বিরাট ভক্ত বোল্টে অনুপ্রাণিত বিরাটের ব্যাঙ্গালুরু



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সের দলের ভক্ত এখন উসাইন বোল্ট

কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সের দলের ভক্ত এখন উসাইন বোল্ট

  • Font increase
  • Font Decrease

আইপিএলের ১৩টি আসর শেষ। অপেক্ষা এখন ১৪তম আসরের পর্দার উঠার। করোনাভাইরাসের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে কয়েক ঘণ্টা পর সেই অপেক্ষারও শেষ হবে। কিন্তু তিনবার ফাইনাল খেলেও টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে পারেনি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু (আরসিবি)। ২০০৯, ২০১১ ও ২০১৬ সালে তিনবারই তাদের সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে রানার-আপ হয়ে।

এবার কি শিরোপা খরা কাটাতে পারবে ব্যাঙ্গালুরু? সেটা তো কেবল সৃষ্টিকর্তাই জানেন। তাছাড়া উত্তরটা যে আর কারোরই জানা নেই। সময় আর মাঠের পারফরম্যান্সই তাদের ভাগ্য নির্ধারণ করে দিবে।

আজ শুক্রবার, ৯ এপ্রিল রাতে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচ খেলতে নামছে ব্যাঙ্গালুরু। মাঠের লড়াই শুরুর আগেই বাড়তি অনুপ্রেরণা পেয়ে গেছে আরসিবি।

শুধু ভালো খেলার প্রত্যাশাই নয়। ভাগ্য ভালো হলে এবার শিরোপা খরাও কেটে যেতে পারে ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলির দলের। কেননা যে বিরাট এক ভক্ত তারা দলে ভিড়িয়েছে তাতে করে উদ্দীপনা একটু হলেও অন্যবারের চেয়ে বেশিই থাকবে তাদের। কোহলির দল যে ভক্ত হিসেবে পেয়ে গেছে গতির রাজা উসাইন বোল্টকে।

বুধবার, ৭ এপ্রিল এক টুইট বার্তায় ব্যাঙ্গালুরু ভক্তদের এই খুশির খবর দিয়েছেন বিশ্বের এ দ্রুততম মানব নিজেই। জ্যামাইকার এ স্প্রিন্ট সুপারস্টার ব্যাঙ্গালুরুর জার্সি গায়ে জড়িয়ে নিজের ট্রেডমার্ক উদযাপনের ভঙ্গিমায় বন্দী হন ক্যামেরার লেন্সে। সেই ছবি অ্যাথলেটিকসের পর ফুটবল-ক্রিকেট অনুরাগী বোল্ট পোস্ট দিয়েছেন নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে।

কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্সকে ট্যাগ করে বোল্ট এক টুইট বার্তায় লিখেন, ‘চ্যালেঞ্জার্স, তোমাদের জানিয়ে রাখতে চাই, আমি এখনো বিশ্বের দ্রুততম মানব।’

বোল্টের টুইটটি রিটুইট করে বিরাট কোহলি লিখেন, ‘এতে সন্দেহ নেই, সে জন্যই আমরা তোমাকে আমাদের দলে পেয়েছি।’

বোল্টের টুইটের উত্তর দিয়েছেন এবি ডি ভিলিয়ার্সও। টুইটটি রিটুইট করে প্রোটিয়া এ স্টার ব্যাটসম্যান লিখেন, ‘আমরা জানি, বাড়তি রানের জন্য কাকে ডাকতে হবে।’

আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি আরসিবি’র অফিসিয়াল কিট স্পন্সর হচ্ছে পুমা। একই প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছা দূত হলেন বোল্ট। আরসিবির সঙ্গে বোল্টের সেতুবন্ধনটা এবার তাহলে খোলাসা হলো।