণিজ্য বিষয়ক সাময়িকী ‘ফোর্বস’-এ প্রকাশিত নিবন্ধে করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপের জন্য প্রশংসিত হওয়ায় দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছে আওয়ামী লীগ।

দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলের পক্ষে এক বিবৃতিতে এ অভিনন্দন জানান। সোমবার (২৭ এপ্রিল) আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়ার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

অভিনন্দন বার্তায় ওবায়দুল কাদের বলেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে সমগ্র পৃথিবী আজ ভয়াবহ সংকটের সম্মুখীন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খাচ্ছে বিশ্বের ক্ষমতাধর উন্নত রাষ্ট্রসমূহও। আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশও সম্পূর্ণ অপরিচিত প্রাণঘাতী এই মহামারি মোকাবিলায় নিরন্তন প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। জননেত্রী শেখ হাসিনার মেধা-মনন সততা-নিষ্ঠা দক্ষতা-কর্মকৌশল ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বর্তমান সরকার জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যাপক কর্মোদ্যোগ বাস্তবায়ন করে চলেছে। করোনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেননি তিনি। তার এই ত্বরিত সিদ্ধান্তে অতিমাত্রায় সংক্রমিত ভাইরাস করোনার ব্যাপক বিস্তার রোধ করা সম্ভব হয়েছে। জাতিসংঘ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামও শেখ হাসিনার গৃহীত পদক্ষেপগুলো প্রশংসনীয় বলে উল্লেখ করেছে।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে চীনে করোনাভাইরাস হানা দেওয়ার পরপরই পদক্ষেপ গ্রহণ করে বাংলাদেশ সরকার। ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে চীনে আটকে পড়া নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় এবং করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলোতে স্ক্রিনিং ডিভাইস স্থাপন করে প্রায় সাড়ে ছয় লাখ মানুষের স্ক্রিনিং করা হয়, তন্মধ্যে ৩৭ হাজার ব্যক্তিকে তাৎক্ষণিকভাবে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়। মার্চের শুরুর দিকে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা ও ব্যাপক গণসচেতনতা গড়ে তোলা, করোনা পজেটিভ রোগীদের জন্য বিভিন্ন চিকিৎসাকেন্দ্র প্রস্তুত করা, পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুযোগ সারা দেশে সম্প্রসারণ ও আক্রান্তদের চিকিৎসা প্রাপ্তি নিশ্চিত করা, চিকিৎসক নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবস্থা ও বিশেষ প্রণোদনা ঘোষণা, কৃষি খাতসহ বড়-মাঝারি-ক্ষুদ্র উৎপাদনশীল শিল্পখাতে বিশেষ প্রণোদনা ঘোষণা, সার্বিক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে কর্মহীন খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষের জন্য ব্যাপক খাদ্য সহায়তা প্রদান এবং ১ কোটি রেশন কার্ডের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণে পদক্ষেপ গ্রহণ ও দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেওয়ার কর্মসূচি বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা চরম সংকটেও ধৈর্য্য-সাহস প্রজ্ঞা-বিচক্ষণতা পরিশ্রম ও কর্মকৌশল দিয়ে সম্ভাবনা ও অগ্রগতিকে নিরূপণ করতে পারেন। সততা-নিষ্ঠা-মানবিকতা-দেশপ্রেম-সাহস ও জনগণের প্রতি অক্ষয় ভালোবাসাই তার শক্তির উৎস। করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্জিত আন্তর্জাতিক এই স্বীকৃতিতে দেশবাসী ও আওয়ামী লীগ গর্বিত।

তিনি আরও বলেন, প্রাণঘাতী মহামারি করোনা প্রতিরোধে জননেত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত পদক্ষেপের আন্তর্জাতিক এই স্বীকৃতি সংকট মোকাবিলায় দেশেবাসীকে অনুপ্রেরণা জোগাবে এবং সকলের প্রত্যয়দীপ্ত সম্মিলিত প্রয়াসকে বেগবান করবে। প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আমরা সক্ষম হবো।

আপনার মতামত লিখুন :