বিসিবি কি জিম্মি? পাপন বললেন- অস্বীকার করার উপায় নেই!



স্পোর্টস এডিটর, বার্তা২৪.কম
বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন

বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরিজ শুরুর আগেভাগে সাকিব ছুটি চেয়েছেন। বিসিবি সেই ছুটি মঞ্জুরও করেছে। শুধু নিউ জিল্যান্ড সিরিজ নয়, এপ্রিল-মে মাসে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সিরিজেও সাকিব না খেলার জন্য দরখাস্ত করেছেন। শ্রীলঙ্কা সিরিজে না খেললেও সাকিব সেই সময় আইপিএলে খেলবেন ঠিকই। পেসার মুস্তাফিজুর রহমানও এই বিষয়ে সাকিব আল হাসানকেই অনুসরণ করছেন। টেস্ট ক্রিকেট না খেলে তারকা ক্রিকেটাররা বিদেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলার দিকে ছুটছেন। সিরিজ শুরুর আগে এমনসব জটিলতায় বিসিবি বেশ সমস্যায় পড়েছে। সিরিজ শুরুর আগে খেলোয়াড়দের এমনসব ইচ্ছের কারণে বিসিবি কি জিম্মি হয়ে পড়ছে?

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এই প্রশ্নের উত্তরে বললেন- ‘এটা একেবারে অস্বীকার করার কোন পথ নেই। এমন ঘটনা এর আগেও যে হয়নি তা নয়। হয়েছে। তবে একটা ব্যাপারে এখন আমাদের মাইন্ড খুব পরিষ্কার- আমরা কাউকে জোর করে কোথাও পাঠাবো না। যে খেলতে চায় না খেলবে না। কেউ অপরিহার্য নয়। আমরা চাই সবাই খেলুক। কিন্তু কারো যদি এই জাতীয় দলের চেয়ে অন্য কোথাও খেলতে ভাল লাগে তাহলে তারা মুক্ত মনে সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারে। আর হ্যাঁ, এই বার্তাটা সবার জন্য প্রযোজ্য হবে। এটা শুধু সাকিব আল হাসানের জন্য নয়, সবার জন্যই একই।’

২২ ফেব্রুয়ারি, সোমবার দুপুরে বিসিবি এসব জটিলতা নিরসনের জন্য বৈঠকে বসেছিলো। সেখানে বেশকিছু সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই প্রসঙ্গে বিসিবি সভাপতি জানান- ‘ক্রিকেটারদের সঙ্গে এই মূহূর্তে আমাদের কোন চুক্তি নেই। গত বছর চুক্তি শেষের পরে আমরা নতুন কোন চুক্তি করিনি এখনো। আমরা শিগগিরই ওদের সঙ্গে চুক্তিতে যাবো। সেই চুক্তিতে সবকিছু পরিষ্কারভাবে লেখা থাকবে। চুক্তিতে নতুন কিছু যোগ করা হবে। সেখানে পরিষ্কারভাবে লেখা থাকবে কে কোন ফরম্যাট খেলতে চায়। কোনটা চায় না। এই চুক্তিতে সই করা খেলোয়াড়রা জাতীয় দলের খেলার সময় অন্য কোথাও খেলতে পারবে না।’