নাপোলির স্টেডিয়ামের নামফলকে বসছেন ম্যারাডোনা!



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নাপোলির জার্সি গায়ে দিয়েগো ম্যারাডোনা

নাপোলির জার্সি গায়ে দিয়েগো ম্যারাডোনা

  • Font increase
  • Font Decrease

পুরো ফুটবল দুনিয়ার আকাশ শোকের কালো মেঘে আচ্ছন্ন। কেউ যে খবরটা মেনে নিতে পারছেন না। মানতে পারবেনই বা কেমন করে। ৬০ বছর বয়সেই যে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন ফুটবল কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা।

ফুটবল প্রেমীরা শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় জানাচ্ছেন প্রয়াত এ ফুটবল মহানায়ককে। শুধু ফুটবল নয়। ফুটবলের বাইরের অঙ্গনের অনেকেই শোক ও শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়েছেন প্রিয় ফুটবল ব্যক্তিত্ব ১৯৮৬ বিশ্বকাপ জয়ী ম্যারাডোনাকে হারিয়ে।

পরপারের বাসিন্দা ফুটবল মেগাস্টার ম্যারাডোনার প্রতি সম্মান জানাতে যাচ্ছে তার সাবেক ক্লাব নাপোলি। তবে একটু ভিন্ন ভাবে। ক্লাবের স্টেডিয়ামের নাম পাল্টে ম্যারাডোনার নামে নামকরণ করার চিন্তা-ভাবনা চলছে ক্লাবটির শীর্ষ পর্যায়ে।

ক্লাব প্রেসিডেন্ট আউরেলিও দি লরেনতিস জানিয়েছেন, ম্যারাডোনার সম্মানে ক্লাবের স্যান পাওলো স্টেডিয়ামের নতুন নামকরণ নিয়ে আলোচনা করবে ক্লাব কর্তৃপক্ষ। স্টেডিয়ামের নামের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হতে পারে আর্জেন্টাইন ফুটবল লিজেন্ডের নাম। দি লরেনতিস বলেন, ‘আমাদের স্টেডিয়ামের নাম স্যান পাওলো-দিয়েগো আর্মান্ডো ম্যারাডোনা রাখার ব্যাপারটি বিবেচনা করতে পারি আমরা।’

তাদের ক্লাবের এই চিন্তাধারাকে সমর্থন করে নেপলসের মেয়র লুইগি ম্যাজিস্ট্রিস জানিয়েছেন, ‘দিয়েগো ম্যারাডোনার সম্মানে স্তাদিও সান পাওলোর নাম পরিবর্তন করব আমরা।’

১৯৮৪ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত নাপোলির জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন ম্যারাডোনা। সেটাই ছিল ক্লাবটির স্বর্ণ যুগ। ১৯৮৭ ও ১৯৯০ সালে ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনার হাত ধরেই ক্লাবটি জেতে দুটি ইতালিয়ান লিগ ট্রফি। ১৯৮৯ সালে উপহার দিয়েছিলেন ইউরোপিয়ান ট্রফি উয়েফা কাপ। শেষে ২৫৯ ম্যাচে ১১৫ গোল করা ম্যারাডোনা নাপোলি ছাড়েন ১৯৯১ সালে।