প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ক্রিকেটারদের শুভেচ্ছা বার্তা



স্পোর্টস এডিটর, বার্তা২৪.কম
জন্মদিনে ক্রিকেটারদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

জন্মদিনে ক্রিকেটারদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্রিকেটের যে কোনো আনন্দ-উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সানন্দে অংশ নিয়ে থাকেন। এবার প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ক্রিকেটাররাও যোগ দিলেন আনন্দ ও শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে দিয়ে। ২৮ সেপ্টেম্বর পুরোটা দিন জুড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সর্বস্তরের মানুষের কাছ থেকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা পাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই জন্মদিনে ক্রিকেটাররাও তাকে ভার্চুয়ালি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তার দীর্ঘায়ু কামনা করেছেন। দেশের ক্রিকেটের প্রতি তার অবদান ও অনুপ্রেরণার কথা স্বীকার করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে এক শুভেচ্ছা বার্তায় মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেন- ‘ক্রিকেট বা ক্রিকেটারদের দুর্দিনে আপনি সবসময়ে সামনে ছিলেন এবং এগিয়ে এসেছেন তাদের সমস্যা সমাধানে। আশা করি, আপনি ক্রিকেটের সঙ্গে সবসময়ে এভাবেই থাকবেন। আপনার দীর্ঘায়ু কামনা করছি। শুভ জন্মদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।’

সাকিব আল হাসান ভিডিও বার্তায় বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনাকে জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা। আমি প্রথমেই আল্লাহ’র কাছে দোয়া করছি যাতে আল্লাহ আপনাকে দীর্ঘায়ু দান করেন। আপনি বাংলাদেশকে যেভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, আমি আশা করবো আরও অনেক বছর আপনি আমাদের এই পথ নির্দেশনা ও দিক নির্দেশনা দিয়ে যাবেন। আপনার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।’

সাবেক ক্রিকেটার ও ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফি জয়ী দলের অধিনায়ক আকরাম খান তার শুভেচ্ছা বার্তায় জানান- ‘১৯৯৬ সালের দিকে ক্রিকেট কিন্তু এত বেশি জনপ্রিয় ছিল না। আমাদের মনে আছে, সেই বছর এসিসি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে আপনি আমাদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে উপহার দিয়েছিলেন। কোনো সরকারের কাছ থেকে ক্রিকেট খেলে এত বেশি টাকা পাওয়া সেটাই ছিল আমাদের জন্য প্রথম। আর ১৯৯৭ সালের কথা তো আমাদের সবারই মনে আছে। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর আপনি আমাদের যে সংবর্ধনা দিয়েছিলেন তা আমরা জীবনেও ভুলতে পারবো না। সেই জয়ের পর দেশের ঘরে ঘরে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়েছিল। সেই থেকেই ক্রিকেট দেশের নাম্বার ওয়ান খেলা হয়ে আছে এখন পর্যন্ত। বাংলাদেশের ক্রিকেটে সবারই অবদান আছে, তবে আপনার অবদান অন্যতম। আজ আপনার জন্মদিন, আপনাকে আমরা সবাই শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আমি আমার পরিবারের পক্ষ থেকে আপনার দীর্ঘ ও সুস্থ জীবন কামনা করছি।’

মুশফিক রহিম মাঠ থেকে ভিডিও বার্তা পাঠিয়ে বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা। আপনি সবসময় আমাদের জন্য ইনস্পিরেশন। এই বিশেষ দিনে আপনার দীর্ঘ জীবন কামনা করছি।’

বাংলাদেশ টেস্ট দলের প্রথম অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয় বলেন- ‘২০০০ সালের ১০ নভেম্বর প্রথম টেস্ট খেলেছিল বাংলাদেশ। সেই টেস্টে নেতৃত্ব দেওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। বাংলাদেশের টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনেক বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। আজ ওনার জন্মদিনে সে কথাকে স্মরণ রেখে এবং বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে বিশেষ করে ক্রিকেটে এমনি আরও অনেক অবদানের নেতৃত্ব যিনি দিয়েছেন, সেই প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জন্মদিনে আমি শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল তার বাসা থেকে ভিডিও শুভেচ্ছা বার্তায় বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সত্যিকার অর্থেই একজন ক্রীড়াপ্রেমী। আমাদের ভালমন্দ সব পরিস্থিতিতে তাকে আমরা পাশে পাই। শুভ জন্মদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। আপনি সবসময়ে আমাদের ইনস্পিরেশন।’

জাতীয় দলের পেসার মুস্তাফিজুর রহমান মিরপুর স্টেডিয়াম থেকে বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা। আপনি সবসময় আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। আপনি সবসময় সুস্থ এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পাশে থাকেন সেই দোয়া করি।’

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক এবং বিসিবি’র পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন তার বার্তায় জানান- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে জন্মদিনে অনেক অনেক শুভেচ্ছা। বিগত বছরগুলোতে যেভাবে আপনি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে উৎসাহ দিয়ে আসছেন, আশা করছি সামনের সময়েও আমরা সেই উৎসাহ-উদ্দীপনা পাব। আপনার সুস্থ ও দীর্ঘ জীবন কামনা করছি।’

বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ তার শুভেচ্ছা বার্তায় বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আমাদের সবার জন্য অনেক বড় অনুপ্রেরণা। আপনার এই অনুপ্রেরণায় আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। আপনার দীর্ঘায়ু ও সুস্থ জীবন কামনা করছি।’

বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মমিনুল হক বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনাকে জন্মদিনে অনেক অনেক শুভেচ্ছা। আমরা যখন দেশে বা দেশের বাইরে খেলি, আপনি সবসময় আমাদের খেলার খোঁজখবর রাখেন। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় অনুপ্রেরণা। আপনার দীর্ঘ ও সুস্থ জীবন কামনা করছি।’

কোস্টারিকার সহজ হিসাব, জার্মানির জটিল সমীকরণ

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
কোস্টারিকার সহজ হিসাব, জার্মানির জটিল সমীকরণ

কোস্টারিকার সহজ হিসাব, জার্মানির জটিল সমীকরণ

  • Font increase
  • Font Decrease

রাশিয়া বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়েছিল জার্মানি। কাতার বিশ্বকাপেও শঙ্কা এখনও তাদের। গ্রুপের শেষ রাউন্ডের ম্যাচে তাদের সামনে এখন কোস্টারিকা। এই ম্যাচে কেবল জিতলেই হবে না, তাকিয়ে থাকতে হবে অন্যদের দিকেও।

বিশ্বকাপের ‘ই’ গ্রুপে জার্মানির জন্যে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি মাঠে গড়াবে বৃহস্পতিবার রাত ১টায়। আল বাইত স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে দুই দল।

ফিফা র‍্যাঙ্কিং বলছে জার্মানির স্থান ১১ নম্বর, অন্যেদিকে কোস্টারিকার অবস্থান ৩১ নম্বরে। তবে র‍্যাঙ্কিংয়ের এই অবস্থান অনুযায়ী এখনও খেলতে পারছে না চারবারের বিশ্বকাপজয়ীরা।

কাতারে নিজেদের প্রথম খেলায় জাপানের বিপক্ষে অঘটনের শিকার হয়েছিল জার্মানি। ২-১ গোলে চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে দিয়েছিল এশিয়ার দেশটি। পরের ম্যাচে স্পেনের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে জার্মানি।

অন্যদিকে, কোস্টারিকার এবারের বিশ্বকাপ শুরু হয়েছে দুঃস্বপ্নে। স্পেনের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে তারা হেরেছে ৭-০ গোলে। পরের ম্যাচে অবশ্য জাপানকে হারিয়েছে তারা একমাত্র গোলে।

বিশ্বকাপের ‘ই’ গ্রুপের পয়েন্ট তালিকায় দুই ম্যাচ থেকে মাত্র ১ পয়েন্ট নিয়ে জার্মানি আছে তলানিতে। স্পেন আছে শীর্ষ স্থানে, তাদের পয়েন্ট ৪, কোস্টারিকা ও জাপানের পয়েন্ট ৩। পয়েন্ট তালিকার এই অবস্থানের কারণে চার দলের জন্যেই শেষ ষোলোর সুযোগ উন্মুক্ত রয়েছে। তবে দলগুলোর মধ্যে গোলপার্থক্যে সবচেয়ে সুবিধাজনক স্থানে রয়েছে স্পেন।

জার্মানি ও কোস্টারিকার মধ্যে খেলায় ভালো অবস্থানে রয়েছে কোস্টারিকাই। জিতলেই নকআউট পর্ব নিশ্চিত তাদের। আবার ড্র করলেও থাকবে সুযোগ, সেক্ষেত্রে স্পেন-জাপানের খেলায় জিততে হবে স্পেনকে।

আরও হিসাব আছে, কোস্টারিকা যদি ড্র করে এবং স্পেন যদি হারে, তাহলে দুই দলের মধ্যে গ্রুপ রানার্সআপ প্রথমে নির্ধারিত হবে গোল ব্যবধানে; বর্তমানে স্পেনের গোল ব্যবধান (+৭) আর কোস্টারিকার (-৬)।

কোস্টারিকা যখন একটা জয় পেলেই সহজেই যেতে পারছে শেষ ষোলোতে, সেখানে জার্মানির জন্যে রয়েছে অনেক হিসাব। জার্মানিকে প্রথমে জিততেই হবে। এরপর অপেক্ষা করতে হবে স্পেন-জাপানের ম্যাচের ফল। অন্য ম্যাচে জাপান যদি হারে, তবেই নিজেরা জিতে যেতে পারবে পরের ধাপে।

আবার অন্য ম্যাচে জাপান ড্র করলে, নিজেদের ম্যাচে ২ গোলের ব্যবধানে জিতে লক্ষ্য পূরণ হবে জার্মানির। জাপান ড্র করল আর জার্মানি ১ গোলের ব্যবধানে জিতল, সেক্ষেত্রে দুই দলের গোল ব্যবধান হবে সমান (০), তখন বিবেচনায় আসবে কারা বেশি গোল করেছে।

এরপরের হিসাব জার্মানির জন্যে আরও জটিল, স্পেন হারলে এবং জার্মানি জিতলেও সুযোগ তৈরি হতে পারে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের; তবে গোল ব্যবধানে অনেক এগিয়ে স্পানিশরা। স্পেনের গোল ব্যবধানে (+৭), জার্মানির (-১)। এক্ষেত্রে জার্মানি যদি ৮ গোলের ব্যবধানে জিতে কিংবা স্পেন ৮ গোলের ব্যবধানে হারে, তাহলে এ দুই ক্ষেত্রেই গ্রুপ রানার্সআপ হবে জার্মানি।

;

হারলেই বাদ বেলজিয়াম, ড্র করলেও চলবে ক্রোয়েশিয়ার

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ্বকাপের কথা মনে আছে নিশ্চয়? সেই বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়া হয়েছিল রানার্সআপ আর বেলজিয়াম হয়েছিল তৃতীয়। গত বিশ্বকাপের দুই সেমিফাইনালিস্ট এবারের বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্যায়েই মুখোমুখি হচ্ছে, এবং এটা দল দুটির জন্যে শেষ ষোলোতে উঠার লড়াইয়ের।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

গ্রুপে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ক্রোয়েশিয়া। মরক্কো আছে দ্বিতীয় স্থানে, তাদের পয়েন্টও ৪। ৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে বেলজিয়াম। চারে থাকা কানাডার পয়েন্ট শূন্য।

থিবো কোর্তোয়াদের জন্যে ম্যাচটা যতটা কঠিন, ঠিক ততটা নয় লুকা মদ্রিচদের জন্যে। আজ জিতলে তো বটেই, ড্র করলেও শেষ ষোলোর টিকিট পেয়ে যাবে ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু হেরে গেলে বিদায়ঘণ্টা বেজে যেতে পারে ক্রোয়াটদেরও, যদি গ্রুপের অপর ম্যাচে কানাডার কাছ থেকে অন্তত ১ পয়েন্ট তুলে নিতে পারে মরক্কো।

হারলে বিদায় নিশ্চিত বেলজিয়ামের। তবে ড্র করলেও সম্ভাবনা একেবারে শেষ হয়ে যাবে না। সে ক্ষেত্রে কানাডার কাছে অন্তত ৩ গোলের ব্যবধানে হারতে হবে মরক্কোকে। কিন্তু দুই ম্যাচ থেকে কোন পয়েন্ট না পাওয়া কানাডার জন্যে এটা সহজ নয় নিশ্চিতভাবেই।

ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা বেলজিয়াম ও দ্বাদশ স্থানে থাকা ক্রোয়েশিয়া বিশ্বকাপে মুখোমুখি না হলেও এ পর্যন্ত ৮ বার পরস্পরের বিপক্ষে খেলেছে। এরমধ্যে সমান তিনটি করে জয় দু'দলের, অপর দুটি ম্যাচ ড্র।

এবারের বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে কানাডাকে ১-০ গোলে হারানোর পর দ্বিতীয় ম্যাচে বেলজিয়াম মরক্কোর কাছে ২-০ গোলে হেরে যায়। অন্যদিকে, মরক্কোর সঙ্গে প্রথম ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করা ক্রোয়েশিয়া দ্বিতীয় ম্যাচে কানাডাকে ৪-১ গোলে হারায়।

১৯৩০ সালে বিশ্বকাপের প্রথম আসরে খেলা বেলজিয়ামের বিশ্ব সেরার মঞ্চে এটি ১৪তম অংশগ্রহণ। রাশিয়া বিশ্বকাপে তৃতীয় স্থানই দলটির সেরা অর্জন। অন্যদিকে, ফুটবলের সর্বোচ্চ আসর বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার অভিষেক হয় ১৯৯৮ সালে। সেবার তারা সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছেছিল, এবং গত বিশ্বকাপে খেলেছিল ফাইনাল।

;

সুযোগ নাই কানাডার, মরক্কোর সামনে শেষ ষোলো

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যায়ের শেষ রাউন্ডের ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে মরক্কো ও কানাডা। প্রথম দুই ম্যাচ হারা কানাডার জন্যে ম্যাচটি নিয়মরক্ষার ম্যাচ হলেও মরক্কো জন্যে অন্য হিসাবের, শেষ ষোলোতে উন্নীত হওয়ার সম্ভাবনার।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

গ্রুপে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ক্রোয়েশিয়া। মরক্কো আছে দ্বিতীয় স্থানে, তাদের পয়েন্টও ৪। ৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে বেলজিয়াম। চারে থাকা কানাডার পয়েন্ট শূন্য।

কানাডার বিপক্ষে মরক্কো জিতে গেলে কোন হিসাবেরই দরকার পড়বে না। আবার হার এড়ালেও শেষ ষোলোয় উঠবে তারা।

আবার হারলেও সম্ভাবনা থাকবে মরক্কোর; তবে অবশ্যই অন্য ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার জিততে হবে। মরক্কো ২ বা তার কম গোলের ব্যবধানে হারলে এবং অন্য ম্যাচ ড্র হলেও পরের ধাপে উঠবে আফ্রিকার দলটি।

এবারের বিশ্বকাপে মরক্কো ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে গোলশূন্য ড্রয়ের পর দ্বিতীয় ম্যাচে শক্তিশালী বেলজিয়ামকে ২-০ গোলে হারিয়ে দেয়। অন্যদিকে, কানাডা প্রথম ম্যাচে বেলজিয়ামের কাছে ১-০ গোলে পরাজিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৪-১ গোলে হেরে যায়।

মরক্কো বিশ্বকাপের এবারের আসর নিয়ে ছয়বার অংশ নিয়েছে। আগের পাঁচবারের অংশগ্রহণে একবারই মাত্র তারা নকআউট পর্বে ওঠেছিল। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে মরক্কো প্রথম কোন আফ্রিকান দেশ হিসেবে গ্রুপ পর্ব পেরিয়েছিল।

বিশ্বকাপে মরক্কো ও কানাডা পরস্পরের মুখোমুখি হয়নি। তবে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে দল দুটি তিনবার মুখোমুখি হয়েছিল, যার মধ্যে ২টি ম্যাচ জিতেছিল মরক্কো, অন্যটি ড্র।

;

নকআউট পর্বে আর্জেন্টিনা-অস্ট্রেলিয়া মুখোমুখি

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় অঘটনের শিকার আর্জেন্টিনা শেষ পর্যন্ত শেষ ষোলোতে উঠেছে। সৌদি আরবের সঙ্গে হেরে গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়ায় শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল লিওনেল স্কলানির দল। শেষ পর্যন্ত সব শঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে টানা দুই জয়ে উঠেছে তারা নকআউট পর্বে।

শেষ ষোলোয় আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। আগামী ৩ ডিসেম্বর (শনিবার) বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় দল দুটি মুখোমুখি হবে।

বিশ্বকাপে সৌদি আরবের কাছে ২-১ ব্যবধানে হারার পর লিওনেল মেসিরা ঘুরে দাঁড়িয়েছেন মেক্সিকো ও পোল্যান্ডের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানের জয়ে। দুই জয়ের ৬ পয়েন্টে ‘সি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আর্জেন্টিনা।

‘ডি’ গ্রুপের প্রথম ম্যাচে ফ্রান্সের কাছে ৪-১ ব্যবধানে উড়ে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। তবে তিউনিসিয়াকে ১-০ এবং ডেনমার্ককে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হিসেবে শেষ ষোলোয় জায়গা করে তারা।

বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা দুইবারের চ্যাম্পিয়ন, একাধিকবার খেলেছে ফাইনালেও। দলটি বিশ্বকাপের আগে টানা ৩৬ ম্যাচ অপরাজিত ছিল, যদিও সৌদি আরবের সঙ্গে বিশ্বকাপে হেরে সেই ধারাবাহিকতায় ছেদ পড়েছে। এদিকে, অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ সাফল্য খুব সুবিধার নয়।

অস্ট্রেলিয়া শেষবার নকআউট পর্বে খেলেছিল ২০০৬ বিশ্বকাপে। ২০১০, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে টানা তিন আসরে গ্রুপ পর্যায় থেকে বিদায় নিয়েছিল তারা। গত বছর টোকিও অলিম্পিকে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল আর্জেন্টিনা। অলিম্পিক গেমসে আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। যদিও ভিন্ন দল, তবে ওই ম্যাচে খেলেছিলেন আর্জেন্টিনার গত ম্যাচের গোলদাতা ম্যাক অ্যালিস্টার।

দল দুটির বিশাল পার্থক্য সত্ত্বেও বিশ্বকাপের আগে একটা মন্তব্য করে নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়েছিলেন চার বিশ্বকাপ খেলা অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক টিম ক্যাহিল। তিনি বলেছিলেন, শেষ ষোলোয় অস্ট্রেলিয়া আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে যাবে। টিম ক্যাহিল পেশাদার ফুটবল থেকে অবসর নিয়েছেন। বর্তমানে কাতার বিশ্বকাপের আয়োজন তত্ত্বাবধানকারী সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি ও লিগ্যাসির সদস্য তিনি।

টিম ক্যাহিলের ওই মন্তব্যের পর অনলাইনে অনেকের তার মানসিক স্বাস্থ্য নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন। উত্তাপ ছড়ানো সেই মন্তব্যে যোগ দিয়েছেন অনেক সাবেকও। অনেকের মন্তব্য ছিল অস্ট্রেলিয়াকে আগে গ্রুপ পর্ব থেকে বেরিয়ে আসুক! শেষ পর্যন্ত সবাইকে অবাক করে দিয়ে গ্রুপের অন্যতম শক্তিশালী দল ডেনমার্ককে টপকে এসেছে তারা শেষ ষোলোতে।

‘সি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হওয়া ফ্রান্স দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলবে পোল্যান্ডের বিপক্ষে। ২০১৮ বিশ্বকাপে শেষ ষোলোয় ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ ব্যবধানে হেরেছিলেন মেসিরা। গ্রুপসেরা হতে না পারলে এবারও একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে হতো।

;