টাইগারদের সামনে পাকিস্তানের লাল বলের চ্যালেঞ্জ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মুমিনুল হক ও বাবর আজম

মুমিনুল হক ও বাবর আজম

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্রিকেট ময়দানে ঘুরে দাঁড়াতে চায় বাংলাদেশ। ঝেরে ফেলতে চায় ব্যর্থতার সব গ্লানি। টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষ। এবার টেস্ট লড়াইয়ের পালা। তাই যেন চিড় ধরা আত্মবিশ্বাসটা নতুন করে বাঁধতে শুরু করেছে ক্রিকেটাররা।

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে পাকিস্তানের কাছে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশের কষ্টটা এবার টেস্টে ভুলতে চায় বাংলাদেশ। লাল বলের লড়াইয়ে ভালো করতে চায় টাইগাররা। শুধু ভালো খেলাই নয়।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ছিনিয়ে নিতে চায় প্রথম জয়। টেস্টে যে বাবর আজমদের এখনো হারের স্বাদ দিতে পারেনি বাংলাদেশ। সেই অধরা জয়ের খোঁজেই মাঠে নামছে আজ টাইগাররা। পাকিস্তানের বিপক্ষে এই সিরিজ দিয়েই আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২১-২৩ চক্রে নতুন মিশন শুরু করবে দেশের ছেলেরা।

লক্ষ্য সামনে রেখে আজ প্রথম টেস্ট খেলতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ক্রিকেটের দীর্ঘতম সংস্করণের ম্যাচটি মাঠে গড়াচ্ছে সকাল ১০টায়। দুদলের লড়াই হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। কিন্তু টেস্ট শুরুর আগে বাংলাদেশি শিবিরে দুশ্চিন্তার ঘনঘটা।

কেননা দলে নেই অনেক সিনিয়র ক্রিকেটার। সাকিব আল হাসান প্রথম ম্যাচ থেকে ছিটকে নিয়ে গেছেন হ্যামস্ট্রিয়ের চোট নিয়ে। আর তামিম ইকবাল আঙুলের ইনজুরি নিয়ে বসে আছেন দর্শক হয়ে। 

ফিটনেস না থাকায় দল থেকে বাদ পড়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদের মতো ক্রিকেটাররা। আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ তো টেস্ট ক্রিকেটকেই বিদায় বলে দিয়েছেন।

যে কারণে তারুণ্য নির্ভর দল নিয়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামছে আজ বাংলার দামাল ছেলেরা। অভিজ্ঞতা না থাকলেও এবাদত হোসেন ও আবু জায়েদ রাহীর মতো তরুণ ক্রিকেটারদের ওপরই আস্থা রাখছেন ক্যাপ্টেন মুমিনুল হক।

অধিনায়ক মুমিনুল বলেন, ‘মুস্তাফিজ শেষ ম্যাচ খেলেছে এক বছর আগে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে তাসকিন ও শরিফুল ছিটকে গেছে। ইনজুরি হলে তো আসলে কিছু করার থাকে না। ব্যাক আপ খেলোয়াড় যারা আছে রাহী আছে, এবাদত আছে তারা কিন্তু নিয়মিত টেস্ট খেলছে। তারপর খালেদ আছে। যারা আছে তারা কিন্তু মোটামুটি অভিজ্ঞ।’

মাঠের বাইরের কথায় কান না দিয়ে মাঠের লড়াইয়ে মনোযোগ দিতে চান ক্যাপ্টেন মুমিনুল, ‘বাংলাদেশ দল কিন্তু এমন না। এরকম আরও হয়েছে। আমরা সেখান থেকে বের হয়েছি। মানসিকভাবে সবাই এই সময়ে খুব দুর্বল হয়ে পড়ে। কেননা আমরা বাইরের কথা অনেক বেশি নিয়ে নিই। আমি চেষ্টা করি বাইরের কথায় কান না দিয়ে নিজের কাজে ফোকাস করা। নিজেদের ব্যাক করার জন্য নিজেদের নিয়েই কাজ করা উচিত। এখন সবাই নিজের কাজের ওপর ফোকাস করছে। বাইরের মানুষের মুখ আপনি বন্ধ করতে পারবেন না। আমার মনে হয় আপনার নিজের কানটা বন্ধ করতে হবে।’

তবে টি-টোয়েন্টি সিরিজের দুর্দান্ত ফর্মটা পাকিস্তান বইয়ে নিয়ে যেতে চায় টেস্ট সিরিজে। টি-টোয়েন্টির মতো ব্যাট-বলের দাপুটে পারফরম্যান্সে জিততে চায় আজ। শুধু প্রথম টেস্টই নয়। জিতে নিতে চায় তারা টেস্ট সিরিজই। সেই লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে অতিথিরা।

পরিসংখ্যান অবশ্য পাকিস্তানের দিকেই ঝুঁকে আছে পুরোটা। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের বিপক্ষে পাকিস্তান ১১টি টেস্ট খেলেছে। কিন্তু একটি ম্যাচও জিততে পারেনি কোচ রাসেল ডমিঙ্গো শিষ্যরা। ১০টি ম্যাচই জিতে নিয়েছে পাকিস্তান। বাকি একটি ম্যাচ হয়েছিল ড্র।

তবে লাল-সবুজের জার্সিধারীদের বিপক্ষে চট্টগ্রামে একটি টেস্ট খেলে তাতে জয় ছিনিয়ে নিয়েছিল পাকিস্তান। যে কারণে ভালো পারফরম্যান্স নিয়ে দারুণ আশাবাদী সফরকারীরা।

বাংলাদেশ সর্বশেষ টেস্ট খেলেছে গত জুনে জিম্বাবুয়ে সফরে। আফ্রিকা সফরের সেই একমাত্র টেস্টে জয়ের হাসি দিয়েছিল কাপ্তান মুমিনুল হকের দল। এ কারণে সেই সুখস্মৃতিটা বাংলাদেশকে আজ উৎসাহ দিয়ে যাবে। নিশ্চিত আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিবে দেশের ক্রিকেটারদের।

তার আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি টেস্ট খেলে বাংলাদেশ। যার একটি হারলেও অন্যটি করেছিল ড্র। এ জন্য টাইগারদের কাছে ভালো কিছুই প্রত্যাশা করছেন ভক্ত-সমর্থকরা। আর পাকিস্তান সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ খেলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গত আগস্টে। যার একটি জিতলেও বাকি ম্যাচ ছিল অমীমাংসিত।

পাকিস্তান বাংলাদেশের মাটিতে সর্বশেষ টেস্ট খেলেছে ছয় বছর আগে। মিসবাহ-উল-হকের অধীনে ২০১৫ সালে খেলা সেই দল থেকে এক-দুজন বাদে পুরো নতুন দল নিয়েই টাইগারদের মোকালো করবে শাহীন শাহ আফ্রিদি-হাসান আলীরা।

তবে বাংলাদেশের কন্ডিশন নিয়ে চিন্তিত পাকিস্তান ক্যাপ্টেন বাবর, ‘কন্ডিশন এখানে কিছুটা কঠিন। তবে আমাদের যে ব্যাটিং লাইনআপ, তা অভিজ্ঞ ও স্পিনারদের বেশ ভালো খেলে। আগেও দেখেছি, বেশ ভালো ভালো স্পিনারদের বিপক্ষে রান করেছে। আমি বলতে পারি, এখানেও ওরা ভালো করবে ও দলকে জেতাবে।’