ভারতকে জয় বঞ্চিত করল নিউজিল্যান্ড



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
রাচিন রবীন্দ্র ও অ্যাজাজ প্যাটেলের ব্যাটিং দৃঢ়তায় হার এড়িয়েছে নিউজিল্যান্ড

রাচিন রবীন্দ্র ও অ্যাজাজ প্যাটেলের ব্যাটিং দৃঢ়তায় হার এড়িয়েছে নিউজিল্যান্ড

  • Font increase
  • Font Decrease

কানপুর টেস্টে জয়ের জন্য নিউজিল্যান্ডের লক্ষ্য ছিল ২৮৪ রান। আর ভারতের প্রয়োজন ছিল ১০ উইকেট। তবে জয়ের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিল ভারত। নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬৫ রানে ৯ উইকেট ফেলে দিয়েছিল বিরাট কোহলির দল।

কিন্তু রাচিন রবীন্দ্র (৯১ বলে ১৮*) ও অ্যাজাজ প্যাটেলের (২৩ বলে ২*) মধ্যে কাউকেই আউট করতে পারেননি রবীন্দ্র জাদেজা ও রবীচন্দ্রন অশ্বিনরা। শেষ উইকেট জুটিতে তারা দুজন খেলতে পারতো সবমিলিয়ে ১০ ওভার। কিন্তু আলোর স্বল্পতার কারণে খেলা হয়েছে ৮.৪ ওভার। আর খেলা না হওয়ায় ড্রতেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় স্বাগতিকদের।

প্রথম টেস্ট অমীমাংসিত থেকে যাওয়ায় দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে এখন ০-০ তে সমতা চলছে।

এক উইকেটে ৪ রান নিয়ে শেষ দিনের খেলা শুরু করে কিউইরা। ৫২ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন ওপেনার টম লাথাম। উইলিয়াম সোমারভিলের ব্যাট থেকে আসে ৩৬ রান। ২৪ রান দলীয় স্কোরে যোগ দেন ক্যাপ্টেন কেন উইলিয়ামসন।

ভারতের হয়ে চারটি উইকেট শিকার করেন ৪ উইকেট। তিনটি উইকেট নেন রবীচন্দ্রন অশ্বিন। অক্ষর প্যাটেল ও উমেশ যাদব একটি করে উইকেট নেন।

ম্যাচসেরা শ্রেয়াস আইয়ারের সেঞ্চুরিতে প্রথম ইনিংসে ৩৪৫ রান সংগ্রহ করে ভারত। পরে ৭ উইকেটে ২৩৪ রান তোলে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে কোহলিরা। জবাবে ব্ল্যাক ক্যাপস শিবির দুই ইনিংসে সংগ্রহ করে ২৯৬ ও ১৬৫ রান।

দলে ফিরলেন ম্যাকডারমট, ছুটিতে ওয়ার্নার-মার্শ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বেন ম্যাকডারমট

বেন ম্যাকডারমট

  • Font increase
  • Font Decrease

বিগ ব্যাশে ব্যাট হাতে ঝলক দেখিয়ে নির্বাচকদের নজর কেড়েছেন বেন ম্যাকডারমট। সেসুবাদে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টি সিরিজের দলে ডাক পেয়েছেন এ কিপার-ব্যাটসম্যান। পাঁচ ম্যাচের হোম সিরিজের ১৬ সদস্যের দল ফিরেছেন ট্রাভিস হেড, মোইজেস হেনরিকেস ও জাই রিচার্ডসনও।

মার্চে পাকিস্তান সফরে যাবে অস্ট্রেলিয়া। সেই সিরিজের কথা মাথায় রেখে বিশ্রামে পাঠানো হয়েছে ডেভিড ওয়ার্নার ও মিচেল মার্শকে। দুজনেই ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য।

শ্রীলঙ্কা সিরিজে ছুটি কাটাবেন কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারও। এ সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার প্রধান কোচের দায়িত্বে থাকবেন সহকারী কোচ অ্যান্ড্রু ম্যাকডোনাল্ড।

পাঁচ ম্যাচের টি-সিরিজটি মাঠে গড়াবে ১১ ফেব্রুয়ারি। সিরিজের বাকি চার ম্যাচ হবে ১৩, ১৫, ১৮ ও ২০ ফেব্রুয়ারি।

অস্ট্রেলিয়া টি-টোয়েন্টি দল: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), অ্যাশটন অ্যাগার, প্যাট কামিন্স, জশ হেইজেলউড, ট্রাভিস হেড, মোইজেস হেনরিকেস, জশ ইংলিস, বেন ম্যাকডারমট, গ্লেন ম্যাকওয়েল, জাই রিচার্ডসন, কেন রিচার্ডসন, স্টিভেন স্মিথ, মিচেল স্টার্ক, মার্কাস স্টয়নিস, ম্যাথু ওয়েড ও অ্যাডাম জ্যাম্পা।

;

সাকিবের বরিশালকে ধসিয়ে দিল ইমরুলের কুমিল্লা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
দুই রানের জন্য ফিফটি মিস করেন মাহমুদুল হাসান জয়

দুই রানের জন্য ফিফটি মিস করেন মাহমুদুল হাসান জয়

  • Font increase
  • Font Decrease

বিপিএলে চমৎকার এক জয় ছিনিয়ে নিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ইমরুল কায়েসের দল ৬৩ রানে উড়িয়ে দিয়েছে ফরচুন বরিশালকে। এনিয়ে দুই ম্যাচ খেলে দুটিতেই জয় পেল কুমিল্লা। আর বরিশাল তিন ম্যাচ খেলে হারল টানা দুই ম্যাচ। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে অবশ্য জয়ের দেখা পেয়েছিল সাকিব আল হাসানের দল।

মিরপুরে টস হেরে শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড়ো ব্যাটিং শুরু করেন ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। তবে দুই রানের জন্য অর্ধ-শতক মিস করেন তিনি। ৩৫ বলে ৬ বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৪৮ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে সাজঘরে ফেরেন জয়। তার সঙ্গে ২৯* রানে অপরাজিত থেকে যান করিম জানাত।

অন্য ওপেনার ক্যামেরন ডেলপোর্ট ১৯, মমিনুল হক ১৭ ও ইমরুল কায়েস ১৫ রান এনে দেন। সুবাদে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৫৮ রান সংগ্রহ করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বরিশালের হয়ে ডোয়াইন ব্রাভো শিকার করেন ৩ উইকেট। দুটি উইকেট পান সাকিব আল হাসান।

কিন্তু ১৫৯ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৭.৩ ওভারে ৯৫ রানেই গুটিয়ে যায় ফরচুন বরিশাল। দলের হয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৬ রান এনে দেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আর তৌহিদ হৃদয় ১৯ ও নুরুল হাসান ১৭ রান যোগ করেন দলীয় স্কোরে।

কুমিল্লার জার্সি গায়ে ৫ রান খরচ করে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন নাহিদুল ইসলাম। দুটি করে উইকেট পান শহীদুল ইসলাম, তানভীর ইসলাম ও করিম জানাত।

;

ইতালির জাতীয় দলে ফিরলেন বালোতেল্লি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মারিও বালোতেল্লি

মারিও বালোতেল্লি

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ দিন ইতালির জাতীয় দলে ছিলেন অনুপস্থিত। সে প্রায় তিন বছর। অবশেষে দেশের জার্সি গায়ে মাঠে ফিরতে যাচ্ছেন মারিও বালোতেল্লি। কাতার বিশ্বকাপ প্লে-অফকে সামনে রেখে কোচ রবার্তো মানচিনির দলে ডাক পেয়েছেন আলোচিত এই স্ট্রাইকার।

ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইতালি। সেই শিরোপা জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছিলেন ফেদেরিকো কিয়েসা। সেই কিয়েসাকে বিশ্বকাপের প্লে অফে পাচ্ছে না ইতালি। হাঁটুর ইনজুরির কারণে মাঠে বাইরে চলে গেছেন। মে মাসের আগে খেলতেই পারবেন না এ উইঙ্গার। তার অনুপস্থিতিতে ‘ব্যাডবয়’ খ্যাত বালোতেল্লিকে দলে রেখেছেন মানচিনি।

বালোতেল্লি দেশের জার্সি গায়ে সর্বশেষ খেলেছেন ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে। এখন তারকা এ প্লেমেকার মাঠ মাতান তুর্কি লিগের দল আদানা দেমিরস্পোরের হয়ে। ক্যারিয়ার জুড়ে নানা বিতর্কের জন্ম দেয়া ফরওয়ার্ডকে নিয়েই স্পেশাল অনুশীলন ক্যাম্পে করবে আজ্জুরি শিবির।

বালোতেল্লির সঙ্গে ৩৫ সদস্যের স্কোয়াডে জায়গা করে নিয়েছেন দুই ‘ব্রাজিলিয়ান’ও। দলে অন্তর্ভুক্ত হওয়া ডিফেন্ডার লুইজ ফেলিপে ও ফরওয়ার্ড জোয়াও পেদ্রো সদ্যই পেয়েছেন ইতালির নাগরিকত্ব।

বিশ্বকাপের ফ্লে-অফ খেলতে ইতালি মাঠে নামবে মার্চে। প্লে-অফের সেমি-ফাইনালে তারা মুখোমুখি হবে উত্তর মেসিডোনিয়ার। শেষ চারে জিতলে ফাইনালে ইতালির প্রতিপক্ষ হবে তুরস্ক বা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। ফাইনালে যারা জিতবে তারাই টিকিট পাবে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপের টিকিট।

;

মাশরাফির ফেরার ম্যাচে সিলেটের কাছে হারল ঢাকা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সিলেট সানরাইজার্স

সিলেট সানরাইজার্স

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথম দুই ম্যাচ টানা হারের পর তৃতীয় ম্যাচে এসে জয়ের দেখা পেয়েছিল মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা। প্রথম জয়ের আনন্দ ফুরিয়ে না যেতেই ফের হারের স্বাদ পেল ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। মাশরাফি বিন মর্তুজার ফেরার ম্যাচে সিলেট সানরাইজার্সের কাছে হারল ৭ উইকেটে। অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেনের দল দাপুটে এ জয় পেয়েছে ১৮ বল হাতে রেখেই।

মিরপুরে টস হেরে শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপদে পড়ে যায় ঢাকা। ১৭ রানেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা। তবে মোহাম্মদ নাঈমকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয় কাটিয়ে উঠার আভাস দেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে তাদের জুটি টিকে ছিল দলীয় ৫৭ রান পর্যন্ত।

দলীয় স্কোরে ১৫ রান যোগ করে ওয়ানডাউনে নামা নাঈম ফিরতেই ফের ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিল শুরু হয়ে যায়। ক্রিজের এক প্রান্ত আগলে রেখে ব্যাট হাতে লড়াই করে যান কেবল ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ। অন্য প্রান্তে নিয়মিত পড়তে থাকে উইকেট। রিয়াদও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি ৩৩ রান নিয়ে ফেরেন তিনি।

শেষ দিকে শুভাগম হোমও শেষ চেষ্টা চালিয়ে যান। ইনিংসটা বড় করতে চেষ্টার কোনো ত্রুটি ছিল তার মধ্যে। তবে তিনি থামেন ব্যক্তিগত ২১ রানে। তার সঙ্গে রুবেল হোসেন যোগ করেন ১২ রান। ঢাকার ব্যাটিং অভিযাত্রা ১৮. ৪ ওভারে থামে দলীয় ১০০ রানে।

সিলেটের হয়ে তাসকিন আহমেদ শিকার করেন তিন উইকেট। দুটি উইকেট যায় সোহাগ গাজীর পকেটে। চার উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতেন নাজমুল হাসান অপু।

জবাবে এনামুল হকের ব্যাটিং দৃঢ়তায় তিন উইকেটের বিনিময়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় সিলেট। ১৭ ওভারেই ছুঁয়ে ফেলে তারা ১০১ রানের সহজ লক্ষ্যটা। ৪৫ বলে ৪ বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৪৫ রানের দুরন্ত এক ইনিংস খেলেন এনামুল। ২১* রানে অপরাজিত থেকে যান কলিন ইনগ্রাম।

তার সঙ্গে তিনে ব্যাট হাতে নামা মোহাম্মদ মিঠুন ১৭ ও ওপেনার লেন্ডল সিমন্স ১৬ রান এনে দেন। ঢাকার হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলেই দুটি উইকেট শিকার করেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। বাকি উইকেটি নেন হাসান মুরাদ।

;